• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

    (ছবি) বাংলায় সন্ত্রাস হামলার সতর্কতা: নির্দিষ্ট একটি রাজনৈতিক দলের মদত পাচ্ছে জঙ্গিরা, দাবি মমতার

    নয়াদিল্লি, ১১ আগস্ট : স্বাধীনতা দিবসের আগে কিছু সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী রাজ্যের শান্তি ভঙ্গ করতে চাইছে তার বিস্তারিত তথ্য যে তিনি ইতিমধ্যেই গোয়েন্দাসূত্রে পেয়েছেন সেকথা সোমবারই জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

    এবার তাঁর দাবি একটি রাজনৈতিক দল ওই জঙ্গি গোষ্ঠীকে মদত দিচ্ছে। বিজেপি নাকি আবার শক্তি সঞ্চয় করতে উঠে পড়ে লাগা বামে, এক্ষেত্রে ঠিক কাকে মমতা নিশানা করলেন সে বিষয়ে স্পষ্ট না করে কিন্তু ধোঁয়াশা রেখে দিলেন।

    দুঃস্বপ্নের স্মৃতি ফিরল : পশ্চিম মেদিনীপুরে কলেজের মধ্যেই পিটিয়ে ছাত্র খুন

    স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের আগে গোয়েন্দা আধিকারিকরা দেশজুড়ে সতর্কতা জারি করেছেন। পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রে বিমানবন্দর, রেলওয়ে স্টেশন, বেশ কিছু গুরুত্বপূণ ও জনবহুল এলাকায় বিশেষভাবে সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

    'সিপিএম মহিলারা নিজেদের ব্লাউজ ছিঁড়ে শ্লীলতাহানির অভিযোগ তোলে', তৃণমূল নেতার মন্তব্যে বিতর্কের ঝড়

    মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, গত শনিবার মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জ থেকে প্রায় ১০০ কিলোগ্রাম বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে। সিআইডি ঘটনার তদন্ত করছে। এই প্রসঙ্গে মন্তব্য করতে গিয়েই তিনি বলেন, একটি রাজনৈতিক দল রাজ্যের শান্তি ভঙ্গ করার জন্য জঙ্গিদের মদত দিচ্ছে।

    একটি ঘাসে দু'টি ফুল, দুমুখো তৃণমূল!

    ইচ্ছাকৃতভাবেই কী নজর ঘোরানোর জন্য নাম না করে ধোঁয়াশা রেখে জঙ্গিদের মদত দেওয়ার অভিযোগ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের ঘাড়ে চাপাচ্ছেন মমতা? কারণ তিনিও জানেন খাগড়াগড় কাণ্ডে যেভাবে তৃণমূলের সঙ্গে জামাত জঙ্গিদের যোগের প্রমাণ মিলেছে তাতে দায় ঝেড়ে ফেলার কোনও জায়গা নেই।

    শেক্সপিয়ার-রবি ঠাকুরে একটু নয় গুলিয়ে গেল, ক্ষতি কী? উনি তো মুখ্যমন্ত্রী!

    যদিও রাজনীতি হল অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগের খেলা। বর্ধমান কাণ্ডে তৃণমূল যোগ মেলার আগে থেকেই জঙ্গিদের মদত দেওয়ার জন্য শাসক দলের দিকে আঙুল তুলেছিল কংগ্রেস-বাম-বিজেপি। এই 'সততার প্রতীক' শাসকদলের জমনায় গুণ্ডারাজের পাশাপাশি বাংলা জঙ্গিদের স্বাধীনভূমি হয়ে গিয়েছে বলেও অভিযোগ তুলেছিল বিজেপি।

