• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts
Oneindia App Download

করোনায় বেশি হোম টেস্টে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন চিকিৎসকরা

Google Oneindia Bengali News

গত বছরই ভারত সরকার রাজ্যগুলিকে কোভিড -১৯ এর জন্য হোম টেস্টের ব্যবহারকে বেশি করে ব্যবহার করতে বলে, বিশেষত তাদের জন্য এটা বলা হয় যাদের করোনা লক্ষণ থাকলেন খুব কম পরিমানে তারা তা অনুভব করছেন, স্থানীয় স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে চাপ এড়াতে এই কথা বলে সরকার। এবার এর একটি যেমন ভালো দিল এল, খারাপ দিকও দেখা যাচ্ছে। হোম টেস্টের ফলে কত টেস্ট হচ্ছে সেই তথ্য ঠিক থাকছে না পাশাপাশি কেউ পজেটিভ হলে সেই তথ্যও সরকারের কাছে পৌঁছাচ্ছে না, কারণ অনেকেই বাড়িতে টেস্ট করে তার ফলাফল সরকারকে জানাচ্ছে না।

করোনায় বেশি হোম টেস্টে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন চিকিৎসকরা

গত বছরের ডেল্টার ভ্যারিয়েন্টের জেরে ঢেউয়ের জেরে, হাসপাতাল এবং পরীক্ষাগারগুলিকে খুব খারাপ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু ওমিক্রন আসার পরও নতুন করে সংক্রমণ যেমন আকাশচুম্বী হয়েছিল, তেমনি ভারত জুড়ে ঘরে বসে নিজেদের পরীক্ষা করার সংখ্যাও বেড়েছে। কারণ তখন সরকার এই টেস্টিং ব্যবস্থা এনে দিয়েছে।

১৯৪৭ এ মোদী ক্ষমতায় থাকলে কার্তারপুর ভারতে থাকত, বললেন অমিত শাহ ১৯৪৭ এ মোদী ক্ষমতায় থাকলে কার্তারপুর ভারতে থাকত, বললেন অমিত শাহ

দেখা যাচ্ছে, জানুয়ারির প্রথম ২০ দিনে, প্রায় ২০০,০০০ মানুষ ভারতের স্বাস্থ্য সংস্থার সাথে তাদের পরীক্ষার ফলাফল শেয়ার করেছে - যা ২০২১ সালের সমস্ত তুলনায় ৬৬ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে৷ কৌশলটি দৃশ্যত কাজ করেছে৷ যারা কম আক্রান্ত হয়েছেন তারা বাড়িতে আইসলেশনে থাকতে বলা হয়েছিল, হাসপাতালের বিছানাগুলি বেশি দুর্বলদের জন্য উপলব্ধ থাকতে দেওয়ার জন্য।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে এই সংখ্যাটি সম্ভবত ব্যবহৃত পরীক্ষার প্রকৃত সংখ্যার একটি ভগ্নাংশ। নিয়ম অনুযায়ী লোকেদের তাদের ফলাফল কর্তৃপক্ষের সাথে শেয়ার করতে হয়, অনেকেই তা করছেন না। এর মানে হল যে দেশের ইতিমধ্যেই প্যাচি টেস্টিং ডেটা আরও কম নির্ভুল এবং ভবিষ্যতের ক্লাস্টারগুলি সনাক্ত করা যাবে না।

এই সমস্যা এখন ভারতের অনেক রাজ্যেই দেখা যাচ্ছে। মহারাষ্ট্রে, রাজ্যের স্বাস্থ্য আধিকারিক ডঃ প্রদীপ ব্যাস সম্প্রতি সমস্ত ব্যবহারকারীদের তাদের ফলাফল রিপোর্ট সরকারকে করার জন্য আবেদন করেছেন। যেহেতু ওমিক্রন এবং মারাত্মক ডেল্টা ভেরিয়েন্টের মধ্যে পার্থক্য করা যায় না প্রাথমিক টেস্টে তাই তা দেশে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে। তিনি সতর্ক করেছেন যে এখনও এমন দুর্বল লোক রয়েছে যাদের হাসপাতালের যত্নের প্রয়োজন তাদের তথ্য সরকার পর্যন্ত পৌঁছনো দরকার।

তিনি গত মাসে কর্তৃপক্ষকে একটি চিঠিতে লিখেছিলেন এই হোম টেস্টের জন্য ফের, "হঠাৎ করে আমাদের স্বাস্থ্য অবকাঠামোর উপর চাপ আসতে পারে," জানুয়ারী থেকে, রাজ্যের ফার্মাসিস্টরা যারা হোম টেস্ট কিনছেন তাদের রেকর্ড রাখা শুরু করেছেন। তবে বেশিরভাগ ভারতীয় শহরে এটি হয় না। তবে ভারতের পাবলিক হেলথ ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট কে শ্রীনাথ রেড্ডি বলেন, "যদি আমাকে অনুমান করতে হয়, হয়তো শুধুমাত্র ২০% লোকই হোম টেস্ট ব্যবহার করছে"।

English summary
home covid test is increased and its spoiling government data
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X