১২ বছরের কম বয়সী মেয়ের ধর্ষণ হলে সাজা মৃত্যুদণ্ড, সাহসী আইন আনল দেশের এই রাজ্যটি

  • Posted By:
Subscribe to Oneindia News

১২ বছর বয়সের নীচে কোনও মেয়েকে ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। বিজেপি শাসিত মধ্যপ্রদেশে শিবরাজ সিং চৌহান সরকার এই বিলটি পাশ করেছে বিধানসভায়। দণ্ডবিধি (মদ্য়প্রদেশ সংশোধন) বিধেয়ক ২০১৭ নামের এই বিল কেন্দ্রের কাছে পাঠাবে সেরাজ্য়ের সরকার। এই আইনের পক্ষে মত চাই রাষ্ট্রপতিরও।

১২ বছরের কম বয়সী মেয়ের ধর্ষণ হলে সাজা মৃত্যুদণ্ড, সাহসী আইন আনল দেশের এই রাজ্যটি

[আরও পড়ুন:ধর্ষণ নিয়ে হাড়হিম করা রিপোর্ট এনসিআরবি-র, পরিচিতদের দিকেই সন্দেহ হতে বাধ্য]

উল্লেখ্য, এবসিআরবি-র সাম্প্রতিক রিপোর্টে বলা হয়েছে মধ্যপ্রদেশে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। বিলে স্পষ্ট বলা হয়েছে, ১২ বছরের মেয়ে বা তার চেয়ে কম বয়সী মেয়েদের ধর্ষণ করা হলে, তার সাজা হবে মৃত্যুদণ্ড। , অথবা ১৪ বছরের জেল বা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। এছাড়াও আইনে বলা হয়েছে কোনও ১২ বছরের মেয়ে বা তার কম বয়সী মেয়েকে গণধর্ষণ করা হলে তার নূন্যতম সাজা ২০ বছরের কারাবাস হবে।

শুধু তাই নয়, বিলে , কোনও মহিলাকে ধাওয়া করে হেনস্থা, বিয়ের আগে সঙ্গম, তথা কোনও মহিলার পোশাক টেনে হেনস্থার বিষয়েও সাজা ঘোষণার কথা বলা হয়েছে। এবিষয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে , মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান জানিয়েছেন বার বার ধাওয়া করা বা পিছু নেওয়ার মত ঘটনাও একজনের বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারার মধ্যে পড়তে চলেছে।

[আরও পড়ুন:ঝাড়খণ্ডের বুকেও জিডি বিড়লার ছায়া, অভিযুক্ত শিক্ষকের বয়ান শুনলে মাথা গরম হবে ]

English summary
The Madhya Pradesh assembly on Monday unanimously passed a bill that will see rapists of girls 12 years or below being hanged till death. The move comes after the Shivraj Singh Chouhan Cabinet approved the bill last week. Called Dand Vidhi (Madhya Pradesh Sanshodhan) Vidheyak, 2017, the bill will be sent to the Centre and will need the assent of the President to become a law.

Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more