• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

(ছবি) টাকা বাতিলের প্রভাব সবচেয়ে বেশি পড়েছে এই ক্ষেত্রগুলিতে!

কালো টাকার দুর্নীতি রুখতে মোদী সরকারের আচমকা ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিলের জেরে বিপাকে পড়েছেন অনেকে। তবে শুধু ব্যক্তিগত ক্ষেত্রে নয়, 'ডিমনিটাইজেশন' বা নোট বাতিলের ব্যাপক প্রভাব পড়েছে বেশ কিছু ক্ষেত্রে।[নোট বাতিলের জেরে মন্দার কোপে দিল্লির যৌনপল্লি!]

কোন কোন ক্ষেত্র নোট বাতিলের জেরে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আসুন একঝলকে দেখে নেওয়া যাক। [হিসাব বহির্ভূত নগদকে 'আইনি আয়' হিসাবে দেখাতে যে ফন্দি ফিকির এঁটেছে জনতা!]

খাদ্যশস্য ও সবজি বাজার

খাদ্যশস্য ও সবজি বাজার

মানুষের কাছে রোজকার সবজি, শস্য কেনার সচল টাকা সীমিত। তাই সবজিপাতির দাম অনেকটাই পড়েছে। কৃষকদের দেওয়ার মতো ছোট নোট নেই খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে। এদিকে কৃষকরা পচনের কারণে বেশিদিন শস্য বা সবজি নিজেদেক কাছে জমিয়েও রাখতে পারছে না।[৫০০-১০০০ টাকা বাতিল হওয়ায় ধার করে সংসার চলছে বিপাশা বসুর, লক্ষ্মীর ভাঁড়ই ভরসা মিনির]

এই সমস্যার জেরে মুদির দোকানগুলি ধারে বিক্রি শুরু করেছে। এদিকে কৃষকরা টাকা না পেয়ে জায়গা খালি করতে বিনামূল্যে নিজের কষ্ট করে উৎপাদন করা সবজি, শস্য বিলিয়ে দিচ্ছেন। বেশ কয়েকটি রাজ্যের শস্য বাজার নোট বাতিলের জেরে কয়েকদিন বন্ধ রাখা হয়েছিল।

 চিকিৎসা ব্যবস্থা

চিকিৎসা ব্যবস্থা

নোট বাতিলের ব্যাপক প্রভাব পড়েছে চিকিৎসা পরিষেবায়। শহরের জনপ্রিয় হাসপাতালে যেখানে দিনে ৩৫-৪০টি করে অস্ত্রোপচার হয় গড়ে, সেখানে নোট বাতিলের পর সেই সংখ্যাটা নেমে দাঁড়িয়েছে ৮ থেকে ১০-এ। হাসপাতালগুলি ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট থাকলে পরিষেবা দিতে অস্বীকার করছে। ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে রোগীদের। এই কারণে চিকিৎসা না পেয়ে অনেকের মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে।[৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল: ঝামেলা এড়াতে কী করণীয় সাধারণ মানুষের?]

অন্যদিকে ওষুধের দোকানগুলিতে ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট তো চলছেই না। ছোট দোকানগুলিতে ২০০০ টাকার নোটও ভাঙিয়ে দিচ্ছেন না দোকান কর্মীরা। বড় দোকানগুলি কার্ডের সাহায্যে দাম নিচ্ছে। রিপোর্ট বলছে নোট বাতিলের জেরে ওষুধের দোকানের ব্যবসা ৭০ শতাংশেরও বেশি কমেছে।

অটো/ট্যাক্সি

অটো/ট্যাক্সি

মোট্রো শহরগুলির বিশেষত দিল্লি ও মুম্বইয়ের অটো, ট্যাক্সির ব্যবসা প্রচন্ডভাবে মার খেয়েছে। খুচরো বাঁচাতে অটো, ট্য়াক্সির বদলে মোবাইল ওয়ালেটের সাহায্যে ক্যাবই বেছে নিচ্ছেন শহরবাসীরা। একই অবস্থা ট্যাক্সিরও।

সিনেমা

সিনেমা

ইতিমধ্যেই নোট বাতিলের জেরে ধাক্কা খেয়েছে রক অন ২। বলিউডের সফল ছবি রক অন-এর সিকোয়েল এভাবে ধাক্কা খাবে কেউ স্বপ্নেও ভাবেননি। ছবির কলাকুশলীরা মনে করছেন নোট বাতিলের জেরেই এই বিপর্যয়।[(ছবি) 'অকেজো' ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট এখন 'খিল্লির পাত্র' সোস্যাল মিডিয়া-ম্যাসেঞ্জারে]

নগদ অর্থের সঙ্কটের জেরে ছবির টিকিট বিক্রি হচ্ছে না। বিভিন্ন সিনেমা হলগুলিতে ৫০ থেকে ৬০ শতাংশ টিকিট বিক্রির সংখ্যা কমেছে। এদিক থেকে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা গুজরাতে। আহমেদাবাদ, সুরাত সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রাতের শো-গুলি অধিকাংশই বাতিল করতে হচ্ছে। কিছু কিছু সিনেমা হল ব্যবসার আশায় চেকের ব্যাবস্থাও শুরু করেছে।

মাছের বাজার

মাছের বাজার

মাছ বাঙালির রোজকার জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। কিন্তু নোট বাতিলের তাড়নায় এবার সেখানেও কোপ পড়েছে। মাছের বাজারেও ভিড় কমেছে। জেলে থেকে পাইকারী হয়ে খুচরা ব্যবসায়ীদের হাতে পৌঁছনোর গোটা পক্রিয়াটাই বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে। অধিকাংশ মাছ ট্রলারে থাকাকালীনই পচে যাচ্ছে। ফলে মাছের বাজারেও সেভাবে মাছ পৌঁছচ্ছে না।[নোট বাতিলে কোথাও বেড়েছে ধার মেটানোর হিড়িক, কোথাও আবার খুচরো দিতে না পেরে খুলছে নতুন ধারের 'খাতা']

এদিকে হাতে খুচরো টাকা না থাকায় সমস্যায় ক্রেতা বিক্রেতা দু তরফই।

পর্যটক কমেছে, ফলে রাস্তার ধারের দোকানগুলিতে কমেছে বিক্রিবাট্টাও

পর্যটক কমেছে, ফলে রাস্তার ধারের দোকানগুলিতে কমেছে বিক্রিবাট্টাও

মহারাষ্ট্র-দিল্লিতে প্রায় ৪০ শতাংশ পর্যটকের সংখ্যা কমেছে। ফলে পর্যটক নির্ভর ব্যবসাতেও ধস। রাস্তার ধারের দোকানগুলি, কিংবা হস্তশিল্পের দোকানগুলির ব্যবসা প্রচণ্ডভাবে ধাক্কা খেয়েছে।

lok-sabha-home
English summary
Modi government’s decision to ban old Rs 500 and Rs 1,000 currency notes to deal with tax evasion and black money issue has suddenly hit some sectors. Which sectors mostly affected
For Daily Alerts

Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X
We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more