রাজভবনের এক্তিয়ার বিতর্কে মমতা সরকারের ওপর 'ক্ষিপ্ত' রাজ্যপাল

  • Posted By: Dibyendu
Subscribe to Oneindia News

এবার কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি বন্ধ করুন। বাথরুমে গিয়ে ময়লা পরিষ্কার করুন। আয়নায় নিজের মুখ দেখুন। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের মন্তব্য নিয়ে এমনই প্রতিক্রিয়া রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর।

রাজভবনের এক্তিয়ার বিতর্কে মমতা সরকারের ওপর 'ক্ষিপ্ত' রাজ্যপাল

[আরও পড়ুন:তাজমহলকে রক্ষা করতে ভিশন ডকুমেন্ট! যোগী সরকারের জবাব তলব সর্বোচ্চ আদালতের]

আরও বাড়ল রাজ্য-রাজ্যপাল সংঘাত। ৩১ জানুয়ারি মালদার ডিভিশনাল কমিশনারকে একটি চিঠি পাঠান রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর অতিরিক্ত মুখ্যসচিব। চিঠিতে তিনি বলেন, রাজ্যপালের ইচ্ছা, সার্কিট হাউসের বৈঠকে মুর্শিদাবাদের আইজি উপস্থিত থাকুন। বৈঠকে কী কী নিয়ে আলোচনা হবে, তারও উল্লেখ করা হয় রাজ্যপালের অতিরিক্ত মুখ্যসচিবের চিঠিতে। তালিকায় রাজ্য ও কেন্দ্রের উন্নয়নমূলক প্রকল্প ছাড়াও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উন্নয়নমূলক কর্মসূচিও ছিল। ছিল সীমান্তবর্তী-সহ অন্য জেলার আইনশৃঙ্খলার বিষয়ও।

এই চিঠিকে ঘিরে বিতর্ক ছড়ায়। নবান্নকে এড়িয়ে রাজ্যপাল কীভাবে জেলার পুলিশ প্রশাসনের বৈঠক ডাকলেন তা নিয়ে প্রশ্ন তোলে তৃণমূল। তৃণমূলের মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বিষয়টিকে রাজ্যপালকে সামনে রেখে কেন্দ্রের নীতিকে বাস্তবায়িত করার চেষ্টা বলে অভিযোগ করেছিলেন। গণতান্ত্রিক মোড়কে বিষয়টি অসাংবিধানিক বলেও অভিযোগ করেছিলেন তিনি। রাজ্যপালকে বিকল্প মুখ্যমন্ত্রী করে চালানোর চেষ্টা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছিলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার এক অনুষ্ঠানে রাজ্যপালের কাছে তাঁর বক্তব্য জানতে চাওয়া হয়। এই সময় রাজ্যপালের ভঙ্গিমা ছিল যথেষ্টই ক্ষিপ্ত। তিনি বলেন, এবার কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি বন্ধ করুন। বাথরুমে গিয়ে ময়লা পরিষ্কার করে আয়নায় নিজের মুখ দেখুন।

এদিকে, বিষয়টি নিয়ে এদিন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং-এর সঙ্গে দেখা করেন তৃণমূল সাংসদরা। এক্তিয়ারের বাইরে গিয়ে রাজ্যপাল রাজ্যের বিষয়ে হস্তক্ষেপ করছেন বলেও অভিযোগ করেছেন তৃণমূল সাংসদরা।

[আরও পড়ুন:দুর্নীতির মামলায় কারাদণ্ড বাংলাদেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর]

English summary
Governor Kesharinath Tripathi angry over the controversial letter send to divitional commissioner of Malda

Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more