• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

করোনা ভাইরাস: বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ায় টেস্টিং কম হচ্ছে বলেই কি সংক্রমণের আসল মাত্রা বোঝা যাচ্ছেনা?

  • By BBC News বাংলা

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোতে টের্স্টিং অনেক কম হচ্ছে
Getty Images
বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোতে টের্স্টিং অনেক কম হচ্ছে

ভারতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে, কিন্তু সে তুলনায় প্রতিবেশী দেশগুলোর সংক্রমণের হার বেশ কম।

কারণটা কী?

জুন মাস থেকেই ভারতে ভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ছে - মোটামুটি যে সময়টায় দেশটিতে কঠোর লকডাউন তুলে নেয়া হয়েছিল।

ভারতে জনসংখ্যা ১৩০ কোটি - তাই দেশটিতে মোট সংক্রণমণের সংখ্যাটাও বড়। তাতে বিস্ময়ের কিছু নেই।

কিন্তু দেশটিতে সংক্রমণের হার বাড়ছে ব্যাপকভাবে এবং উদ্বেগজনক হারে।

কিন্তু দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশে মে এবং জুন মাসে সংক্রমণের সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌছানোর পর এখন আক্রন্তের সংখ্যা কমে আসছে।

দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশে সংক্রমণের চিত্র
BBC
দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশে সংক্রমণের চিত্র

বাংলাদেশের চিত্র কী?

বাংলাদেশে দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছায় জুন মাসের মাঝামাঝি।

জুলাই মাসের শেষ দিক থেকে তা কমে আসছে।

পাকিস্তানে জুন মাসে করোনাভাইরাস সংক্রমণ সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছেছিল। তখন প্রতিদিন ৬ হাজার করে নতুন সংক্রমণ নিশ্চিত হচ্ছিল।

কিন্তু সেপ্টেম্বর মাসে সে সংখ্যা কমে দৈনিক কয়েকশ'তে নেমে এসেছে। সেখানে পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর স্কুলও খুলেছে।

নেপালে সার্বিকভাবে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যা কম ছিল। তবে তা শীর্ষ চূড়ায় পৌঁছেছিল জুন মাসে। তার পর তা কমছিল, কিন্তু এখন আবার বাড়ছে।

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোতে টের্স্টিং অনেক কম হচ্ছে
BBC
বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোতে টের্স্টিং অনেক কম হচ্ছে

আফগানিস্তানে দৈনিক সংক্রমণ এখন খুবই কমে গেছে। তবে দেশটির সরকারি পরিসংখ্যানের নির্ভরযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন আছে।

শ্রীলংকায়ও সংক্রমণ খুবই কম। এপ্রিল থেকে এখানে সংক্রমণে কয়েক দফায় উর্ধগতি দেখা গেছে কিন্তু সংখ্যার দিক থেকে তা অপেক্ষাকৃত কম।

দেশটিতে কড়া কোয়ারেন্টিন ও লকডাউন, এবং কন্ট্যাক্ট ট্রেসিং করা হয়েছে।

শ্রীলংকায় কঠোর কোয়ারেন্টিন, টেস্টিং, ও কনট্যাক্ট ট্রেসিং করা হয়েছে
Getty Images
শ্রীলংকায় কঠোর কোয়ারেন্টিন, টেস্টিং, ও কনট্যাক্ট ট্রেসিং করা হয়েছে

ভারত এখন টেস্টিংএর সংখ্যা ব্যাপকভাবে বাড়িয়েছে। ২১শে আগস্ট সেখানে একদিনে ১০ লক্ষ টেস্ট করা হয়েছিল।

ভাইরোলজিস্ট ড. রশিদ জামিল বলছেন, জনসংখ্যার অনুপাতে হিসেবে এটা তেমন বড় সংখ্যা নয়, তবে মিলিয়নপ্রতি টেস্টের সংখ্যা্র দিক থেকেও এটা কম।

ভারতে এ পর্যন্ত ৬ কোটি টেস্ট করা হয়েছে। পাকিস্তানে করা হয়েছে ত্রিশ লক্ষ।

কিন্তু এই দেশগুলোতে অন্য অনেক দেশের তুলনায় টেস্টিং করা হয়েছে অনেক কম।

পাকিস্তান ও বাংলাদেশে টেস্টিংএর মাত্রা কমে গেছে। তা না হলে এটা করোনা পজিটিভ কেসের সংখ্যার ওপর একটা প্রভাব ফেলতো।

