• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

করোনায় সুস্থ হয়ে উঠছে দক্ষিণের রাজ্যগুলি, অবস্থা খারাপ মহারাষ্ট্র, গুজরাতের

ভারতের মতো বিরাট জনবহুল দেশে করোনা ভাইরাস লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে চলেছে। দেশের মধ্যে বেশ কিছু রাজ্য–শহর হটস্পট এলাকা হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তবে দেশের করোনা তথ্য বলছে, দিল্লি ও দক্ষিণ ভারতে করোনা রোগীরা দ্রুত নিরাময় হচ্ছে। এটা অবশ্যই দেশবাসীর কাছে কিছুটা হলেও আশ্বাসের খবর।

সামগ্রিকভাবে, বিশ্বে করোনা নিরাময়ের যে গড় অনুপাত ২৭.‌৩৫%‌, তার থেকে কিছুটা দূরে রয়েছে ভারত। তবে আশার আলো দেখাচ্ছে দক্ষিণের রাজ্যগুলি। কেরল, তামিলনাড়ু, কর্নাটক ও তেলেঙ্গানার মতো রাজ্য করোনা লড়াই লড়ছে দারুণভাবে এবং রোগীরা খুব দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছে। গুজরাত, উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্রে খুব ধীরগতিতে সুস্থ হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। এই রাজ্যগুলিতে নিরাময় হওয়ার হার ১৫ শতাংশ বা তার নীচে। যদিও এইসব রাজ্যগুলির মধ্যে দিল্লি দারুণভাবে সাফল্য পেয়েছে। এখানে করোনা সুস্থতার হার ৩২.‌২ শতাংশ। তবে দিল্লিতে নিশ্চিত সংক্রমণও অনেক বেশি।

দক্ষিণের রাজ্যগুলি করোনা রোধ করছে সফলভাবে

দক্ষিণের রাজ্যগুলি করোনা রোধ করছে সফলভাবে

খুশির খবর এটাই যে সুস্থ হওয়ার গ্রাফটি ক্রমশঃ ওপরের দিকে উঠছে। যেখানে একমাস আগেও সুস্থতার হার ছিল ৬.‌৬%‌, তা ১৭ এপ্রিলের মধ্যে বেড়েছে ১৩%‌ ও বৃহস্পতিবার তা ২০% ছুঁয়েছে। প্রথম থেকেই কেরল এই সংক্রমণ রোধের বিষয়ে দারুণভাবে কাজ করে গিয়েছে। এই সংক্রমণ এ রাজ্যে বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের কড়া সতর্কতা নেওয়া হয়েছিল, যার ফলে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪৫০ হলেও সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে গিয়েছে ৩২৪ জন। কেরলে সুস্থতার হার দারুণভাবে দেখা দিয়েছে, যা ৭৪%‌-এর কাছাকাছি।

তামিলনাড়ু–কর্নাটকের ফল ভালো

তামিলনাড়ু–কর্নাটকের ফল ভালো

তামিলনাড়ুতে এখনও পর্যন্ত ১,৬২৯ জন পজিটিভ রোগী রয়েছে, যদিও তার মধ্যে ৬৬২ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন, সুস্থতার হার এখানে ৪০%‌। কর্নাটকেও একই চিত্র দেখা দিয়েছে, এ রাজ্যেও দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠার খবর মিলছে। কর্নাটকে মোট ৪৫০ জনের মধ্যে ১৪১ জন সুস্থ হয়ে উঠেছে, এ রাজ্যে সুস্থ হয়ে ওঠার হার ৩২%‌।

গুজরাতে করোনা আক্রান্ত বেড়ে চলেছে

গুজরাতে করোনা আক্রান্ত বেড়ে চলেছে

গত কয়েক দিনের মধ্যে গুজরাতে করোনা পজিটিভের সংখ্যা বেড়ে গিয়েছে এবং এ রাজ্যে সুস্থ হয়ে ওঠার লক্ষণের হার ৭.‌৫%‌। এ রাজ্যের আহমেদাবাদের মতো বড় শহর রেড জোনে পরিণত হয়েছে, ১৩০০ পজিটিভ কেস এখনও পর্যন্ত এবং পরবর্তীকালে সংখ্যা বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত সুরাতে ৩২৫টি কেস পাওয়া গিয়েছে, যা রাজ্যের মধ্যে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে হাসপাতাল থেকে দ্রুত ছাড়া পাবে রোগীরা।

করোনায় সুস্থতার হার কম উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্রে

করোনায় সুস্থতার হার কম উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্রে

গুজরাতের মতো উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান ও মহারাষ্ট্রও সাক্ষী রয়েছে কোভিড-১৯ সংক্রমণের ও এই রাজ্যগুলিতেও সুস্থতার হার অত্যন্ত কম। মহারাষ্ট্রের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ, এই রাজ্যে সংক্রমণের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি হলেও সুস্থ হয়ে উঠেছে মাত্র ৭৮৯ জন, যা ১৩.‌৯৫%‌। মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানেও সুস্থ হয়ে ওঠার হার ৯.‌২৯%‌ ও ১২.‌১৭%‌। মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরে সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্ত রয়েছে অন্যদিকে রাজস্থানের জয়পুরে একই ধরনের কেস দেখা গিয়েছে।

করোনায় সুস্থ হয়ে উঠছে ওড়িশা, গোয়া

করোনায় সুস্থ হয়ে উঠছে ওড়িশা, গোয়া

তবে এছাড়াও ওড়িশা, গোয়া, বিহার ও হিমাচল প্রদেশের মতো রাজ্যগুলিতেও করোনায় সুস্থ হয়ে ওঠার হার খুবই ভালো, প্রায় ৩০%‌ বা তার চেয়ে বেশি। তবে বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে জানিয়েছেন যে এই সমস্ত রাজ্যে খুব অল্প সংখ্যক রোগীর পরীক্ষা করা হয়েছে এবং সংক্রমণ সংখ্যায় খুব অল্প হওয়ায় কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় না।

আমেরিকার মতো ভয়ঙ্কর করোনা পরিস্থিতির দিকে এগোচ্ছে ভারত, দাবি চিনা বিশেষজ্ঞের

English summary
Kerala is the only state that did phenomenally well in controlling the spread of the virus from the start. After an initial jump in infections and a subsequent spurt, the total case count is under 450, of which 324 have been discharged. In other words, an impressive recovery rate of nearly 74%.
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X
We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more