• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

বড়দিন মানেই শুধুই কেকের উৎসব, কলকাতার এই জায়গাগুলোতে কেক খাওয়ার জন্য হানা দিতেই পারেন

বাঙালি-কে কেক খাওয়ানো শিখিয়েছিল কারা? এটা সত্যিকারেই আবশ্যিক প্রশ্ন। কারণ, বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে কেক খাওয়ার চলটা শুরু হয়েছে ইংরাজ আমলে। তার আগে পিঠা বা রুটি চল থাকলেও ডিম আর বেকিং পাউডারের সংমিশ্রণে কেক বানানোর পদ্ধতিটির আমদানি ওই ব্রিটিশ আমলে। আর সেই চলের শুরু এই কলকাতা শহরের বুক থেকে। অকল্য়ান্ড হোটেল পরে যা নাম বদলে হয় গ্রেট ইস্টার্ন হোটেল এবং বর্তমানে দ্য ললিত নামে পরিচিত এই হোটেলের বেকারি থেকে কেক বিক্রি শুরু ১৮৪০ সালের পর থেকে। তবে, ভারতের বুকে কেককে জনপ্রিয় করার পিছনে রয়েছে বাপু নামবিল্লি নামে একটি লোকের।

কলকাতা শহরেও কেকের স্বাদকে শুকনোর ফলের রসনায় বেঁধে হৃদয় জিতে নিয়েছিলেন নাহুমসরা। বলতে গেলে ক্রিসমাসে বাঙালির কেক খাওয়ার আনন্দকে কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছিল নাহুমসরা। বর্তমান ক্রিসমাসের বাঙালির কাছে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ কেক। এমনই কিছু কেকের দোকান আছে, যারা স্বাদ নেওয়ার জন্য বাঙালি সবসময়েই উন্মুখ হয়ে থাকে।

দ্য ললিত গ্রেট ইস্টার্ন

দ্য ললিত গ্রেট ইস্টার্ন

মাঝে বহু বছর বন্ধ থাকার পর গত বছর পাঁচেক ধরে ফের খুলেছে এখানকার বিখ্যাত বেকারি। গ্রেট ইস্টার্নের সেই বিখ্যাত বেকারিতে তৈরি হওয়া কেকের স্বাদ এবং বর্তমানে তৈরি হওয়া কেকের স্বাদ নিয়ে বহু বিতর্ক হচ্ছে। বিশেষ করে বছর শেষের সময়ে এই বিতর্ক চরমে ওঠে। কিন্তু, যাঁরা ইতিহাসকে প্রত্যক্ষ করতে চান সেই সব মানুষরা এখনও দল বেঁধে হাজির হন দ্য ললিত গ্রেট ইস্টার্ন বেকারির কেকের স্বাদ নিতে।

নাহুমস

নাহুমস

নিউ মার্কেটে নাহুমস-দের দোকানটি এখনও সমান জনপ্রিয়তা চালু রয়েছে। সারা বছরই মানুষ নাহুমস-এর কেক বা কনফেকশনারি আইটেমের জন্য এখানে ভিড় জমান। এদের তৈরি পাম কেক কিনতে এখনও ক্রিসমাসের সময় লম্বা লাইন পড়ে যায়।

ফ্লুরিস

ফ্লুরিস

কলকাতার বুকে পেস্ট্রি কেকের স্বাদে অতুলনীয় নাম। চলতি বছরে ৯০-এ পড়েছে এই বেকারি কাম কনফেকশনারি এবং রেস্তোঁরাটি। বড়দিনের উৎসবে ফ্লুরিস-এর এক টুকরো কেক না খাওয়ার ইচ্ছা রাখেন এমন বাঙালির সংখ্যা বিরল।

ক্যাথলিন

ক্যাথলিন

কলকাতা শহরের বুকে কেকের আরও একটি দোকানের নাম ক্যাথলিন। দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে এখানকার তৈরি কেক মানুষের মন জয় করে নিয়েছে।

কুকিজার

কুকিজার

সম্পূর্ণভাবে কেকের একটি ফুড সেন্টার। ড্রাই ফ্রুটসে তৈরি এদের কেক বিপুলভাবে গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।

কেকস

কেকস

গত কয়েক বছরে উত্তরোত্তর সুনামের বৃদ্ধি ঘটিয়ে চলেছে কেকস।

মি-ও আমোঁরে

মি-ও আমোঁরে

মনজিনিস নামে কয়েক দশক ধরে বাঙালির কেক ও কনফেকশনারির রসনাকে তৃপ্ত করে আসার পর এখন মি-ও আমোঁরে নামে পরিচিত এটি। নাম বদালেও স্বাদ বদলায়নি এদের কেকের। সারাবছর ছাড়াও ক্রিসমাসের উৎসবে এদের তৈরি কেক বাঙালি রসনায় অন্যতম আকর্ষণের।

ফ্রেঞ্চ লোফ

ফ্রেঞ্চ লোফ

সম্প্রতি কলকাতায় বেশ কয়েকটি আউটলেট খুলেছে এরা। ড্রাই ফ্রুটসের কেক, বা রাম অ্যান্ড রেসিন কেক এদের এবারের মূল আকর্ষণ।

সুতরাং, ক্রিসমাসের আবহে কেকের বাহারি রসনা নিয়ে নেওয়ার এটাই প্রকৃত সময়। তাই দেরি না করে ঢুকে পড়ুন কলকাতা শহরের বুকে থাকা এমনই সব কেক জয়েন্টে।

English summary
Cake is one of the importent part of Christmas Celebration. Kolkata is too fond of cakes on Christmas. Even the history of eat cake in Kolkata is more than hundred years old.
For Daily Alerts

Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X
We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more