খড়দহে ১ সপ্তাহে ডেঙ্গিতে মৃত ২, আতঙ্কে এলাকাবাসী, পুরসভার বিরুদ্ধে অবহেলার অভিযোগ

  • Posted By: Dibyendu
Subscribe to Oneindia News

খড়দহে ডেঙ্গিতে প্রাক্তন ফুটবলারের মৃত্যুর পরে আতঙ্কে এলাকাবাসী। হাসপাতালের বিরুদ্ধে অবহেলার অভিযোগ পরিবারের। অন্যদিকে পুরসভার বিরুদ্ধে কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগ এলাকাবাসীর।

খড়দহে ১ সপ্তাহে ডেঙ্গিতে মৃত ২, আতঙ্কে এলাকাবাসী

শনিবার মৃত্যু হয় কলকাতা ময়দানের পরিচিত ফুটবলার খড়দহের রবীন্দ্র পল্লির বাসিন্দা ভাস্কর ঘোষের। এদিনে ১ সপ্তাহে খড়দহে ডেঙ্গিতে মৃতের সংখ্যা দুই। গত সপ্তাহে একই পাড়ার বাসিন্দা অভ্রদীপ কুণ্ডু নামে অপর এক যুবকের মৃত্যু হয় ডেঙ্গিতে।

ভাস্কর ঘোষ জ্বরে আক্রান্ত হয়ে দু সপ্তাহ ধরে সাগর দত্ত হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। রক্তে ডেঙ্গির জীবাণুও পাওয়া গিয়েছিল। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় শনিবার সকালেই তাঁকে বেলঘরিয়ার বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। অন্যদিকে তাঁর স্ত্রীও ডেঙ্গিতে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন। পরিবারের অভিযোগ হাসপাতালে বিরুদ্ধে। সাগর দত্ত হাসপাতাল যদি আরও আগে বলে দিত সেখানে চিকিৎসা হবে না, তাহলে তাঁরা অন্য জায়গায় নিয়ে যেতেন বলে জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা। তাঁদের আরও অভিযোগ, ভোর রাতে রোগীর সংকট জনক অবস্থার কথা জানানো হয়।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, এলাকায় ঘরে ঘরে জ্বরের প্রকোপ। এলাকায় জমা জল ও ময়লা থাকলেও পুরসভা কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ স্থানীয় বাসিন্দাদের।

এই পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যভবন থেকে শুরু করে উত্তর ২৪ পরগনার বিভিন্ন মহকুমার স্বাস্থ্য আধিকারিকদের ডেঙ্গির প্রকোপ কমা নিয়ে দাবি ঘিরেই প্রশ্ন জাগছে সাধারণের মধ্যে। স্বাস্থ্য ভবন সূত্রের দাবি, উত্তর ২৪ পরগনার ডেঙ্গি পরিস্থিতি আগের থেকে উন্নতি হয়েছে। পুরপ্রধানরা দাবি করছেন, স্থানীয় হাসপাতালগুলিতে ডেঙ্গির রোগী থাকলেও, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে। যদিও এই মৃত্যুর পরে সরকার, সরকারি দলের ডেঙ্গি-দাবি নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন সাধারণ মানুষ।

English summary
There are two deaths due to dengi in one week in Khardah, North 24 Parganas. Local people blames Municipality's in-activeness.

Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more