• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

'দুরাত্মা' তাড়ানোর নামে মুখে গরম বাল্ব ঢুকিয়ে খুন ২ শিশু

ভাতিন্ডা, ৯ মার্চ : অন্ধবিশ্বাসের বশবর্তী হয়ে দুই শিশুকে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট করে মারার অভিযোগ উঠল পাঞ্জাবের ভাতিন্ডায়। ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে শিশুদের বাবা ও ঠাকুমাকে।

জানা গিয়েছে, কুসংস্কারের বশবর্তী হয়ে 'খারাপ আত্মার ' হাত থেকে শিশুদুটিকে 'রক্ষা' করার নামে শিশুদের মুখে বিদ্যুৎচালিত গরম বাল্ব ঢুকিয়ে দেওয়া হয় । ফলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যায় ওই দুই শিশু।

'দুরাত্মা' তাড়ানোর নামে মুখে গরম বাল্ব ঢুকিয়ে খুন ২ শিশু

মৃত শিশুদের মধ্যে একজনের বয়স ৩ বছর অন্যজনের বয়স ৫ বছর। শিশুদের বাবা কুলবিন্দর সিং ও ঠাকুমা নির্মল কউরের বিরুদ্ধে এই কাণ্ড ঘটাবার অভিযোগ রয়েছে। দুজনকেই গ্রেফতার করে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রের খবর, শিশুদের 'খারাপ আত্মার ' হাত থেকে বাঁচানোর জন্য এক তান্ত্রিককে ডেকে পাঠানো হয়। পরে শিশুদের বাবা ও ঠাকুমাই দুজনের মুখে ওইভাবে বাল্ব ঢুকিয়ে দেয় বলে অভিযোগ। ঘটনার সময়ে শিশুদের মাকে দরজা বন্ধ করে রেখে দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ।

English summary
In an extremely distressing and shocking incident in Punjab, two little children were electrocuted to death allegedly in the name of faith in Bathinda on Wednesday by their father and grandmother. Reports say that the two kids – a five year old boy and a three year old girl – were made to put hot electric bulbs in their mouths to ‘cure them of evil spirits’. The incident happened in Bathinda in Punjab.
For Daily Alerts

Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X
We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more