• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ইন্দিরা গান্ধীর ভূমিকা কী ছিল? কীভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছিলেন তিনি

Google Oneindia Bengali News

১৯৭১ সালের ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের সময় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর আসনে ছিলেন ইন্দিরা গান্ধী। পূর্ব পাকিস্তানের ১০ মিলিয়নেরও বেশি শরণার্থীর মুখোমুখি হয়ে বহুমুখী কৌশল নিয়েছিলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী অসাধারণ ধৈর্য ও সংযমের সাথে কাজ পরিচালনা করতেন। পাকিস্তানকে দুই ভাগে বিভক্ত করে, একটি নতুন দেশ বাংলাদেশ ও অপরটি হল পাকিস্তান, যেখানে জনসংখ্যার ৬০% -এরও বেশি নিয়ে গঠিত করা হয়েছিল। ১৯৭১ সালের পূর্ব পাকিস্তানের স্থানীয় জনগণ পাকিস্তানি সেনাবাহিনী এবং সিভিল সার্ভিসের প্রতি অত্যন্ত বিদ্বেষপূর্ণ ছিল, যখন তারা মুক্তিবাহিনীকে উন্মুক্ত অস্ত্র দিয়ে স্বাগতও জানিয়েছিল।

সম্মান জানানো হয় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর ইন্দিরা গান্ধীকে

সম্মান জানানো হয় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর ইন্দিরা গান্ধীকে

ইন্দিরা গান্ধীর এই কাজে ভারতের অনেকেই সম্মতি জানিয়েছিলেন। বলা বাহুল্য সৈয়দ শাহাবুদ্দিন, অন্যথায় মুসলিম বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে 'বাজপাখি' হিসাবে বিবেচিত ছিল, যিনি বাংলাদেশ সৃষ্টির একজন সোচ্চার সমর্থক হয়েছিলেন। তিনি তখন ইন্ডিয়ান ফরেন সার্ভিসে (IFS) ছিলেন এবং পরে তিনি লিখেছিলেন যে, কীভাবে ১৯৭১ সাল ভারতের মুসলমানদের জন্য ঠিক কেমন ছিল?

১৯৭১সালের পর প্রথমবারের মতো ভারতীয় মুসলমানরা বুঝতে পেরেছিল যে, পাকিস্তানে থাকলে তাদের কোন আশা, কোন ভবিষ্যত ও চাহিদা কোনটাই পূরণ হবে না। সেইসময় ভারতীয় মুসলমানরা নিশ্চিত হয়েছিল তাদের আকাঙ্খার পরিপূর্ণতা সম্পূর্ণরূপে তাদের নিজের দেশে অর্থাৎ তাদের নিজের দেশ এটি পূর্ণ করবে। শাহাবুদ্দিন বলেন, এই উপলব্ধি শুধুমাত্র ভারতীয় মুসলমানদের সঠিক পথেই আনেনি বরং তাদের পরিস্থিতির মুখোমুখি হওয়ার সাহস ও দৃঢ়তাও শিখিয়েছে। তাঁর মতে, বাংলাদেশের সৃষ্টি ভারতীয় রাজনীতিতে একটি ফ্যাক্টর হিসেবে ভারতীয় মুসলমানদের উত্থানকে উত্সাহিত করেছিল।

 ১৯৭১ সালে ইন্দিরা গান্ধী কি করেছিলেন

১৯৭১ সালে ইন্দিরা গান্ধী কি করেছিলেন

১৯৭১ সালের আগে ভারতীয় মুসলমানরা খুব কমই তাদের মনের কথা বলতেন। এই সালের পরেই তারা তাদের নিজেদের মতামত প্রকাশ করতে শুরু করে। পাশপাশি জাতীয় মূলধারার অংশ হয়ে ওঠে। তার প্রতিরক্ষা প্রধানদের, ইন্দিরা গান্ধী সম্পূর্ণ স্বাধীনতা এবং পর্যাপ্ত সময় এবং সংস্থান দিয়েছিলেন পদক্ষেপের জন্য প্রস্তুত হওয়ার। তার একমাত্র শর্ত ছিল যে যুদ্ধ সংক্ষিপ্ত হতে হবে, আন্তর্জাতিক জটিলতা সৃষ্টি না করে।

১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর কেন এত বিখ্যাত

১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর কেন এত বিখ্যাত

১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বরে প্রকৃত যুদ্ধ শুরু হওয়ার সময় ইন্দিরা গান্ধী ২৭ মার্চ এর প্রথম দিকে লোকসভায় বলেছিলেন, এরকম একটি গুরুতর মুহূর্তে, সরকার হিসাবে আমরা যত কম বলি ততই ভালো। তিনি আরও বলেছিলেন, একটি ভুল পদক্ষেপ, একটি ভুল শব্দ, যার অভিপ্রায়ের থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন প্রভাব ফেলতে পারে। মার্চ থেকে অক্টোবরের মধ্যে ৬ মাসেরও বেশি সময় ধরে ইন্দিরা গান্ধী বিশ্ব নেতাদের কাছে চিঠি লিখেছিলেন। যাতে লেখা ছিল তাদের ভারতীয় সীমান্তের পরিস্থিতি সম্পর্কে।