    বর্ধমান কাণ্ডে কীভাবে উঠে এসেছিল জামাত-তৃণমূল যোগ, দেখুন ছবিতে।

    অবৈধ মাদ্রাসা

    অবৈধ মাদ্রাসা

    বর্ধমান-কাণ্ড: অবৈধ মাদ্রাসায় বসেই দেশবিরোধী কার্যকলাপের ছক কষেছিল জামাত জঙ্গিরা। গোয়েন্দারা বলছেন, অবৈধ অর্থ ঢুকছে দেশে। তার ফলে গজিয়ে উঠছে বেআইনি মাদ্রাসা। বর্ধমান হিমশৈলের চূড়া মাত্র।

    এই সম্পর্কে বিস্তারিত পড়তে ক্লিক করুন এখানে

    বর্ধমান বিস্ফোরণ কাণ্ডের গোপন পরিকল্পনা

    বর্ধমান বিস্ফোরণ কাণ্ডের গোপন পরিকল্পনা

    বর্ধমান বিস্ফোরণ কাণ্ডের গোপন পরিকল্পনা ফাঁস হয়েছিল তদন্তে। জঙ্গিরা যে বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের একত্রীকরণ চেয়েছিল সেই তথ্যই উঠে এসেছিল তদন্তে।

    এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    সন্ত্রাস মডিউলের পরিবর্তন

    সন্ত্রাস মডিউলের পরিবর্তন

    পশ্চিমবঙ্গে রাজনৈতিক যোগাযোগ ব্যবহার করেছিল জামাত-এ-ইসলামি। আইবি এবং এনআইএ -র অনুমান প্রশাসন তাদের পরিকল্পনা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল ছিল। সঙ্কেত ছিল কিছু শীর্ষ নেতা স্থানীয় নেতাদের জেএমবি-র 'অপারেশন'-এ মদত দেওয়ার জন্য উপদেশ দিয়েছিল।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    সরকারি আধিকারিকদের মদত

    সরকারি আধিকারিকদের মদত

    সরকারি জমিতে এই বেআইনি মাদ্রাসা তৈরি করার জন্য স্থানীয় সরকারি আধিকারিক এবং জেএমবি সদস্যদের মধ্যে লেনদেনও হয়েছে বলে সূত্রের তরফে জানানো হয়েছে। গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন গ্রাম পঞ্চায়েত এবং এলাকার কাজে ঢোকার চেষ্টাও চালিয়েছিল জেএমবি। তাদের কাছে কাছে এমন বহু মিথ্যা নথি ছিল যা দিয়ে প্রমাণ হয় তারা ভারতীয়।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে রিপোর্ট

    স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে রিপোর্ট

    বর্ধমান-কাণ্ডে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ বিন্দুমাত্র সহায়তা করেনি এনআইএ-কে। তাই তারা পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করতে না পেরে এখন দর্শক হয়ে বসে আছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের কাছে রিপোর্ট দিয়ে এই অভিযোগ জানিয়েছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের সংশ্লিষ্ট অফিসাররা।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    অগ্নিশর্মা মুখ্যমন্ত্রী

    অগ্নিশর্মা মুখ্যমন্ত্রী

    বর্ধমান কাণ্ড: 'অযথা রাজ্যের বিষয়ে নাক গলাচ্ছে কেন্দ্র', তদন্তভার এনআইএ-র হাতে যেতেই এমনটাই অভিযোগ তোলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেন তিনি চাইছিলেন না তদন্তভার এনআইএর হাতে যাক সে নিয়েও উঠেছে প্রশ্ন।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    আইইডি উদ্ধার

    আইইডি উদ্ধার

    যে বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে রাজ্য পুলিশ একটা কিছু খুঁজে না পেয়ে বাড়ি সিল করে দিল। পরে সেই বাড়িতেই অভিযান চালিয়ে ৪০টি আইইডি উদ্ধার করল এনআইএ ও এনএসজি।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    মাস্টারমাইন্ড

