Tap to Read ➤

চাঁদের মাটিতে অক্সিজেন! এবার কি শুরু হবে বসত

চাঁদের মাটিতে অক্সিজেন ও জ্বালানি তৈরি করা যাচ্ছে সহজেই, চাঞ্চল্যকর দাবি গবেষকদের
চিনের নানজিং ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক চাঁদের মাটি নিয়ে গবেষণা করেছেন।
চাঁদের মাটি অক্সিজেন ও জ্বালানি বানানোর পক্ষে আদর্শ বলে দাবি গবেষণায়।
চাঁদে গেলে অক্সিজেনের ভাঁড়ারে টান পড়ার ঝুঁকি থাকবে না আর। গড়ে উঠবে বসতও।
চাঁদের পাথুরে মাটিতে এখনও অনেক যৌগ সক্রিয় অবস্থায় রয়েছে। রিপোর্টে দাবি।
চাঁদের মাটিতে সক্রিয় যৌগ থেকে সহজেই কার্বন ডাই অক্সাইড, অক্সিজেন এবং জ্বালানি তৈরি।
চাঁদের মাটিতে প্রচুর পরিমাণে হাইড্রোজেন ও মিথেন গ্যাসও রয়েছে।
চাঁদের মাটিতে বিভিন্ন ধরনের বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতিও চালানো সম্ভব হবে বলে দাবি।
চিনও চাইছে আমেরিকার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চাঁদে অভিযানে নামতে।
চিনের নানজিং বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইংফ্যাং ইয়াওয়ের নেতৃত্বে গবেষণা।
চাঁদ থেকে নমুনা হিসেবে সংগ্রহ করা মাটি ইতিমধ্যে পরীক্ষা করা হয়েছে।
চাঁদের মাটি অত্যন্ত উন্নতমানের অনুঘটক, সহজেই কার্বন ডাই অক্সাইড ও জল উৎপন্ন হয়।
অক্সিজেন ও হাইড্রোজেনও পাওয়া যায় আর বাইপ্রোডাক্ট হিসেবে মাটিতে রয়েছে মিথেন গ্যাসও।
চাঁদের মাটি সভ্যতা গড়ে তোলার উপযোগী। প্রয়োজনীয় অক্সিজেন বা জ্বালানি রয়েছে।
গবেষণায় ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপি এবং এক্স-রে বিচ্ছুরণ মতো প্রক্রিয়া ব্যবহার।
চাঁদের মাটিতে বিভিন্ন অনুঘটককে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে দুই প্রক্রিয়ায়।
চাঁদের মাটিতে প্রচুর পরিমাণে লোহা ও ম্যাগনেশিয়ামের মতো উন্নতমানের যৌগ রয়েছে।
পৃথিবীতে গাছ সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়া অক্সিজেন ও জল উৎপাদন করে, চাঁদে তেমন মাটি।
অক্সিজেন, জ্বালানি এবং জলের অফুরান জোগানে চাঁদে বসত গড়ে উঠতে পারে।
চাঁদের পাথুরে মাটিতে পৃথিবীর মতো শাক-সবজি ফলানো সম্ভব নয় বলে দাবি গবেষকদের।