• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts
Oneindia App Download

যুদ্ধের প্রভাব ভারতের অর্থনীতিতে, গত বছরের তুলনায় কমল অর্থনৈতিক বৃদ্ধি

Google Oneindia Bengali News

ইউক্রেনের যুদ্ধ সারা বিশ্বের জিডিপিক'র উপর প্রভাব ফেলেছে। স্বাভাবিকভাবে তা ভারতেও প্রভাব ফেলছে। কারণ এই বছরে ভারতের ডিডিপি বাড়লেও তা মাত্র ৬.৪ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। গত বছরের তুলনায় যা অনেকটাই ধীর গতি সম্পন্ন বলে জানা যাচ্ছে, কারণ গত বছরের তা ছিল ৮.৮ শতাংশ। এমনটাই বলা হয়েছে রাষ্ট্রসংঘের এক প্রতিবেদনে। এর ফলে ব্যক্তিগত খরচ কমবে এবং বিনিয়োগ কমবে দেশে।

 যুদ্ধের প্রভাব ভারতের অর্থনীতিতে, গত বছরের তুলনায় কমল অর্থনৈতিক বৃদ্ধি

রাষ্ট্রসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিষয়ক বিভাগ বুধবার প্রকাশিত তার বিশ্ব অর্থনৈতিক পরিস্থিতি এবং সম্ভাবনা (ডব্লিউইএসপি) প্রতিবেদনে বলেছে যে ইউক্রেনের যুদ্ধ মহামারি থেকে ভঙ্গুর অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধার করতে বাধা দিয়েছে। ইউরোপে তা একটি বিধ্বংসী মানবিক সংকটের সূত্রপাত করেছে, খাদ্য ও পণ্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশ্বব্যাপী মুদ্রাস্ফীতি হয়েছে।

বৈশ্বিক অর্থনীতি এখন ২০২২ সালে মাত্র ৩.১ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে, যা ২০২২ সালের জানুয়ারিতে প্রকাশিত ৪.০ শতাংশ বৃদ্ধির পূর্বাভাসের থেকে কম। ২০২২ সালে বৈশ্বিক মুদ্রাস্ফীতি ৬.৭ শতাংশে বাড়বে বলে অনুমান করা হয়েছে, যা এই সময়ে গড়ে ২.৯ শতাংশের দ্বিগুণ।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে ইউক্রেনে যুদ্ধের পটভূমিতে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আর্থিক অবস্থা খারাপ হওয়ার কারণে পণ্যের উচ্চ মূল্য এবং সম্ভাব্য নেতিবাচক প্রভাবের কারণে সাম্প্রতিক মাসগুলিতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশের অবস্থা খারাপ হয়েছে।

আঞ্চলিক অর্থনৈতিক উৎপাদন ২০২২ সালে ৫.৫ শতাংশ প্রসারিত হবে বলে অনুমান করা হয়েছে, যা জানুয়ারিতে প্রকাশিত পূর্বাভাসের চেয়ে ০.৪ শতাংশ পয়েন্ট কম। ভারত, এই অঞ্চলের বৃহত্তম অর্থনীতি। সেখানে ২০২২ সালে অর্থনৈতিক উৎপাদন ৬.৪ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে, ২০২১ সালে সালের বৃদ্ধির চেয়ে যা কম, কারণ উচ্চ মুদ্রাস্ফীতির চাপ এবং শ্রমবাজারের অসম পুনরুদ্ধার ব্যক্তিগত খরচ এবং বিনিয়োগকে কমিয়ে দেবে।

২০২৩ অর্থবছরের জন্য, ভারতের বৃদ্ধি ৬ শতাংশ হওয়ার পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। গ্লোবাল ইকোনমিক মনিটরিং শাখা, অর্থনৈতিক বিশ্লেষণ ও নীতি বিভাগ বিশেষজ্ঞ হামিদ রশিদ রাষ্ট্রসংঘ সদর দফতরে সাংবাদিকদের বলেন, পূর্ব এশিয়া ও দক্ষিণ বাদে বিশ্বের প্রায় সব অঞ্চলই উচ্চ মুদ্রাস্ফীতির দ্বারা প্রভাবিত।

তিনি বলেছিলেন যে ভারত সেই অর্থে কিছুটা ভাল অবস্থানে রয়েছে কারণ এটিকে লাতিন আমেরিকার অন্যান্য দেশের তুলনায় আর্থিক খারাপ অবস্থা সহ্য করতে হয়নি। ব্রাজিল বারবার সুদের হার বাড়িয়েছে।আমরা আশা করি যে ভারতে পরের বছর এবং আগামী দুই বছরে শক্তিশালী হবে অর্থনীতি কিন্তু আবারও আমরা বাহ্যিক চ্যানেলগুলি থেকে আসা নেতিবাচক ঝুঁকিকে পুরোপুরি ছাড় দিতে পারি না। তাই সেই ঝুঁকি এখনও আছে বলে জানান তিনি।

প্রতিবেদনে যোগ করা হয়েছে যে উচ্চ মূল্য এবং সার সহ কৃষি উপকরণের ঘাটতি এই অঞ্চলে অব্যাহত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে, যা বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান এবং শ্রীলঙ্কার কৃষি খাতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এটি সম্ভবত দুর্বল ফসলের ফলস্বরূপ এবং নিকটবর্তী মেয়াদে খাদ্যের দামের উপর আরও ঊর্ধ্বমুখী চাপ সৃষ্টি করবে।

এটি বলেছে যে উচ্চ বিদ্যুতের দামের পাশাপাশি, খাদ্যের উচ্চ মূল্য সম্ভবত অঞ্চল জুড়ে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা বাড়িয়ে তুলবে। এই অঞ্চলে মূল্যস্ফীতি ২০২১ সালে ৮.৯ শতাংশ থেকে ২০২২ সালে ৯.৫ শতাংশে উঠে আসবে।

মহামারীটি অনেক দেশকে বৃহৎ রাজস্ব ঘাটতিতে ফেলে দিয়েছে। শ্রীলঙ্কা বর্তমানে বিশাল ঋণ সংকটের সম্মুখীন এবং তার অর্থনীতিকে সংকট থেকে বের করে আনতে একটি নতুন আইএমএফ-সমর্থিত কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা করছে, এটি বলেছে।

রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, ইউক্রেনের যুদ্ধ তার সমস্ত মাত্রায় একটি সঙ্কট তৈরি করছে যা বিশ্বব্যাপী জ্বালানি বাজারকেও ধ্বংস করছে, আর্থিক ব্যবস্থাকে ব্যাহত করছে এবং উন্নয়নশীল বিশ্বের জন্য চরম দুর্বলতা বাড়িয়ে তুলছে।

তিনি বলেন, খোলা বাজারে খাদ্য ও শক্তির স্থিতিশীল প্রবাহ নিশ্চিত করার জন্য আমাদের দ্রুত এবং নিষ্পত্তিমূলক পদক্ষেপের প্রয়োজন, রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার মাধ্যমে, যাদের প্রয়োজন তাদের জন্য উদ্বৃত্ত ও মজুদ খাবার দিতে হবে। এতে খাদ্যের মূল্য বৃদ্ধির সমাধান হতে পারে।

English summary
indias economy effected for the war between russia and ukraine
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X