• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

১৯৬২-র ভারত-চিন যুদ্ধ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছিল কমিউনিজমকে, দু-ভাগ হয়েছিল পার্টি

১৯৫৯ সালের ২১ অক্টোবর চিনা বাহিনী কর্তৃক ১০ ভারতীয় সিআরপিএফ সদস্যকে হত্যার পর শুরু হয়েছিল শত্রুতা। যা ১৯৬২ সালে চীন-ভারত যুদ্ধে পরিণত হয়। পূর্ব লাদাখের উঁচু পর্বতশ্রেণি কংকাপাসে যে ঘটনা ঘটেছিল, ভারত সরকারের কাছে তা ছিল বিশাল ধাক্কা। সেই সময়ে দেশের দ্বিতীয় সর্বাধিক জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি বা সিপিআই দু-ভাগ হয়ে গিয়েছিল।

ভারত ও চিনের মধ্যে যুদ্ধ সিপিআইয়ের বিভক্তির কারণ

ভারত ও চিনের মধ্যে যুদ্ধ সিপিআইয়ের বিভক্তির কারণ

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, ১৯৬২ সালের ভারত ও চিনের মধ্যে যুদ্ধের তীব্র প্রভাব ছিল ভারতের বাম রাজনীতিতে। কারণ এটি সিপিআইয়ের বিভক্তির কারণ হয়েছিল। দেশের স্বাধীনতার সময় থেকেই ভারতে বাম মতাদর্শের মুখ হয়ে উঠেছিল সিপিআই। ভারতের বিভিন্ন রাজ্য ও সমাজের মৌলিক চরিত্রকে কেন্দ্র করে ওই দলের মধ্যে ভিন্ন মতাদর্শ তৈরি হয়েছিল।

ভারতে কমিউনিস্ট পার্টি তৈরি ১৯২০-র অক্টোবরে

ভারতে কমিউনিস্ট পার্টি তৈরি ১৯২০-র অক্টোবরে

সিপিআই প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৯২০-র ১৭ অক্টোবর। দলটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল উজবেকিস্তানের তাসখন্দ শহরে, যা পূর্বে সোভিয়েত ইউনিয়নের একটি অংশ ছিল। আমেরিকা ও ইউরোপে পাড়ি জমানো ভারতীয় বিপ্লবীদের মধ্যে থেকেই ভারতে কমিউনিস্ট পার্টি তৈরির প্রচেষ্টা শুরু হয়। সিপিআইয়ের আন্তর্জাতিক উৎস থেকে জাতীয়তাবাদী আন্দোলনে এসেও দলটির একটি দ্ব্যর্থক অবস্থান ছিল।

একদিকে গান্ধীর ডাক, অন্যদিকে সোভিয়েত ইউনিয়ন

একদিকে গান্ধীর ডাক, অন্যদিকে সোভিয়েত ইউনিয়ন

১৯৪০-এর দশকে যখন একদিকে গান্ধীর ভারত ছাড়ার আন্দোলনের ডাক দেওয়া হয়েছিল এবং অন্যদিকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ব্রিটিশদের সমর্থন করার জন্য সোভিয়েত ইউনিয়নের আবেদন জানিয়েছিল, তখন সিপিআই নিজেদের স্বাধীনতা সংগ্রাম থেকে বিচ্ছিন্ন করে তুলেছিল।

মার্ক্সবাদী-লেনিনবাদী আদর্শ নিয়ে টানাপোড়েন

মার্ক্সবাদী-লেনিনবাদী আদর্শ নিয়ে টানাপোড়েন

১৯৫০-এর দশকের শেষভাগ এবং ষাটের দশকের গোড়ার দিকে একটি ঘটনা বিশ্বজুড়ে কমিউনিস্ট মতাদর্শের উপর সর্বাধিক সুদূরপ্রসারী পরিণতি ঘটে। চিন-সোভিয়েতের সম্পর্কের অবনতি হয়। দুটি কমিউনিস্ট শক্তি মার্ক্সবাদী-লেনিনবাদী আদর্শ নিয়ে টানাপোড়েন শুরু হয়। চিন-সোভিয়েত ইউনিয়নের পশ্চিমা দেশগুলির সঙ্গে আন্তর্জাতিক শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের নীতিমালা বাতিল হয়।

