• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

দেরিতে আসায় প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, সাংসদকে বিমানে উঠতে বাধা যাত্রীদের

  • By Ananya Pratim
  • |
রেহমান মালিক
ইসলামাবাদ, ১৬ সেপ্টেম্বর: প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও এক সাংসদ আড়াই ঘণ্টা দেরি করে এয়ারপোর্টে আসায় বিমান ছাড়তেও দেরি হল। তাই ক্ষুব্ধ যাত্রীরা উঠতেই দিলেন না দু'জনকে। শেষে ওঁদের ফেলে রেখেই উড়ে গেল বিমান। ঘটনাটি ঘটেছে করাচির জিন্না আন্তর্জাতিক বিমাবন্দরে।

'দ্য ডন' সংবাদপত্র জানাচ্ছে, পিআইএ (পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স)-র উড়ান নম্বর পিকে-৩৭০ ওড়ার কথা ছিল গতকাল সন্ধে সাতটায়। ওই বিমানেই করাচি থেকে ইসলামাবাদ আসার কথা ছিল প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রেহমান মালিক এবং সাংসদ রমেশকুমার ওয়াকওয়ানির। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের অন্তত আড়াই ঘণ্টা এসে পৌঁছন তাঁরা। এ দিকে, দুই ভিআইপি না আসায় বিমান ছাড়েননি পাইলট।

দু'জন যখন এসে পৌঁছন, তখন ক্ষোভে ফেটে পড়েন যাত্রীরা। বিমানের সিঁড়ি আগলে দাঁড়ান তাঁরা। বলেন, "৬৮ বছর ধরে আপনাদের মতো রাজনীতিকদের এই ব্যবহার সহ্য করছি। আর কতদিন চলবে এ সব? মালিক সাহেব, আমরা দুঃখিত। আপনারা ফিরে যান। নিজেদের ওপর লজ্জাও হয় না আপনাদের? আপনাদের খামখেয়ালিপনার জন্য আমরা এতক্ষণ ভুগলাম।"

দুই ভিআইপি নানা অজুহাত দিলেও যাত্রীরা অনড় থাকেন। জনরোষ দেখে শেষ পর্যন্ত পিছিয়ে যান তাঁরা। ফলে দুই ভিআইপি-কে ছাড়াই রওনা দেয় বিমানটি।

পরে অবশ্য রেহমান মালিক টুইট করে বলেন, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বিমান ছাড়তে দেরি হয়েছে। এ জন্য তিনি দায়ী নন।

<blockquote class="twitter-tweet blockquote" lang="en"><p>I hv right to defend myself agst the allegation.PK370 /1900hr was delayed b/c tech reasons/was expected to leave at 2030. So no delay for me</p>— Rehman Malik (@SenRehmanMalik) <a href="https://twitter.com/SenRehmanMalik/status/511690128746487808">September 16, 2014</a></blockquote> <script async src="//platform.twitter.com/widgets.js" charset="utf-8"></script>
English summary
Angry passengers bar former interior minister, MP from boarding flight after delay
For Daily Alerts
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X
We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more