• search

ভারতের বন্যায় বানভাসী ওপার বাংলা, অতীতের রেকর্ড ছাপিয়ে যাওয়ার শঙ্কা

  • By Soumik Bose
Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    ভয়াবহ বন্যার আশঙ্কায় কাঁপছে বাংলাদেশ। উত্তরবঙ্গ ও নামনি অসমে বন্যার জেরেই এবার বাংলাদেশের নদীগুলির জল বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইতে শুরু করেছে। পরিস্থিতি যা তাতে ১৯৮৮ সালের বন্যাকেও ছাপিয়ে যেতে পারে এবারের প্লাবন।

    ভারতের বন্যায় বানভাসী ওপার বাংলা, অতীতের রেকর্ড ছাপিয়ে যাওয়ার শঙ্কা

    ইতিমধ্যেই পদ্মা, ব্রক্ষ্মপুত্র সহ বেশ কয়েকটি নদ, নদীর জল যতটা বেড়েছে, তা গত ১০০ বছরেও বাড়েনি বলে জানিয়েছেন সেদেশের আবহবিদরা। নামনি অসমের পার্বত্য অঞ্চলে যে হারে বৃষ্টি হচ্ছে তাতে যমুনা, তিস্তা, ধরলা, আত্রেয়ী সহ বিভিন্ন নদীর জল বেড়ে ১৪টি জেলায় বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে। দ্য ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর মিডিয়াম-রেঞ্জ ওয়েদার ফোরকাস্টসের (ইসিএমডব্লিউএফ) পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আগামী ১০ দিনের মধ্যে হিমালয়ের দক্ষিণাঞ্চলে ২০০ মিলিমিটারের বেশি বৃষ্টিপাত হতে পারে। এতে করে ব্রহ্মপুত্রের ভারত ও বাংলাদেশের অংশে জলস্তর আরও বাড়বে। অপরদিকে উত্তরবঙ্গে বন্যার ফলে গঙ্গার জলও বাংলাদেশের হুহু করে ঢুকছে। ফলে পরিস্থিতি যথেষ্টই উদ্বেগজনক বলে মনে করা হচ্ছে।

    ভারতের বন্যায় বানভাসী ওপার বাংলা, অতীতের রেকর্ড ছাপিয়ে যাওয়ার শঙ্কা

    এদিকে সম্ভাব্য বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে সোমবারই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসে বাংলাদেশ প্রশাসন। বন্যা মোকাবিলায় এখন থেকেই সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে সব বিভাগকেই। বিশেষজ্ঞদের মতে, নামনি অসমে ব্রক্ষ্মপুত্রের জল নেমে আসতে ৩ থেকে ৪ দিন সময় লাগে। সেক্ষেত্রে ১৯শে অগাস্টের আশে- পাশেই দেশের সবচেয়ে বড় বন্যায় ভাসতে পারে ওপার বাংলা। 

    [আরও পড়ুন: উত্তরবঙ্গের সঙ্গে রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন, বিপাকে যাত্রীরা]

    English summary
    Weathermen predicts worse ever flood situation in Bangladesh within fews days, the flood would likely to be more disastrous than 1988.

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more