সিপিআইয়ের নেহেরুর পররাষ্ট্রনীতির প্রতি সমর্থন প্রসঙ্গে

সিপিআইয়ের নেহেরুর পররাষ্ট্রনীতির প্রতি সমর্থন প্রসঙ্গে

একই সময়ে, সোভিয়েত ইউনিয়ন ভারতে একটি মিত্র শক্তি খুঁজে পেয়েছিল। সিপিআইকে নেহেরুর পররাষ্ট্রনীতির প্রতি সমর্থন দেওয়ার জন্য আবেদন করেছিল। দলের কিছু অংশ কংগ্রেসের প্রতি বৈরিতা রাখার বিরুদ্ধে ছিল। ফলস্বরূপ, যাঁরা নেহরুর প্রতি সমর্থন দেওয়ার জন্য সোভিয়েত ইউনিয়নের আহ্বানের সঙ্গে একমত হন, তারা চিনের কমিউনিস্ট পার্টির দিকনির্দেশ চান।

চিনারা তিব্বতী বিদ্রোহকে নির্মমভাবে চাপা দিতে চেয়েছিল

চিনারা তিব্বতী বিদ্রোহকে নির্মমভাবে চাপা দিতে চেয়েছিল

১৯৫৯ সালে দলাই লামা ভারতে পালিয়ে যান। চিনারা তিব্বতী বিদ্রোহকে যখন নির্মমভাবে চাপা দিতে চেয়েছিল, তখন সিপিআই একটি ইউনিট হিসাবে কাজ করেছিল। ৩১ মার্চ কমিউনিস্ট পার্টির তিব্বতীদের 'মধ্যযুগীয় অন্ধকার' থেকে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য প্রশংসা করেছিল।

৮০০ মাইল দীর্ঘ ম্যাকমোহন লাইনটি চিন-ভারত সীমান্ত

৮০০ মাইল দীর্ঘ ম্যাকমোহন লাইনটি চিন-ভারত সীমান্ত

নেহেরু যখন প্রকাশ করেছিলেন, চিনা বাহিনী উত্তর-পূর্ব সীমান্ত সংস্থা বা নেফা এবং লাদাখের মধ্যে রয়েছে তখনও সিপিআই বেশিরভাগ নীরব ছিল এবং এই বিষয়টির গুরুত্বকে হ্রাস করার চেষ্টা করেছিল। পরিস্থিতি পরিবর্তিত হতে শুরু হয়েছিল সেপ্টেম্বর থেকে, যখন ভারত সরকার চিন থেকে একটি নোট প্রকাশ করেছিল যে, ৮০০ মাইল দীর্ঘ ম্যাকমোহন লাইনটি চিন-ভারত সীমান্ত।

চিন-ভারত সম্পর্ক নিয়ে আলোচনার জন্য কলকাতায় বৈঠক

চিন-ভারত সম্পর্ক নিয়ে আলোচনার জন্য কলকাতায় বৈঠক

তখন সিপিআই পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি চিন-ভারত সম্পর্ক নিয়ে আলোচনার জন্য সেপ্টেম্বর মাসে কলকাতায় বৈঠক করেছিল। বোম্বাই (এখন মুম্বই) এবং কেরালার নেতৃস্থানীয় কমিউনিস্টরা নেহেরুর সীমান্ত নীতির পক্ষে সমর্থন ঘোষণার দাবিতে দলের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছিলেন।

কলকাতা রেজোলিউশনের বিরুদ্ধে জনসমক্ষে বিভাজন

কলকাতা রেজোলিউশনের বিরুদ্ধে জনসমক্ষে বিভাজন

এক মাস পরে, কলকাতা রেজোলিউশনের বিরুদ্ধে জনসমক্ষে গর্জে উঠেছিল একাংশ এবং সিপিআইয়ের জাতীয়তাবাদীদের একটি দল কংকাপাসের ঘটনায় দলটির অবস্থান সম্পর্কে তাদের অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছিল। সংযুক্ত মহারাষ্ট্র সমিতির সংসদীয় বোর্ডের সভায় অংশ নেওয়া কমিউনিস্টরা ঘোষণা করেছিলেন, "ম্যাকমোহন লাইনটি ভারতের 'প্রাকৃতিক সীমানা' ছিল এবং ভারতীয় অঞ্চল 'জোরপূর্বক দখলের সমতুল্য' ছিল।"

