• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts
Oneindia App Download

জম্মু ও কাশ্মীরে সন্ত্রাবাদীদের অর্থ জোগান মামলায় দোষী সাব্যস্ত কাশ্মীরি বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা ইয়াসিন মালিক

Google Oneindia Bengali News

সন্ত্রাসবাদীদের অর্থ জোগান মামলা দোষী সাব্যস্ত করার পরে ইয়াসিন মালিককে দিল্লির একটি এনআইএ আদালত আনুষ্ঠানিকভাবে দোষী সাব্যস্ত করল। মালিক এর আগে মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পরে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল।

জম্মু ও কাশ্মীরে সন্ত্রাবাদীদের অর্থায়ন মামলায় দোষী সাব্যস্ত কাশ্মীরি বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা ইয়াসিন মালিক

এনআইএ কর্তৃপক্ষকে তার আর্থিক অবস্থার মূল্যায়ন করতে হবে এবং ২৫ মে শাস্তির পরিমাণ নিয়ে যুক্তি শোনা হবে। সূত্র অনুসারে, ইয়াসিন মালিককে শুনানির পরবর্তী তারিখের মধ্যে তার আর্থিক সম্পদের একটি হলফনামা দিতে বলা হয়।

১০ মে, মালিক দিল্লির একটি আদালতের সামনে কঠোর বেআইনি কার্যকলাপ প্রতিরোধ আইন (ইউএপিএ) সহ সমস্ত অভিযোগের জন্য দোষী সাব্যস্ত হয়েছিল। মালিকের বিরুদ্ধে ইউএপিএ এর ধারা ১৮ (সন্ত্রাসী কাজ করার ষড়যন্ত্র), এবং ২০ (সন্ত্রাসী গ্যাং বা সংগঠনের সদস্য হওয়া) এবং ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০-বি (অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র) এবং ১২৪-এ (রাষ্ট্রদ্রোহ) ধারার অভিযোগ আনা হয়েছিল।মামলাটি ২০১৭ সালে কাশ্মীর উপত্যকায় কথিত সন্ত্রাসবাদ এবং বিচ্ছিন্নতাবাদী কার্যকলাপের সাথে সম্পর্কিত।

ইয়াসিন মালিক হল একজন কাশ্মীরি বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা এবং প্রাক্তন জঙ্গি যিনি ভারত ও পাকিস্তান উভয় থেকে কাশ্মীরকে আলাদা করার পক্ষে ছিলেন। তিনি জম্মু কাশ্মীর লিবারেশন ফ্রন্টের চেয়ারম্যান, যেটি মূলত কাশ্মীর উপত্যকায় সশস্ত্র জঙ্গিবাদের নেতৃত্ব দিয়েছিল। মালিক দাবি করেন তিনি নাকি ১৯৯৪ সালে সহিংসতা ত্যাগ করেছিলেন এবং কাশ্মীর সংঘাতের সমাধানে আসার জন্য শান্তিপূর্ণ পদ্ধতি গ্রহণ করেছিলেন।

মালিক দাবি করেছিলেন যে , একটি ছোট ছেলে হিসাবে, তিনি নিরাপত্তা বাহিনীর দ্বারা রাস্তায় চালানো হিংসা প্রত্যক্ষ করেছিলেন। ১৯৮০ সালে, সেনাবাহিনী এবং ট্যাক্সি চালকদের মধ্যে বিবাদ প্রত্যক্ষ করার পর, তিনি বিদ্রোহী হয়েছিলেন বলে জানা যায়। তিনি তালা পার্টি নামে একটি দল গঠন করেন, যা একটি বিপ্লবী ফ্রন্ট গঠন করে, রাজনৈতিক উপকরণ ছাপানো ও বিতরণ করে এবং ঝামেলা সৃষ্টি করে। তার দল শের-ই-কাশ্মীর স্টেডিয়ামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে ১৯৮৩ সালের ক্রিকেট ম্যাচ ব্যাহত করার চেষ্টায় জড়িত ছিল, শ্রীনগরে ন্যাশনাল কনফারেন্স সমাবেশে ব্যাঘাত ঘটাতে এবং মকবুল ভাটের ফাঁসির প্রতিবাদে। মালিককে গ্রেপ্তার করে চার মাস আটকে রাখা হয়েছিল।

১৯৮৬ সালে মুক্তি পাওয়ার পর, মালিককে সাধারণ সম্পাদক করে তালা পার্টির নাম পরিবর্তন করে ইসলামী ছাত্র লীগ (আইএসএল) রাখা হয়। আইএসএল একটি গুরুত্বপূর্ণ যুব আন্দোলন হয়ে ওঠে। এর সদস্যদের মধ্যে ছিলেন আশফাক মাজিদ ওয়ানি, জাভেদ মীর এবং আবদুল হামিদ শেখ।

English summary
separatist leader Yasin Malik was convicted by NIA court in the terror funding case.
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X