India
  • search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts
Oneindia App Download

সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট থেকে কানহাইয়া খুন , দেখে নিন রাজস্থানে হিংসার ঘটনাক্রম

Google Oneindia Bengali News

সাসপেন্ড করা বিজেপি নেতা নূপুর শর্মার সমর্থনে সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট করেছিল কানহাইয়া লাল নামে এক যুবক। সে পেশায় দরজি। এর কয়েকদিন পর মঙ্গলবার উদয়পুরে প্রকাশ্য দিবালোকে বছর কুড়ির ওই দর্জির গলা কেটে খুন করা হয়। ঘটনার পর স্থানীয় বাসিন্দারা বিক্ষোভ দেখান, এলাকায় ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং কারফিউ জারি করা হয়। রাজসামন্দ থেকে গ্রেপ্তার করা হয় অভিযুক্তদের। তারা পুরো ঘটনার ভিডিও করে করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেড়ে দিয়েছিল। সেখান তাদের বলতে শোনা যায় যে তারা ইসলামের অবমাননার প্রতিশোধ নিচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট হত্যাকাণ্ডের নিন্দা ও শান্ত থাকার আবেদন জানানোর পরও শহরে অতিরিক্ত পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছিল।

সোশ্যাল মাধ্যম

সোশ্যাল মাধ্যম

সব কিছুর কেন্দ্রে সোশ্যাল মিডিয়া। আসলে এই প্লাটফর্মকে ব্যাবহার করে অনেকেই নিজের কথা জাহির করতে যায়, কিন্তু অনেকেই ভুলে যান যে বিষয় বেশি স্পর্শকাতর তা নিয়ে সোশ্যাল মাধ্যমে সাবধানে পোস্ট করাই ভালো। অনেকটা সেই স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে পোস্ট সারা রাজ্যের পরিস্থিতিকে আরও বিপদে ফেলে দিল। রাজস্থানে এখন ইন্টারনেট বন্ধ। কোনও নির্দিষ্ট এলাকায় নয় , সারা রাজ্যে। অশান্তি এড়াতে এমনটাই সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।

ঘটনার সূত্রপাত এবং সোশ্যাল মিডিয়া

ঘটনার সূত্রপাত এবং সোশ্যাল মিডিয়া

নূপুর শর্মাকে সমর্থন করে সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট করে কানহাইয়া লাল। নিহতের স্বজনদের মতে, যুবক দর্জি ১০ দিন আগে সাসপেন্ড হওয়া বিজেপি নেত্রী নুপুর শর্মার সমর্থনে একটি সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট করেছিলেন। তিনি সম্প্রতি নবী মহম্মদের বিরুদ্ধে মন্তব্য করেছিলেন, যার উপর বিজেপি দল ব্যবস্থা নেয় এবং মুসলিম দেশগুলির প্রতিক্রিয়ার পরে তাকে বরখাস্ত করে।

কানহাইয়া লালকেও গ্রেপ্তার

কানহাইয়া লালকেও গ্রেপ্তার


সোশ্যাল মিডিয়ায় করা মন্তব্যের জন্য স্থানীয় পুলিশ কানহাইয়া লালকেও গ্রেপ্তার করেছিল। সে জামিনে মুক্তি পায়। তবে নগরীর ধানমন্ডি এলাকায় দোকান থাকা ওই যুবক শীঘ্রই জামিনে মুক্তি পায়। ঘটনার সময় তিনি জামিনে ছিলেন।

হুমকি

হুমকি


সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট করার পরেই কানহাইয়া হুমকি পেয়েছিল। তার আত্মীয়রা জানায়, বিভিন্ন মহল থেকে তাকে একাধিক হুমকি দেওয়া হয়। নিরাপত্তার জন্য পুলিশের কাছে যায় ওই যুবক। তার স্বজনদের অভিযোগ, তার অভিযোগ গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া হয়নি। তাদের অভিযোগ, অভিযোগে পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নেয়নি।

খুন

খুন


প্রকাশ্যে দিবালোকে দর্জির শিরশ্ছেদ করা হয় এবং ঘটনাটি অভিযুক্তরা ভিডিও করে। পুলিশ জানায়, জামাকাপড়ের মাপ দেওয়ার অজুহাতে কানহাইয়ার দোকানে আসে অভিযুক্ত। দর্জি তাদের একজনের পরিমাপ নেওয়ার সময় - যে পরে নিজেকে রিয়াজ বলে পরিচয় দেয় - অন্যজন তাকে ক্লিভার দিয়ে আক্রমণ করে। অন্য ব্যক্তিও তার মোবাইল ফোনে হত্যাকাণ্ডের ভিডিও শুট করে। যুবককে খুন করে ওই দুই ব্যক্তি ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় এবং পরে ক্লিপটি সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করে।

অনলাইনে পোস্ট করা ভিডিও ক্লিপে, একজন হামলাকারী ঘোষণা করেছে যে তারা যুবকের শিরশ্ছেদ করেছে এবং তারপর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে হুমকি দেয়। হামলাকারীরা পরোক্ষভাবে নূপুর শর্মাকেও উল্লেখ করেছে। ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়লে উত্তেজনা বেড়ে যায়। স্থানীয় বাজারের দোকানদাররা দোকানপাট বন্ধ দেয় এবং পুলিশকে মৃতদেহ নিয়ে যেতে বাধা দেয়, তারা বলে যে হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করতে হবে এবং ক্ষতিপূরণ ৫০ লক্ষ টাকা সহ একটি সরকারি চাকরি দিতে হবে। এসব করা হলে দেওয়া তবেই দেহ নিয়ে যেতে দেওয়া হবে।

English summary
know the total history of kanhaiya lal murder case in Rajasthan
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X