বিশ্ব বিবেককে জাগ্রত করেছিলেন ইন্দিরা গান্ধী

বিশ্ব বিবেককে জাগ্রত করেছিলেন ইন্দিরা গান্ধী

সেসময় ইন্দিরা গান্ধী মস্কো সফর করেছিলেন। তাছাড়া তিনি জার্মানি, ফ্রান্স, ব্রিটেন, বেলজিয়াম এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ২১ দিনের সফরও করেছিলেন। তিনি পূর্ব পাকিস্তানে বেসামরিক জনগণের নির্দয় হত্যা এবং জেনারেল টিক্কা খানের বর্বরতার বিষয়ে বিশ্ব বিবেককে জাগ্রত করার চেষ্টা করেছিলেন। ইন্দিরা গান্ধী কলকাতার কাছে আওয়ামী লীগ কর্তৃক নির্বাসিত সরকারকে অনুমতি দিয়েছিলেন, কিন্তু এটির কোনো আনুষ্ঠানিক মর্যাদা থেকে বিরত ছিলেন।

বাংলাদেশের স্বীকৃতির দাবিতে যখন বিরোধীরা আরও সোচ্চার হয়ে ওঠে, তখন ইন্দিরা গান্ধী ১৯৭১ সালের আগস্টে মন্তব্য করে বলেন, দেশে এমন কিছু লোক আছে যারা বাংলাদেশের ইস্যুকে রাজনৈতিক পুঁজি করার চেষ্টা করছে। এটি সরকারের দায়িত্বজ্ঞানহীন পদক্ষেপের জন্য কোন উপলক্ষ নয়।

 ১৯৭০ সালে শেখ মুজিবুর রহমানের ভুমিকা কি ছিল

১৯৭০ সালে শেখ মুজিবুর রহমানের ভুমিকা কি ছিল

১৯৭০-৭১ সাল জুড়ে পাকিস্তান একটি গৃহযুদ্ধের মুখোমুখি হয়েছিল, যেখানে দেশের জনবহুল পূর্ব অংশ পশ্চিম অঞ্চলের বেসামরিক এবং প্রতিরক্ষা কর্মীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়েছিল - এমন কর্মকর্তারা যাদের বাংলা ভাষা, রীতিনীতি এবং ঐতিহ্যের প্রতি কোন গুরুত্ব ছিল না।

১৯৭০ সালে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ পাকিস্তানের ৩১৩ টি সংসদীয় আসনের মধ্যে ১৬৯ টিতে জয়লাভ করে। কিন্তু তিনি প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে বঞ্চিত হন। প্রকৃতপক্ষে, পাকিস্তানের সামরিক স্বৈরশাসক জেনারেল ইয়াহিয়া খান মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করে পূর্ব পাকিস্তানে সামরিক আইন জারি করা হয়। স্বাধীন গবেষকরা মনে করেন যে এই সময়ে, ৩,০০,০০০ থেকে ৫,০০,০০০ লোক মারা গিয়েছিল। বাংলাদেশ সরকার এই সংখ্যা দাঁড়ায় তিন মিলিয়ন।

 কেন কলকাতা থেকে দিল্লিতে ছুটতে হয়েছিল ইন্দিরা গান্ধীকে

কেন কলকাতা থেকে দিল্লিতে ছুটতে হয়েছিল ইন্দিরা গান্ধীকে

অনেক শিক্ষাবিদ বলেছেন যে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ধর্ষন প্রথমবারের মতো যুদ্ধের অস্ত্র হিসেবে প্রয়োগ করা হয়েছিল। ৩ ডিসেম্বর শ্রীনগর থেকে বারমের পর্যন্ত আটটি বিমান ক্ষেত্রগুলিতে একটি আগাম ধর্মঘট করা হয়েছিল। এটি নিশ্চিত করেছিল যে ভারতকে যুদ্ধ শুরু করতে হবে না।

ইন্দিরা গান্ধী সেদিন কলকাতায় ছিলেন এবং জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিতে ছুটে যান দিল্লিতে। তার পরিমাপিত কণ্ঠে, তিনি দেশবাসীকে জানিয়েছিলেন যে , আমাদের উপর যুদ্ধ বাধ্য করা হয়েছে। তার ঠিক ৩ দিন পর ইন্দিরা গান্ধী বাংলাদেশকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেন।

খবরের ডেইলি ডোজ, কলকাতা, বাংলা, দেশ-বিদেশ, বিনোদন থেকে শুরু করে খেলা, ব্যবসা, জ্যোতিষ - সব আপডেট দেখুন বাংলায়। ডাউনলোড Bengali Oneindia

English summary
what did indira gandhi do in 1970 and 1971 what was the role of the prime minister at that time
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X
Desktop Bottom Promotion