    মাস্টারমাইন্ড

    বর্ধমান বিস্ফোরণ কাণ্ডের অভিযুক্ত মাস্টারমাইন্ড সাদিজ ওরফে শেখ রেহমাতুল্লাহকে কলকাতা থেকে গ্রেফতার করে রাজ্য পুলিশকিন্তু কলকাতায় সাজিদের উপস্থিতি এই জল্পনা উস্কে দিচ্ছে তবে কী নিজেদের অপারেশন কলকাতা থেকেই এগিয়ে নিয়ে যেতে চাইছিল জেএমবি।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    পনস্টেবল যোগ

    পনস্টেবল যোগ

    বর্ধমান কাণ্ডের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য আমজাদকে দিল্লিতে আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ ওঠে এক এসএসবি কনস্টেবলের বিরুদ্ধে।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    সারদা কাণ্ড-বর্ধমান বিস্ফোরণ যোগ

    সারদা কাণ্ড-বর্ধমান বিস্ফোরণ যোগ

    বর্ধমান বিস্ফোরণ কান্ডের সঙ্গে সারদা কেলেঙ্কারির যোগ আছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত শুরু করেছিল এনআইএ দল। অবশেষে সেই সম্ভাবনারই চূড়ান্ত প্রমাণ এনআইএ-র হাতে এসেছে বলে তদন্তকারি এক অফিসার একথা ওয়ানইন্ডিয়াকে জানিয়েছেন। ওই অফিসারের কথায়, খাগড়াগড় বিস্ফোরণকাণ্ডে মৃত শাকিল আহমেদ ওরফে স্বপন মণ্ডল সারদা তহবিলের টাকা নিয়েছিল যা পশ্চিমবঙ্গে কাজের জন্য লাগানো হয়েছিল।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    স্থানীয় নেতাদের মদত

    স্থানীয় নেতাদের মদত

    বর্ধমান বিস্ফোরণ কাণ্ডে ধৃত রেজাউল করিমের কাছ থেকে রাজনৈতিক যোগ থেকে শুরু করে প্রশিক্ষণ শিবির পর্যন্ত নানা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পায় এনআইএ। জামাত-উল-মুজাহিদিন বাংলাদেশ বা জেএমবি-র গুরুত্বপূর্ণ সদস্য রেজাউল। রেজাউলকে জেরা করে চাঞ্চল্যপূর্ণ তথ্য জানতে পারে এনআইএ। রেজাউল জানায়, স্থানীয় নেতাদের সাহায্য ছাড়া পশ্চিমবঙ্গে এতগুলি মডিউল গড়ে তোলা সম্ভব ছিল না।

    বোমা তৈরিতে ব্যবহৃত কাঁচামাল স্থানীয় বাজার থেকেই পেয়েছে তারা স্থানীয় নেতাদের সাহায্যে।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    তৃণমূল নেতার বাড়িতে আশ্রিত জঙ্গিরা

    তৃণমূল নেতার বাড়িতে আশ্রিত জঙ্গিরা

    যারা বর্ধমানে বসে বোমা বানাচ্ছিল, তাদের সঙ্গে 'মাল্টিপল লিঙ্ক' বা বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের যোগাযোগ ছিল। ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন, আল জিহাদ ও সিমি-র সঙ্গে তারা সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিল। বাংলাদেশের মৌলবাদী সংগঠন জামায়াতে ইসলামির সঙ্গেও বিস্ফোরণে মৃত শামিম আহমেদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল।

    যে ভাড়াবাড়িতে বিস্ফোরণ ঘটেছে, তার মালিক তৃণমূল কংগ্রেসের এক নেতা নুরুল হাসান চৌধুরী।

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    ঘুমন্ত পুলিশ

    ঘুমন্ত পুলিশ

    বর্ধমান বিস্ফোরণ কাণ্ডের পর বিভিন্ন মহল থেকে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে পুলিশ নাকে তেল দিয়ে ঘুমোচ্ছিল কেন

    এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন এখানে

    English summary
    Terror alert in West Bengal, Mamata says group backed by political party
    For Daily Alerts

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    Notification Settings X
    Time Settings
    Done
    Clear Notification X
    Do you want to clear all the notifications from your inbox?
    Settings X
    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more