বাংলাদেশে সরকার জুলাই মাসে করোনাভাইরাস টেস্টের জন্য উচ্চ ফি বেঁধে দেয় - আর তার পর দেশটিতে টেস্টের সংখ্যা কমে যায়।

তা ছাড়া দেশটিতে ভুয়া করোনা নেগেটিভ টেস্ট সার্টিফিকেট বিক্রি নিয়ে একটি কেলেংকারিও হয়েছে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস টেস্টিংএর জন্য ফি নির্ধারণের পর টেস্টিংএর সংখ্যা কমেছে
Getty Images
বাংলাদেশে করোনাভাইরাস টেস্টিংএর জন্য ফি নির্ধারণের পর টেস্টিংএর সংখ্যা কমেছে

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা প্রতিটি নিশ্চিত করোনাভাইরাস কেসের বিপরীতে ১০ থেকে ৩০টি টেস্টের যে মাত্রা বেঁধে দিয়েছে - দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো সেই মানদন্ডে ভালো করেনি।

তবে নেপাল এবং ভারত এখন সেই মানদন্ডে পৌঁছেছে।

রাশিয়া এবং জাপানের জনসংখ্যা বাংলাদেশের মতই। কিন্তু তারা অনেক ব্যাপকভাবে টেস্ট করছে।

দক্ষিণ এশিয়ার বাইরে প্রতিটি নিশ্চিত কেসের বিপরীতে অনেক বেশি টেন্ট করা হয়েছে
BBC
দক্ষিণ এশিয়ার বাইরে প্রতিটি নিশ্চিত কেসের বিপরীতে অনেক বেশি টেন্ট করা হয়েছে

রাশিয়ায় প্রতি ৩৯ জনে একজন এবং জাপানে ২৮ জনে একজন করোনাভাইরাস পজিটিভ পাওয়া যাচ্ছে।

কিন্তু বাংলাদেশ প্রতি পাঁচটি টেস্টে একজন করোনা পজিটিভ পাচ্ছে - যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানদন্ডের নিচে।

দক্ষিণ এশিয়ায় করোনাভাইরাসে মৃত্যুহার কম কেন?

ভারতে করোনাভাইরাসে সর্বমোট মৃত্যুর সংখ্যা এখন পৃথিবীতে তৃতীয় সর্বোচ্চ, কিন্তু আক্রান্তদের গুরুতর অসুস্থ বা মৃত্যু হবার অনুপাত বৈশ্বিক গড়ের তুলনায় কম।

দক্ষিণ এশিয়ায় করোনাভাইরাসে মৃত্যু হার তুলনামূলকভাবে কম
Getty Images
দক্ষিণ এশিয়ায় করোনাভাইরাসে মৃত্যু হার তুলনামূলকভাবে কম

দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোতেও মৃত্যুর মোট সংখ্যা বা আনুপাতিক হার পৃথিবীর অন্য অঞ্চলগুলোর চেয়ে কম।

এখানে উপাত্তের নির্ভরযোগ্যতা বা অনেক মৃত্যুর খবর না পাওয়াকে বিবেচনায় নিলেও - এ পার্থক্য চোখে পড়ার মত, বলছেন ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ প্রফেসর কামরান সিদ্দীকি।

তার মতে, এর সবচেয়ে বেশি সম্ভাব্য ব্যাখ্যা হলো - ইউরোপ বা যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় দক্ষিণ এশিয়ার জনগোষ্ঠীগুলোতে তরুণতরদের সংখ্যা বেশি।

Banner image reading more about coronavirus
BBC
Banner image reading more about coronavirus

করোনাভাইরাস: সুস্থ হয়ে উঠতে কতদিন লাগে?

নিজেকে যেভাবে নিরাপদ রাখবেন করোনাভাইরাস থেকে

করোনাভাইরাস : কীভাবে বানাবেন আপনার নিজের ফেসমাস্ক

আপনার কি দ্বিতীয়বার কোভিড ১৯ সংক্রমণ হতে পারে?

টাকার মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়াতে পারে কি?

'হার্ড ইমিউনিটি' কী, এর জন্য কতটা মূল্য দিতে হবে?

কোথায় কতোক্ষণ বেঁচে থাকে কোভিড-১৯ এর জীবাণু, নির্মূলের উপায়

Banner
BBC
Banner

BBC

English summary
Why Coronavirus is increasing in south asia
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X