• search

চার বছরে দেশের ৩ লক্ষ কোটি টাকা বাঁচিয়েছে নরেন্দ্র মোদী সরকার, জানুন কীভাবে

Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    দেশের বাজারে মোবাইল উৎপাদন করিয়ে, এই ব্যবস্থা বলবৎ করিয়ে দেশের ৩ লক্ষ কোটি টাকা খরচ হওয়ার থেকে রক্ষা করেছে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী সরকার। আগে মোবাইল পুরো তৈরি হওয়ার পর এদেশে আমদানি হতো। আর এখন সিবিইউ বা কমপ্লিটলি-বিল্ট ইউনিট আমদানি হয় না। ভারতেই উৎপাদিত ও অ্যাসেম্বল করা মোবাইল হ্যান্ডসেট তৈরির কাজ চলছে গত চার বছরের বেশি সময় ধরে। ইন্ডিয়া সেলুলার অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স অ্যাসোসিয়েশন বুধবার একথা জানিয়ে দিয়েছে।

    চার বছরে দেশের ৩ লক্ষ কোটি টাকা বাঁচিয়েছে নরেন্দ্র মোদী সরকার, জানুন কীভাবে

    রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০১৭-১৮ সালে ভারতে ২২৫ মিলিয়ন মোবাইল হ্যান্ডসেট অ্যাসেম্বলড বা তৈরি হয়েছে। যা বাজারের চাহিদার প্রায় ৮০ শতাংশ। আইসিইএ মনে করছে, ২০১৮-১৯ সালে ভারতে ২৯০ মিলিয়ন মোবাইল হ্যান্ডসেট তৈরি বা অ্যাসেম্বল করা হবে। যার বাজারমূল্য ১ লক্ষ ৬৫ হাজার কোটি টাকা।

    বছরের প্রথম দুই ত্রৈমাসিকে ভারতে তৈরি মোবাইল সেটের মূল্য ৭৫ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গিয়েছে। তৈরি হয়েছে ১৩০ মিলিয়ন মোবাইল সেট। আইসিইএ জানিয়েছে, সারা বিশ্বের নামী মোবাইল কোম্পানিগুলি ভারতকে চোখ করেছে। ভারত এখন বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুতলয়ে বেড়ে চলা বড় স্মার্টফোনের বাজার হয়ে গিয়েছে। গতবছরই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে টপকে গিয়েছে ভারত। এখন চিনের পরই মোবাইলের বাজারের নিরিখে ভারতের স্থান।

    আইসিইএ-র বক্তব্য ২০১৮ আর্থিক বর্ষের শেষ হতে না হতেই মোবাইল আমদানি একেবারে শূন্যতে নামিয়ে আনবে ভারত। খুব শীঘ্রই রিলায়েন্স জিও তাদের পুরো উৎপাদন ভারতে করতে চলেছে। যার ফলে ইলেকট্রনিক্স বাজারে তার সুদূরপ্রসারী প্রভাব পড়বে।

    আইসিইএ-র বক্তব্য, মেক ইন ইন্ডিয়া ও ডিজিটাল ইন্ডিয়া-র মতো উদ্যোগের কারণে ভারতে মোবাইল ও টেলিকম ইন্ডাস্ট্রির বিপ্লব হয়েছে। যার ফলে কয়েক লক্ষ কর্মসংস্থান যেমন তৈরি হয়েছে, তেমনই কয়েক লক্ষ কোটি টাকা সরকার বাঁচাতে পেরেছে।

    English summary
    India saves Rs 3 lakh crore in 4 years by local manufacturing of mobile handsets, reports ICEA

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more