• search

মহেশতলা তৃণমূলের! রেকর্ড ভোটে জয় দুলাল দাসের

Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    প্রত্যাশা মতোই মহেশতলা বিধানসভার উপনির্বাচনে জিতল তৃণমূল। তবে এই জিত হল রেকর্ড সংখ্যক ভোটে। কথায় আছে মর্নিং সোজ দ্য ডে। এদিন একেবারে প্রথম রাউন্ডের গণনা থেকে এগিয়ে ছিলেন তৃণমূল প্রার্থী দুলাল দাস। আর প্রতি রাউন্ড গণনায় এই ব্যবধান ক্রমশ বেড়েছে।

    মহেশতলা তৃণমূলের! রেকর্ড ভোটে জয় দুলাল দাসের

    ২১ রাউন্ডের গণনার শেষে তৃণমূল পেয়েছে ১০৪৮১৮, বিজেপি ৪১৯৯৩, সিপিএম ৩০৩১৬।  ৬২৮৯৬ ভোটে জয়ী দুলাল দাস।  জয়ের ব্যবধান ধরলে তা বেড়েছে প্রায় ৫০ হাজার। 

    মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের জেরেই জয় হয়েছে। জানিয়েছেন তৃণমূল প্রার্থী দুলাল দাস। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ৩৬ টি ভিভিপ্যাট মেশিন আর প্রায় ১৪ টি ইভিএম যদি খারাপ হয়ে সময় নষ্ট না হত, তাহলে এই ব্যবধান আরও বাড়ত।

    রাজ্যের একটিমাত্র বিধানসভা আসনে উপনির্বাচনের গণনা হয় বৃহস্পতিবার। বাটানগর উচ্চবালিকা বিদ্যালয়ে ভোটগণনা শুরু হয় সকাল আটটা থেকে। তৃণমূল কংগ্রেসের বিধায়ক কস্তুরী দাসের প্রয়াণের পর তাতে উপনির্বাচন হয় সোমবার।

    নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ভাবেই সম্পন্ন হয়েছিল। সব প্রার্থীই ভোট নিয়ে সন্তুষ্ট ছিলেন। তবে বেশ কয়েকটি বুথে ইভিএম খারাপ হয়ে যাওয়ার ভোটগ্রহণ বিঘ্নিত হয়েছিল। এই কেন্দ্রের ২৮৩টি বুথের মধ্যে ৪৩টি বুথকে অতি উত্তেজনাপূর্ণ বলে চিহ্নিত করা হয়েছিল।

    ২০১৬-র বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের কস্তুরী দাস পেয়েছিলেন ৯৩,৬৭৫ ভোট। শতাংশের নিরিখে ৪৮.৬০ শতাংশ। অন্যদিকে তাঁর নিকটতম প্রার্থী শমিক লাহিড়ী। তিনি পেয়েছিলেন ৮১,২২৩ ভোট। শতাংশের নিরিখে যা ৪২.২০ শতাংশ। বিজেপির কার্তিকচন্দ্র ঘোষ পেয়েছিলেন ১৪,৯০৯ ভোট। শতাংশের নিরিখে যা ছিল ৭.৭০ শতাংশ।

    ২০১১ সালে প্রায় ২৪,০০০ ভোটে ও ২০১৬ সালে প্রায় ১২,৪৫২ ভোটে জয়ী হন তৃণমূল প্রার্থী কস্তুরী দাস।

    English summary
    Trinamool Congress wins Maheshtala by election

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more