• search

এই সরকারি দফতরে কর্মীরা হেলমেট পরে কাজ করেন, কেন জানেন, কারণ শুনলে তাজ্জব হয়ে যাবেন

  • By Sritama Mitra
Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    রাস্তা নয় , যে হেলমেট পরে থাকতে হবে! বরং দফতর, তাও আবার সরকারি দফতর! যেখানে কর্মচারীরা হেলমেট পরে নিত্যদিন কাজ করেন। এভাবে কাজ করার কারণ শুনলে আপনি চমকে উঠতে বাধ্য! ঘটনা বিহারের পূর্ব চম্পারন জেলার।

    বিহারের চম্পারনের এক রাজ্যসরকারি দফতরের বিল্ডিং এর হাল এতটাই খারাপ যে, বিল্ডিং এর দেওয়াল থেকে কোথাও খসে গিয়েছে প্লাস্টার , তো দফতরের দেওয়ালে কোথাও দেখা দিয়েছে ফাটল। সেই ফাটল দিয়ে বর্ষার সময়ে জল পড়ে দফতরের ইতিউতি। শুধু তাই নয়, উপরের সিলিং থেকে চাঙর ভেঙে পড়ারও আশঙ্কা দেখা গিয়েছে। আর সেই সব দুর্ঘটনার হাত থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে হেলমেট পরে কাজে বসেন দফতরের কর্মীরা।[আরও পড়ুন:সাপের কামড় খেয়ে স্ত্রীকে কামড়াল স্বামী, তারপর যা হল]

    এই সরকারি দফতরে কর্মীরা হেলমেট পরে কাজ করেন, কেন জানেন, কারণ শুনলে তাজ্জব হয়ে যাবেন

    শুধু কর্মী কেন , এই সরকারি দফতরে আসা সাধারণ মানুষও নিজেদের দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা করার জন্য় বহু রকমের পন্থা অবলম্বন করেন। উল্লেখ্য়, এর আগে , কয়েকজন কর্মীর মাথায় এই দফতরে দেওয়ালের চাঙর ভেঙে পড়ায়, তাঁরা আহতও হয়েছেন। তারপর থেকেই হেলমেট পরার সিদ্ধান্ত নেন কর্মীরা। আর এইভাবেই কাজ চলে একটি সরকারি দফতরে।[আরও পড়ুন:বিহারের এই গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে রয়েছে অন্তত একজন করে ইঞ্জিনিয়ার]

    পথনিরাপত্তার জন্য় সরকারি বিজ্ঞাপনে লেখা থাকে হেলমেট পড়ার কথা । তবে সরকারি দফতরের এই হালতের ছবি দেখে প্রশাসন কী বলে এখন সেটাই দেখার। পাশাপাশি, গোটা বিষয়টি নিয়ে সরকার কী ব্যবস্থা নেয়, সেদিকেও তাকিয়ে রয়েছেন কর্মীর।[আরও পড়ুন:দেশের এই রাজ্যে অপহরণ করে বিয়ে করানো হয়েছে ৩ হাজার পাত্রকে]

    English summary
    Wearing a helmet to save yourself from any injuries while driving a bike on road is one thing, so is wearing a helmet while washing the windows of a skyrise, but wearing a helmet to protect yourself while doing a desk job.Not just employees but the visitors too prefer to protect their heads while entering this office located in East Champaran district

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more