• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

জ্ঞানব্যাপি ইস্যুতে টুইট করে গ্রেফতার অধ্যাপক, প্রতিবাদ দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের

Google Oneindia Bengali News

জ্ঞানব্যাপি মসজিদ মামলায় সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের জন্য গ্রেফতার হওয়া হন এক অধ্যাপক। সেই অধ্যাপকের মুক্তির দাবিতে উত্তাল দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর। শুক্রবার গ্রেফতার করা হয় দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের হিন্দু কলেজের অধ্যাপক রতন লালকে। আর এর বিরুদ্ধে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা শনিবার কলা বিভাগের বাইরে বিক্ষোভ দেখায়।

কী বলছে পুলিশ

কী বলছে পুলিশ

জ্ঞানব্যাপি ইস্যুতে টুইট করে গ্রেফতার অধ্যাপক, প্রতিবাদ দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের

কোন ধারায় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে ?

কোন ধারায় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে ?


রতন লালকে ভারতীয় দণ্ডবিধির ধারা ১৫৩এ (ধর্ম, জাতি, জন্মস্থান, বাসস্থান, ভাষা ইত্যাদির ভিত্তিতে বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে শত্রুতা প্রচার করা এবং সম্প্রীতি বজায় রাখার জন্য ক্ষতিকর কাজ করা) এবং ২৯৫এ (ইচ্ছাকৃতভাবে ক্ষোভের জন্য কাজ করা) এর অধীনে গ্রেফতার করা হয়েছিল। উত্তর জেলার সাইবার থানা পুলিশ জানিয়েছিল অধ্যাপকের টুইট কোনও এক শ্রেণীর ধর্মীয় অনুভূতিকে অবমাননা করে। তাই গ্রেফতার করা হয়

কে অভিযোগ দায়ের করে ?

কে অভিযোগ দায়ের করে ?

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী বিনীত জিন্দাল রতন লালের বিরুদ্ধে দিল্লি পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগে লালের বিরুদ্ধে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ আনা হয়েছে।

কী বলেছেন আইনজীবী ?

কী বলেছেন আইনজীবী ?

তার অভিযোগে, যে জ্ঞানব্যাপি মসজিদ কমপ্লেক্সে একটি 'শিবলিঙ্গ' পাওয়া গিয়েছে এই ঘটনাটি অত্যন্ত সংবেদনশীল এবং বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন। তা নিয়ে কোনও মন্তব্য করা ঠিক নয়। সোশ্যাল মাধ্যমে মন্তব্য আরও উস্কানি দেয়। তাই এমন কাজ করা অপরাধ।

সাইটটি বহু সময়েই সাম্প্রদায়িক উত্তেজনার সাক্ষী থেকেছে। ১৯৮৪ সালের শুরুতে, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ (ভিএইচপি) হিন্দু জাতীয়তাবাদীদের সাথে জ্ঞানব্যাপি সহ হিন্দু মন্দিরগুলি ভেঙে দিয়ে নির্মিত মসজিদগুলির স্থানগুলি পুনরুদ্ধার করার জন্য দেশব্যাপী প্রচারে নিযুক্ত হয়। ১৯৯২ সালের ডিসেম্বরে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পর, উত্তেজনা বৃদ্ধি পায়। এবং জ্ঞানব্যাপিতে অনুরূপ ঘটনা এড়াতে প্রায় এক হাজার পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল।


হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছে জায়গাটি হস্তান্তরের জন্য ১৯৯১ সালে বারাণসী সিভিল কোর্টে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছি। এটি পূজার স্থান (বিশেষ বিধান) আইন, ১৯৯১ (এখন থেকে PoW) বাইপাস করার চেষ্টা করেছিল, যা ইতিমধ্যেই কার্যকর ছিল। ১৯৯৮ সালে আদালত রায় দেয় যে মামলাটি প্রকৃতপক্ষে PoW আইন দ্বারা নিষিদ্ধ ছিল। একটি পুনর্বিবেচনা পিটিশন পরবর্তীকালে জেলা আদালতের সামনে স্থানান্তরিত হয় যারা এটির অনুমতি দেয় এবং দেওয়ানি আদালতকে নতুন করে বিরোধের বিচার করতে বলে। মসজিদ পরিচালনা কমিটি সফলভাবে এই কেসকে এলাহাবাদ হাইকোর্টে চ্যালেঞ্জ করেছিল, যার ফলে কার্যধারা স্থগিত হয়েছিল।

English summary
DU students hold protest demanding release of professor who wa arrested for post on Gyanvapi case
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X