• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

    জইশ, লস্কর জঙ্গি শিবির নিয়ে ব্যাকফুটে পাকিস্তান, চাঞ্চল্যকর বক্তব্য পাক মন্ত্রীর

    পাকিস্তান যে দেশের মাটিতে খোলাখুলিভাবেই জঙ্গি শিবিরগুলিকে আশ্রয় দিয়ে রেখেছে , তা পরোক্ষে মেনে নিতে বাধ্য হল পাকিস্তান। সেদেশের বিদেশমন্ত্রী খোয়াজা আসিফ জানিয়েছেন, লস্কর ও জইশ-এ-মহম্মদ -এর মতো জঙ্গি শিবির গুলি তাঁদের দেশের পক্ষে অস্বস্তি বাড়াচ্ছে।

    জইশ, লস্কর জঙ্গি শিবির নিয়ে ব্যাকফুটে পাকিস্তান, চাঞ্চল্যকর বক্তব্য পাক মন্ত্রীর

    উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই চিনে আয়োজিত ব্রিকস সম্মেলনে চিন, ভারত সহ একাধিক দেশ সন্ত্রাসবাদের বিরোধিতা করে নাম না নিয়ে পাকিস্তানকে কটাক্ষ করে। তারপরই পাক বিদেশমন্ত্রীর এই বক্তব্য় বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। ব্রিকসে জইশ -এ মহম্মদ ও লস্করের মতো জঙ্গি সংগঠনগুলির নাম নিয়ে এই শিবিরগুলির আশ্রয়দাতা দেশকেও একহাত নেোয়া হয়।

    এর প্রেক্ষিতে আসিফ জানিয়েছেন, পাকিস্তানের উচিত জইশ ও লস্করের ওপর বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞা জারি করা। যাতে বিশ্বের দরবারে দেখানো যায় যে পাকিস্তান নিজের ঘর পরিস্কার রাখছে। আসিফ এক কথায় মেনে নিয়েছেন, পাক মাটিকে জঙ্গি কার্যকলাপের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। আর এই জন্যই যে গেটা বিশ্ব তাঁদের দিকে আঙুল তুলছে তাও মেনে নিয়েছেন পাক বিদেশমন্ত্রী। এককথায় ব্রিকস সম্মেলন পরবর্তী সময়ে, সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে যে বিশ্ব রাজনীতিতে ক্রমাগত কোনঠাসা হচ্ছে পাকিস্তান, তা কার্য়ত মেনে নিয়েছেন সেদেশের বিদেশমন্ত্রী।

    English summary
    Pakistan’s Foreign Minister Khawaja Asif has warned that the country will continue to face “embarrassment” if terror groups like the LeT and JeM are not reined in, according to media reports. Asif’s admission came two days after the BRICS grouping that includes China, for the first time named terror groups like Lashkar-e-Taiba (LeT) and the Jaish-e-Mohammad (JeM) among the internationally banned outfits operating from within Pakistan.
    For Daily Alerts

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    Notification Settings X
    Time Settings
    Done
    Clear Notification X
    Do you want to clear all the notifications from your inbox?
    Settings X
    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more