স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে 'গার্ড অফ অনার' দিতে চাইল না এই বিজেপি শাসিত রাজ্যের পুলিশকর্মীরা, কেন জানেন

  • Posted By:
Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    বিজেপি শাসিত রাজস্থানে বসুন্ধরা রাজে সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিল তাঁরই রাজ্যের পুলিশ । সোমবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং-কে গার্ড অফ অনারে ভূষিত করার কথা ছিল রাজস্থান পুলিশের তরফে। সেদিনই প্রায় ২৫০ -এরও বেশি পুলিশকর্মী গণছুটিতে চলে যায়। এই পুলিশ কর্মীদের মধ্যে অনেক কনস্টেবলেরই সেদিন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে গার্ড অফ অনার দেওয়ার কথা ছিল।

    স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে 'গার্ড অফ অনার' দিতে চাইল না এই বিজেপি শাসিত রাজ্যের পুলিশকর্মীরা, কেন জানেন

    জানা গিয়েছে, এক রটনার জেরে এই ঘটনা ঘটেছে। রটে ছিল যে, পুলিশ কনস্টেবলদের বেতন কমিয়ে দেওয়া নিয়ে একটি সরকারী নির্দেশ আসতে চলেছে। আর তা নিয়েই সরগরম হয়ে ওঠে রাজস্থানের পুলিশ মহল। এদিকে, যে সমস্ত পুলিশ কর্মীরা ছুটিতে গিয়েছেন অথচ তাঁদের দায়িত্ব ছিল গার্ড অফ অনার দেওয়ার, তাঁদের বিকল্প হিসাবে অন্য পুলিশ কর্মীদের রাখতে গিয়ে হিমশিম খায় পুলিশ।

    ঘটনার জেরে ছুটিতে যাওয়া পুলিশ কর্মীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে চলেছে রাজস্থান প্রশাসন। সূত্রের খবর, একটি হোটসঅ্যাপ মেসেজ কে ঘিরে , রটতে থাকে যে রাজস্থানে কনস্টেবলদের বেতন ২৪ ০০০ টাকা থেকে কমিয়ে ১৯০০০ টাকা করে দেওয়া হবে। আর তার জেরেই প্রায় আড়াইশোরও বেশি পুলিশ কর্মী এই সিদ্ধান্তে আসেন। ঘটনার জেরে প্রতিবাদও জানান সেরাজ্যের পুলিশ কর্মীরা।

    English summary
    In an embarrassment to the Vasundhara Raje government, over 250 policemen went on a day's mass leave on Monday and some of them who were supposed to give guard of honour to Union home minister Rajnath Singh in Jodhpur refused to do so. The constabulary went on leave following rumours that a government order would reduce their pay scales.

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more