• search

নিয়মের জটিলতা, শ্রীদেবীর নশ্বর দেহ আসছে সোমবার বেলায়

Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    সোমবার বেলার দিকে ছাড়া শ্রীদেবীর নশ্বর দেহ মুম্বইয়ে পৌঁছনোর সম্ভাবনা কম। দুবাই-এর সংবাদমাধ্যম খলিজ টাইমসের দাবি, খুব তাড়াতাড়ি হলেও স্থানীয় সময় সোমবার সকাল ৭টার আগে দুবাই হাসপাতাল থেকে শ্রীদেবীর নশ্বর দেহ ছাড়ার সম্ভাবনা নেই। এর মানে ওই সময় ভারতের ঘড়ির কাঁটা থাকবে ১০টার আশপাশে। সুতরাং, কোনওভাবেই বিকেলের আগে শ্রীদেবীর নশ্বর দেহের শেষকৃত্য সম্পন্ন সম্ভব নয় বলেই দাবি করছে খলিজ টাইমস।

    সোমবার সকালের আগে শ্রীদেবীর নশ্বর দেহ
     

    দুবাই-এর নিয়ম অনুসারে হাসপাতালের বাইরে কারোর মৃত্যু হলে ২৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়। শ্রীদেবীর মৃত্যুর ক্ষেত্রেও তা অনুসরণ করা হচ্ছে। এছাড়াও পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনেরও কিছু নিয়ম আছে। সেগুলোও পালিত হলে তবেই দুবাই-এর রশিদ হাসপাতাল থেকে দেহ ছাড়া হবে। 

    শনিবার রাত ১১টা নাগাদ দুবাই-এর জুমেইরাহ এমিরেটস টাওয়ার হোটেলের বাথরুমে অসুস্থ হয়ে পড়েন শ্রীদেবী। বাথরুমের মেঝেতেই তিনি পড়ে যান বলে শ্রীদেবীর স্বামী ও মেয়ে দাবি করেন। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই বলিউড অভিনেত্রীর মৃত্যু হয়। এরপর থেকেই শ্রীদেবীর নশ্বর দেহ রাখা আছে রশিদ হাসপাতালের মর্গে। রবিবার সকাল থেকে ময়না তদন্ত নিয়ে কিছু জটিলতা তৈরি হয়। কারণ, দুবাই-এর কিছু প্রশাসনিক নিয়ম আছে, সেগুলি না মিটলে মরদেহের ময়না তদন্ত সম্ভব ছিল না। ময়না তদন্তের বিষয়টি পিছোতে পিছোতে সন্ধ্যা গড়িয়ে যায়। দুবাই-এর স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ছ'টা নাগাদ শেষপর্যন্ত ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয় বলে হাসপাতালের একটি সূত্রে দাবি করা হয়। ময়না তদন্তের পর কিছু ল্যাব টেস্ট হওয়ার কথা ছিল। জেনারেল ডিপার্টমেন্ট অফ ফরেনসিক এভিডেন্স, দুবাই-এর এই ল্যাব টেস্ট করার কথা ছিল। হাসপাতাল সূত্রে অবশ্য এই ল্যাব টেস্ট নিয়ে কোনও স্পষ্ট ধারনা পাওয়া যায়নি। তবে, একটি সূত্রে দাবি করা হয়, কিছু ল্য়াব টেস্ট সম্পন্ন হলেও আরও কিছু টেস্ট এখনও বাকি আছে। শুধু ল্যাব টেস্ট হলেই হবে না তার রিপোর্টও লাগবে এবং তা দুবাই পুলিশের কাছে জমা করতে হবে। এরপরই শ্রীদেবীর নশ্বর দেহ হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে।

    বর্তমানে যা পরিস্থিতি তাতে সমস্ত নিয়ম কানুন মেনে রবিবার রাতের মধ্যে শ্রীদেবীর মরদেহ ছাড়া সম্ভব নয়। নিয়ম-কানুন ঠিক ঠাক করে পালিত হলে শ্রীদেবীর দেহ নিয়ে যাওয়া হবে মুহাইসনা এমব্লেমিং সেন্টার। সেখান থেকেই ছাড়া হবে মরদেহ এবং তা নিয়ে যাওয়া হবে বিমান বন্দরে। ইতিমধ্যেই অনিল আম্বানির প্রাইভেট জেট দুবাই বিমান বন্দরে অপেক্ষা করছে। কিন্তু, দেহ নিয়ে যেতে প্রাইভেটেও কিছু সরকারি অনুমতি লাগবে। দেহ ছাড়ার আগে দুবাই পুলিশ ও ইমিগ্রেশন দফতরেরও কিছু কাজ আছে। সুতরাং, রাতের মধ্যে এতকিছু হওয়া কার্যত অসম্ভব বলেই মনে করা হচ্ছে। তাই দুবাই-এর স্থানীয় সময় সকাল ৭টাতেও দেহ ছাড়া হলেও তা প্রাইভেট জেটে করে নিয়ে রওনা হতে আরও কয়েক ঘণ্টা সময় লেগে যাবে। তাই কোনও মতেই দুপুরের আগে মুম্বইয়ে শ্রীদেবীর দেহ পৌঁছনোর সম্ভাবনা নেই বলেই মনে করা হচ্ছে।

    প্রথমে ঠিক ছিল রবিবার সন্ধ্যার মধ্যে শ্রীদেবীর নশ্বর দেহ মুম্বইয়ে আনা হবে এবং সোমবার সকালে শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে। শেষকৃত্যের জন্য জুহু শ্মশানে বেলা ১১টার সময় ঠিক করে রাখা ছিল। পরিস্থিতি যা তাতে এই সময় এখন পিছিয়ে দেওয়া ছাড়া কোনও গতি নেই।

    এদিকে, মুম্বইয়ে লোখান্ডওয়ালায় শ্রীদেবীর ফ্ল্যাটে যাবতীয় আয়োজন সেরে ফেলে রাখা হয়েছে। দেহ কোথায় রাখা হবে? কীভাবে মানুষজন শেষশ্রদ্ধা জানাবেন- সমস্ত কিছুই। জানা গিয়েছে, শ্রীদেবীর মৃত্যুর খবর পাওয়ার পরই জাহ্নবীকে কাকা অনিল কাপুরের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। অনিল কাপুরও পঞ্জাবের শ্যুটিং-এর কাজ ফেলে মুম্বই পৌঁছে গিয়েছেন। তিনি মুম্বইয়ে সমস্ত আয়োজনের তদারকি করছেন। রবিবার দফায় দফায় করণ জোহর, মণীশ মালহোত্রা, জুহি চাওলারা জাহ্নবীর সঙ্গে দেখা করে তাঁকে সামলান। শ্রীদেবীর দেহ ফিরলেই তবেই জাহ্নবীকে মা-এর ফ্ল্যাটে নিয়ে যাওয়া হবে। বনি কাপুর ও অনিল কাপুরে ছোট ভাই সঞ্জয় কাপুর শনিবার রাতেই দুবাই-এ বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে ফিরে আসেন। কিন্তু, শ্রীদেবীর মৃত্যুর খবরে রবিবার তিনি ফের দুবাই উড়ে যান। 

    English summary
    As per usual protocols, these tests take up to 24 hours in the case a person has died outside a hospital in Dubai. The same safety and administrative protocols are being followed by the police in this case as well.

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more