• search

৪৪ জন অহিন্দু কর্মচারীকে ছাঁটাই করতে চলেছে দেশের এই বিশ্বখ্যাত মন্দির

Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    মন্দিরের ৪৪ জন অহিন্দু কর্মচারীদের ছাঁটাই কেন করা হবে না , জানতে চেয়ে তাঁদের কাছে নোটিস পাঠাল তিরুমালা তিরুপতি দেবস্থানম বোর্ড। এই ৪৪ কে এর আগে বরখাস্তের নোটিস পাঠানো হয়। তারপরই তাঁদের কাছে জানতে চাওয়া হয় কেন তাঁদের সরানো হবে না, তার জবাব দিয়ে জানাতে। উল্লেখ্য, এই বোর্ডের আওতায় রয়েছে ভেঙ্কটেশ্বরা তিরুমালা তীর্থস্থানটি।

    ৪৪ জন অহিন্দু কর্মচারীকে ছাঁটাই করতে চলেছে দেশের এই বিশ্বখ্যাত মন্দির

    [আরও পড়ুন:শচীনের মেয়ে সারার প্রেমে পাগল 'প্রেমিক'! মহিষাদলের যুবকের স্থান হল শ্রীঘরে]

    মন্দিরের নতুন নিয়ম অনুযায়ী ২০০৭ সালের পর থেকে কোনও অহিন্দুকে কর্মচারীকে নিয়োগ করা যাবে না। এর আগে, অহিন্দু কর্মচারীদের কেবলমাত্র শিক্ষকতার কাজের ক্ষেত্রে নিয়োগ করা যেত এই বোর্ডের আওতায়। সেই নিয়ম ১৯৮৯ সাল থেকে ২০০৭ পর্যন্ত। তবে ২০০৭ সাল থেকে এই মন্দির কর্তৃপক্ষের আওতায় কোনও ক্ষেত্রেই অহিন্দু কর্মীরা অংশ নিতে পারবেন না, নিয়মে এমনই সংস্কার নিয়ে এসেছে তিরুমালা মন্দির।

    ৪৪ জন অহিন্দু কর্মচারীকে ছাঁটাই করতে চলেছে দেশের এই বিশ্বখ্যাত মন্দির

    উল্লেখ্য, হিন্দু ছাড়া অন্য কোনও ধর্মের কাউকে মন্দির চত্বরে প্রবেশ করতে দেওয়া হয় না তিরুপতি মন্দিরে, যতক্ষণ না পর্যন্ত সেই দর্শনার্থী লিখিতভাবে জানাচ্ছেন যে তিনি ঈশ্বর বালাজির ওপর আস্থা ও বিশ্বাস রাখেন। এদিকে, মন্দিরে কর্মী ছাঁটাইয়ের পরিস্থিতিত সামলাতে নয়া পন্থা নিয়েছে মন্দির কর্তৃপক্ষ। তাঁরা ওই ৪৪ জন কর্মীকে অন্ধ্রপ্রদেশ সরকারের আওতায় একইরকমে পদে বদলি করার পদক্ষেপ নিতে চলেছে। তিরুমালা বোর্জের এই পদক্ষেপের ওপর আপাতত কোনও শিলমোহর পড়েনি।

    [আরও পড়ুন:ভাঙড়ে রবিবার তৃণমূলের সভা, জমি আন্দোলনকারীদের কড়া চ্যালেঞ্জ]

    English summary
    The Tirumala Tirupati Devasthanam (TTD) which manages the famous hill shrine of Lord Venkateshwara in Tirumala of Andhra Pradesh has issued notices to 44 non-Hindu employees asking them to submit their explanation before removing them.

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more