• search

নাবালিকা ধর্ষণ, রাজস্থানে প্রথমবার দেওয়া হল এই রায়

Subscribe to Oneindia News
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    ৭ মাসের এক শিশু কন্যাকে ধর্ষণের অপরাধে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হল ১৯ বছরের এক যুবক। রাজস্থানে নাবালিকা ধর্ষণের আইন কঠোর করার পর এই প্রথম কোনও ব্যক্তিকে মৃত্য়ুদণ্ড দেওয়া হল। ঘটনার মাত্র ৭০ দিনের মাথাতেই এই রায় দেওয়া হল।

    নাবালিকা ধর্ষণ, রাজস্থানে প্রথমবার দেওয়া হল এই রায়

    মধ্যপ্রদেশের পর ভারতের দ্বিতীয় রাজ্য হিসেবে রাজস্থান চলতি বছরের মার্চ মাসে ১২ বছরের কম বয়সী নাবালিকা ধর্ষণের শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ডকে কার্যকর করে। এই প্রথম এই আইন ব্যবহার করা হল। আলওয়ারের এসসি/এসটি কোর্টের বিশেষ বিচারক যোগেন্দ্র কুমার আগরওয়াল ২২ দিনে মাত্র ১২টি শুনানিতেই এই রায় দেন।

    ঘটনার সূত্রপাত চলতি বছরের ৯ মে। ওইদিন রাজস্থানের লক্ষ্মণগড়ে এক আত্মীয়ের তত্ত্বাবধানে ওই শিশুকে রেখে বাইরে গিয়েছিলেন তার বাবা-মা। সেইসময়েই আসামী ১৯ বছরের পিন্টু তাকে নিয়ে যায়। ফিরে এসে সন্তানের খোঁজ করতে গিয়ে সেকথা জানতে পারেন তাঁরা। শেষ পর্যন্ত বাড়ি থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দূরে একটি ফুটবল মাঠে তাকে পাওয়া যায়।

    শিশুটি প্রচন্ড কাঁদছিল। সন্দেহ হওয়ায় তাকে আলওয়ারের এক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত হয়। গ্রেফতার করা হয় পিন্টুকে। ২০ দিন চিকিৎসার পর সুস্থ হয় শিশুটি। উন্নাও কাণ্ডের পর নাবালিকা ধর্ষণের আইন কঠোর করেছিল কেন্দ্র।

    English summary
    A 19-year-old man has been given the death sentence for raping a seven-month-old child at an Alwar SC/ ST court in Rajasthan. It is the first instance of the death penalty being awarded to a rapist under the tougher law against sexual abuse passed by the Rajasthan.

    Oneindia - এর ব্রেকিং নিউজের জন্য
    সারাদিন ব্যাপী চটজলদি নিউজ আপডেট পান.

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Oneindia sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Oneindia website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more