• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

যৌনঘনিষ্ঠতার পর প্রেমিকাকে খুন, নগ্ন দেহ নিয়ে মহিলার বাড়িতে যুবক, তারপর যা হল

নয়াদিল্লি ক্রমাগত বিকৃত অপরাধের আঁতুরঘর হয়ে উঠছে। দিল্লির এক ফার্মহাউস মালিকের মেয়েক খুন করে তাঁর নগ্ন দেহ নিয়ে মহিলার বাড়িতে গেলেন যুবক। ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য ছড়াল নয়াদিল্লির মালব্যনগরে। মহিলার বাড়িতে তাঁর দেহ নিয়ে গিয়ে তাঁকে হত্য়া করেছে বলেও স্বীকার করে অভিযুক্ত যুবক শাহবাদ খান।

যৌনঘনিষ্ঠতার পর প্রেমিকাকে খুন, নগ্ন দেহ নিয়ে মহিলার বাড়িতে যুবক, তারপর যা হল

সূত্রের খবর, ৩৮ বছরের ওই মহিলা বিবাহবিচ্ছিন্না। তিনি ওই অভিযুক্ত যুবক শাহবাদের সন্তানকে বিনষ্ট করেন গর্ভপাত করে। এরপর থেকেই ওই যুবককে বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকেন ওই মহিলা। এরপর ঘটনার দিন দুজনে একই সঙ্গে শপিং মলে গিয়ে দেখা করেন। মদ্যপান করেন তাঁরা। এরপর গাড়ির মধ্যে তাঁরা যৌনঘনিষ্ঠতায় লিপ্ত হন। আর তারপরই ওই মহিলা বিয়ের ব প্রসঙ্গ তোলেন। এরকম এক পরিস্থিতিতে ঝগড়া তুঙ্গে ওঠে দুজনের। আর সেই সময়েই শ্বাসরোধ করে মহিলাকে খুন করেন শাহবাদ। উল্লেখ্য, অভিযুক্ত শাহবাদের সঙ্গে একই জায়গায় চাকরি করতেন ওই মহিলা।

এদিকে, ঘটনার পর গাজিয়াবাদের বাসিন্দা ধৃত শাহবাদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। যাবতীয় দোষ স্বীকার করে শাহবাদ জানিয়েছেন যে সেই সময়ে তিনি মদ্যপ ছিলেন। এবং সেই অবস্থাতেই মৃত মহিলার দেহকে তাঁর বাড়িতে , তাঁর পরিবারের কাছে নিয়ে যায় শাহবাদ। মেনে নেয় তাঁর নারাকীয় অপরাধের কথা। আপাতত শাহবাদের বিরুদ্ধে ৩০২ নং ধারায় খুনের মামলা দায়ের করা হয়েছে।

English summary
38-year-old daughter of a farmhouse owner was allegedly strangled by her 30-year-old boyfriend in an inebriated state after having sex inside a car parked near a shopping complex in south Delhi’s Sheikh Sarai. He then took her naked body to her family at their Malviya Nagar home and confessed.
For Daily Alerts
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X
We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more