• search

দীর্ঘ ৭ দশক পর দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী থেকে সরল মার্কিন সেনা

Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    শেষ হল গত ৭০ বছরের এক অধ্যায়। শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিওল থেকে প্রত্যাহার করা হল মার্কিন সেনা। রাজধানীর ৭০ কিলোমিটার দক্ষিণে ক্যাম্প হামফ্রেতে মার্কিন সেনার নতুন হেডকোয়ার্টার কাজ করা শুরু করল।

    দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী থেকে সরল মার্কিন সেনা

    দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষে সিওলের সেন্ট্রাল ইয়ংসানে ঘাঁটি গেঁড়েছিল মার্কিন সৈন্য সেই থেকে দক্ষিণ কোরিয়া আমেরিকা মিত্রতার প্রতীক ছিল ইয়ংসান গ্যারিসন। দক্ষিণ কোরিয় সেনাদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে তারা রুখে দিয়েছিল উত্তর কোরিয়াকে। কিন্তু একেবারে রাঝধানীর কেন্দ্রে এতখানি জায়গা জুড়ে একটি বিদেশী রাষ্ট্রের ঘাঁটি থাকা নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়দের মনে অসন্তোষ ছিল।

    নয়া মার্কিন সেনা সদরদপ্তর, ক্যাম্প হামফ্রে অবশ্য দেশের বাইরে আমেরিকার সবচেয়ে বড় সেনা ঘাঁটি। ১১ বিলিয়ন ডলার খরচ করে ৩৫১০ একর জমির উপর গড়ে উঠেছে এই সেনা ছাউনি। কোরিয় উপদ্বীপে এখন শান্তি প্রক্রিয়া চলছে। এর মধ্যেই মার্কিন সেনা ঘাঁটি সরানো নিয়ে বেশ হইচই পড়ে গিয়েছে বিশ্বে।

    অবশ্য শান্তি প্রক্রিয়ার সঙ্গে মার্কিন ঘাঁটি সরানোর কোনও সম্পর্ক নেই। অবশ্য এর ফলে মার্কিন সেনা সদর দপ্তর উত্তর কোরিয় বন্দুকের থেকে কিছুটা দূরে সরল ঠিকই। কিন্তু এই স্তানান্তর করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল প্রায় এক দশক আগে। মাঝে তহবিলের অভাবে অনেকদিন নির্মাণ কাজ বন্ধও ছিল। অবশেষে ৭০ বছর পর ভেঙে গেল ইয়ংসান গ্যারিসন।

    English summary
    The United States formally ended seven decades of military presence in South Korea’s capital on Friday with the opening of a new headquarters at Camp Humphreys, about 70 km south of Seoul.

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more