• search

কোলে নিজের সন্তান নিয়ে বিয়ে ,কারণ শুনলে চমকে উঠবেন!

Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    ভোপাল, ২০ মার্চ : ভোপালের ভীম চন্দেলকার ও মীনা যাদবের বিয়ের ঘটনা, খবর হওয়ারই মতো। তাঁদের অভিযোগ ভোপালের বেতুলে জেলা কালেক্টরেট দফতরে সরকারি কেরানিকে ঘুষ না দেওয়ায় এক বছর আগে তাঁদের বিয়ের আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়। এরপর আইনি বাঁধা টপকে একবছর বাদে কোলে নিজেদের সন্তানকে নিয়ে রবিবার ভোপালে বিয়ে সম্পন্ন করেন তাঁরা।

    প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালে তফশীলি জাতি উন্নয়ন মন্ত্রকের আওতায় থাকা এক উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ভীম ও মীনা বিয়ের আবেদন জানায় , বেতুল জেলা প্রশাসনের কাছে। যে সরকারি প্রকল্পের আওতায় তাঁদের দুজনকে ২ লাখ টাকা নগদ দেওয়া হয়।

    কোলে নিজের সন্তান নিয়ে বিয়ে ,কারণ শুনলে চমকে উঠবেন!

    প্রশাসনের তরফে গত বছর ৮ জুন তাঁদের বিয়ের দিন ঠিক করে প্রশাসন। তারপর সেইদিন কালেক্টরেট দফতরে গিয়ে মীনা ও ভীম দেখেন তাঁদের বিয়ের আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়। এবিষয়ে তাঁদের কোনও কারণ না দেখিয়েই তা খারিজ করা হয় বলে দাবি মীনা ও ভীমের।

    মীনা ও ভীমের দাবি , তাঁদের কাছ থেকে সরকারি ওই কেরানি ৩০০০ টাকা চেয়েছিলেন। যা তাঁরা দিতে পারেননি। এদিকে, প্রশাসনিক জটিলতায় বিয়ে না হওয়ায় তাঁরা সহবাস করতে শুরু করেন। পাশাপাশি তাঁদের সন্তানও জন্মায় একটি। এরপর বহু সরকারি দফতরে ঘুরে, কাঠখড় পুড়িয়ে বেতুলের কলেক্টরের পরামর্শ মতো রবিবার বিয়ে করেন তাঁরা।

    English summary
    Five-month-old Suvesh was the youngest guest at the mass marriage for physically challenged couples in Madhya Pradesh’s Betul district on Sunday.Elegantly dressed, he was there to attend the marriage of his parents Bheem Chandelkar and Meena Yadav, blissfully unaware of the ordeal the couple had to undergo to solemnised their wedding.

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more