'হুমকির ভাষা' প্রধানমন্ত্রীর মুখে বেমানান, রাষ্ট্রপতিকে চিঠি দিয়ে আর কী বললেন মনমোহন

  • Written By: Amartya Lahiri
Subscribe to Oneindia News

    প্রধানমন্ত্রী ‌নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপতির কাছে চিঠি দিয়ে অভিযোগ জানালেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং-সহ অন্যান্য কংগ্রেস নেতারা। চিঠিতে তাঁরা অভিযোগ করেছেন, নরেন্দ্র মোদী মাঝে মাঝেই কংগ্রেস নেতৃত্বের বিরুদ্ধে 'হুমকির ভাষায়' বক্তব্য রাখেন। ‌এই ভাষা প্রধানমন্ত্রীর মুখে বেমানান। কংগ্রেস নেতাদের দাবি এই নিয়ে তাঁকে সতর্ক করুন রাষ্ট্রপতি।

    হুমকির ভাষা প্রধানমন্ত্রীর মুখে বেমানান

    চিঠিতে তাঁরা কর্ণাটকের সাম্প্রতিক বিধানসভা নির্বাচনে হুবলির একচি সমাবেশে মোদীর এক ভাষণের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। ৬ মে-র ওই সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেছিলেন, '‌কংগ্রেস নেতারা, দয়া করে মন দিয়ে শুনুন। মনে রাখবেন আমার নাম মোদী। আপনারা যদি নিজেদের সীমা অতিক্রম করেন, এর জন্য আপনাদের ভুগতে হবে।'‌ কংগ্রেসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এটা দেশের প্রধানমন্ত্রীর ভাষা হতে পারে না। এ ধরনের মন্তব্য সারা দেশের পক্ষেই অপমানজনক। নরেন্দ্র মোদী ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করতে নিজের ক্ষমতার অপব্যবহার করছেন।

    তাঁরা লিখেছেন, 'কংগ্রেস নেতাদের তিনি যে ভাষায় হুমকি দিয়েছেন তার তীব্র নিন্দার যোগ্য। প্রধানমন্ত্রী ১৪০ কোটির গনতান্ত্রিক দেশের মাথা। এই ভাষা তাঁর মুখে মানায় না। প্রকাশ্যে হোক বা ঘরোয়া বৈঠকে এই ভাষা মানা যায় না। যে ভাষায় তিনি কথা বলছেন তা হুমকির ভাষা, ভয় দেখানোর ভাষা। শান্তি বিঘ্নিত করতে উস্কানি দিচ্ছেন উনি।'‌

    চিঠিতে প্রথম স্বাক্ষরকারী মনমোহন সিং। এছাড়া চিঠিতে স্বাক্ষর রয়েছে মল্লিকার্জুন খাড়গে, পি চিদম্বরম, দিগ্বিজয় সিং, আহমেদ প্যাটেল, অম্বিকা সোনি সহ অনেক কংগ্রেস নেতার। এ সম্পর্কে মনমোহন সিং বলেন, '‌ এর আগে দেশের কোনও প্রধানমন্ত্রী এ ধরনের নিম্নমানের ভাষা প্রয়োগ করে কোনও রাজনৈতিক দলকে অপমান করেননি। মোদি যে ধরনের ভাষা ব্যবহার করছে তাতে নিজেই নিজের ভাবমূর্তির ক্ষতি করছেন তিনি।'‌

    এর আগে মনমোহন 'জন আক্রোশ মিছিল' থেকে বলেছিলেন, 'মোদি সরকার যেভাবে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলিকে শেষ করে দিতে চাইছে তাতে আজ দেশের গনতন্ত্র বিপন্ন'।

    English summary
    Manmohan Singh write to President against Modi's 'Menacing language'.

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more