• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

২০৩০ সালের মধ্যে কলকাতায় ৫ হাজার ই–বাস চলবে

শহরকে আরও সুন্দর ও দূষণমুক্ত করে গড়ে তুলতে জ্বালানি তেলের পরিবর্তে এবার বৈদ্যুতিন পদ্ধতিতে যানবাহনের উদ্যোগ নিল পশ্চিমবঙ্গ সরকার। ২০৩০ সালের মধ্যে শহরে এই বৈদ্যুতিন যান চলবে বলে জানিয়েছে রাজ্য সরকার। পরিবহন দফতর এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করতে শুরু করে দিয়েছে। সম্প্রতি এই প্রকল্পের জন্য কলকাতা পুরসভার মেয়র তথা পূর্তমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ডেনমার্কের কোপেনহেগেনে গিয়ে সি৪০ সিটিস ব্লুমবার্গ ফিলানট্রফিস পুরস্কার পেয়েছেন।

২০৩০ সালের মধ্যে কলকাতায় ৫ হাজার ই–বাস চলবে

ইতিমধ্যেই পশ্চিমবঙ্গ পরিবহন দফতরের উদ্যোগে কলকাতা এবং সংলগ্ন এলাকায় ইলেকট্রিক বাস (‌ই–বাস) চলছে। ২০৩০ সালের মধ্যে শহরের রাস্তায় ৫ হাজারটি ই–বাস চলবে, এমনই পরিকল্পনা করা হয়েছে। শহরের সম্পূর্ণ পরিবহন ব্যবস্থায় জ্বালানি তেলের পরিবর্তে, বৈদ্যুতিনকেই কাজে লাগাবে সরকার। তা পরিবেশবান্ধবও হবে এবং দূষণও ছড়াবে না।

কলকাতা শহরকে দেখেই অন্য মেট্রো শহরও অনুপ্রাণিত হবে। এই ইলেকট্রিক বাস শহরে চললে তাতে বার্ষিক ৭,৮২,৫৬০ টন কার্বন ডাই অক্সাইড নিগর্মন কমবে। এই ই–বাসগুলি পুরনো দূষণ ছড়ানো বাসের বিকল্প হবে। তবে এই বদল ধীরে ধীরে হবে। পরিবহন দফতরের এক শীর্ষ আধিকারিকের মতে, দশক ধরে চলতে থাকা এই বাসগুলিকে একেবারে উঠিয়ে নেওয়া যাবে না। পুরোপুরি ১০০ শতাংশ কাজ হতে দীর্ঘদিন সময় লাগবে। বর্তমানে কলকাতায় ই–বাসের সংখ্যা ৮০টি। এছাড়া নিউটাউন আইটি হাবে ৫০টি ও ১০০ টি বাস হলদিয়া–দুর্গাপুরের জন্য নামানো হবে।

কলকাতায় এই ই–বাসের চার্জিংয়ের জন্য ২৪১টি চার্জিং স্টেশনও খুলেছে সরকার। বাসের পাশাপাশি পরিবহন দফতর ব্যাটারি চালিত ফেরি পরিষেবা দেবে হুগলি নদীতে।

English summary
This would bring down per annum carbon dioxide emission by 7,82,560 tonnes. All these e-buses will replace old polluting buses
For Daily Alerts
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X
We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more