সিপিআইয়ের বিভাজন রেখা স্পষ্ট, দলের মধ্যেই আওয়াজ উঠল

সিপিআইয়ের বিভাজন রেখা স্পষ্ট, দলের মধ্যেই আওয়াজ উঠল

কংকাপাসের এই ঘটনার পরে মহারাষ্ট্রের সিপিআইয়ের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং লোকসভায় দলের প্রতিনিধি এস এ ডাঙ্গে চিনের দ্ব্যর্থহীন নিন্দা করেছেন। এই জাতীয় ঘটনা এড়াতে তিনি যে পদক্ষেপ নেন তাতে পুরো দেশই পণ্ডিত নেহেরুর পিছনে দাঁড়াবে বলে তিনি মন্তব্য করেছিলেন। কেরালার এ কে গোপালন, রাজ্যসভায় সিপিআইয়ের উপ-নেতা হীরেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায় এবং উত্তরপ্রদেশ বিধানসভায় দলের প্রতিনিধিত্বকারী ঝাড়কান্দে রায় তাঁকে সমর্থন করেছিলেন। অমৃতসর, আহমেদাবাদ, দিল্লি হরিদ্বার এবং অন্যান্য অনেক জায়গা থেকে অসমতার কণ্ঠস্বর খুব শীঘ্রই প্রকাশ পেতে শুরু করেছিল।

নেহেরুর সীমান্ত নীতিকে সমর্থন নিয়ে দু-ভাগ সিপিআই

নেহেরুর সীমান্ত নীতিকে সমর্থন নিয়ে দু-ভাগ সিপিআই

একই সময়ে, একটি শক্তিশালী চিনপন্থী দল কলকাতা এবং পঞ্জাবের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী হয়ে উঠেছিল। এই গোষ্ঠীটি কলকাতা রেজোলিউশনে অনেকাংশেই সন্তুষ্ট ছিল এবং নেহেরুর সীমান্ত নীতিকে সমর্থন দিতে অস্বীকার করেছিল। তাদের বামপন্থী বলা হত এবং তাদের বিরোধীদের ডানপন্থী বলা হত। পরবর্তী মাসগুলিতে দলের মধ্যে মতবিরোধগুলি প্রায় অপরিবর্তনীয় হয়ে ওঠে।

সিপিআই ভেঙে সিপিএম অর্থাৎ মার্ক্সবাদী সিপিআই

সিপিআই ভেঙে সিপিএম অর্থাৎ মার্ক্সবাদী সিপিআই

১৯৬২ সালের অক্টোবরে যখন চিনা বাহিনী ভারত আক্রমণ করেছিল, তখন হাজার হাজার দলের সদস্যদের গ্রেফতারে ভারত সরকারকে সহায়তা করেছিল পার্টির একাংশ। শেষে ১৯৬৪ সালের জুলাইয়ের বৈঠকে প্রায় ১০০ বামপন্থী আনুষ্ঠানিকভাবে একটি নতুন কমিউনিস্ট পার্টি গঠনের ঘোষণা করে দেন। প্রাথমিকভাবে উভয় দল সিপিআই হিসাবে পরিচিত হওয়ার জন্য জোর দিয়েছিল। যদিও নির্বাচনের পদ্ধতির প্রয়োজনীয়তার কারণে বামপন্থী গোষ্ঠী নিজেদেরকে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী) বা সিপিআই (এম) হিসাবে নিবন্ধিত করেছিল।

২০২০-তে দুর্গাপুজো না করতে দেওয়ার অভিযোগ, 'প্রমাণ দিলে ১০০ কান ধরে ওঠ-বস করব', চ্যালেঞ্জ মমতার

English summary
CPI was divided into two parties due to India-China 1962 war and CPIM started journey
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X