• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

চিকেন-মাটন থেকে কি করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা

মুরগির মাংস অথবা পাঁঠার মাংস বা সি-ফুড খেলেই নাকি করোনা ভাইরাস হচ্ছে। এরকম গুজব সম্প্রতি ছড়াচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে। যদিও করোনা ভাইরাস বা কোভিড–১৯–এর উৎপত্তিস্থল চিনের উহান প্রদেশ। বৃহস্পতিবার এই গুজবকে রীতিমতো উড়িয়ে দিয়ে এফএসএসএআই–এর প্রধান জিএসজি আয়ানগার জানিয়েছেন যে চিকেন, মটন বা সি ফুড খেলে করোনা ভাইরাস হবে এ বিষয়ে এখনও কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায়নি। উচ্চ তাপমাত্রায় কোনওভাবেই কোনও ভাইরাস জীবিত থাকতে পারে না।

উচ্চ তাপমাত্রায় ভাইরাস মরে যায়

উচ্চ তাপমাত্রায় ভাইরাস মরে যায়

আয়ানগার বলেন, ‘‌এটা প্রধানত পশুদের ভাইরাস। বরং এটি কীভাবে সংক্রমণ হয়েছে তা নির্ধারণের জন্য বিজ্ঞানীদের ওপর ছেড়ে দিন। তবে, আমাদের একটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় দেশ এবং তাপমাত্রা একবার ৩৫-৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস অতিক্রম করলে কোনও ভাইরাস টিকে থাকবে না। আসুন ভগবানের কাছে প্রার্থনা করি শীতকালটা শেষ হোক আর তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করুক।'‌ ভারতে ইতিমধ্যেই ৩০টি কোরনা ভাইরাসের নিশ্চিত আক্রান্তের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে।

নির্ভয়ে খান চিকেন–মটন

নির্ভয়ে খান চিকেন–মটন

চিকেন, মটন বা সিফুড খেলে করোনাভাইরাস হতে পারে, এ প্রসঙ্গে খাদ্য সুরক্ষা স্ট্যান্ডার্ড অথরিটির সিইও জানিয়েছেন যে এটা একেবারেই ভুল ধারণা এ বিষয়ে। তিনি বলেন, ‘‌চিকেন, মটন ও সিফুড খেলে করোনা ভাইরাস হবে এই ধারণা একেবারেই ভুল, এরকম কিছু হয় না। বৈজ্ঞানিকভাবে এর কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি।'‌ আয়ানগার সাংবাদিকদের বলেন, ‘‌আমি একজন বিজ্ঞানী, আমি এই যুক্তিটি মানব না।'‌ এফএসএসএআই-এর আগে আয়ানগার যুক্ত ছিলেন ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চের (‌আইসিএমআর)‌ সঙ্গে যুক্ত ছিলেন, তিনি জানান, করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক ভারতে তৈরি হতে সময় লাগবে, তখন এই ভাইরাসের সঙ্গে লড়া যাবে। তিনি বলেন, ‘‌ইবোলা ভাইরাস বা আভিয়ান ফ্লু, আমরা খুব ভালো ভাবে সেটাকে নিয়ন্ত্রণ করেছি। এটা সময়ের ব্যাপার। আমাদের এখন সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।'‌

দিল্লিতে ডাক পড়লো রাজ্যপালের,দিল্লি যাবেন রাজ্যপাল
প্রতিষেধক না বের হওয়া পর্যন্ত সাবধান হন

প্রতিষেধক না বের হওয়া পর্যন্ত সাবধান হন

জনসাধারণের কাছে তিনি অনুরোধ করেন যে সাবধানতা অবলম্বন করতে। করোনা ভাইরাস অন্য সব ভাইরাসের মতোই এবং এই সংক্রমক রোগের ধরন বোঝার পরই প্রতিষেধক তৈরি করা যাবে। কেন্দ্র এই ভাইরাসকে একঘরে করতে উদ্যোগ নিয়েছে। আয়ানগার বলেন, ‘‌একবার যদি আমরা এই ভাইরাসকে একঘরে করতে সফল হই তবে প্রতিষেধক বের করার জন্য কিছুটা সময় পাব।'‌

English summary
there is no scientific evidence that eat chiken mutton or seafood not spread coronavirus,
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X