• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

'বড় নাম আড়াল করা হচ্ছে', সিবিআই বনাম সিবিআই মামলা নিয়ে আদালত কক্ষে উত্তেজিত পরিস্থিতি

মামলা ঘুষ কাণ্ড নিয়ে। আর সেই প্রেক্ষিতে সিবিআইয়ের দুই তদন্তকারী অফিসারের তর্কাতর্কি বিশেষ আদালত কক্ষে উত্তেজিত পরিস্থিতির তৈরি করে। আর তার মধ্যে দিয়েই উঠে আসে একাধিক বিস্ফোরক তথ্য। সিবিআই বনাম সিবিআই-এর এই হাইপ্রোফাইল আইনি যুদ্ধে একাধিক নামী কর্তারা অভিযুক্তের তালিকায় রয়েছেন। আর সেই মামলাতেই এবার উঠল ' বড় নাম' দের আড়াল করার তত্ত্ব।

প্রাক্তন ও বর্তমান তদন্তকারী অফিসারের তর্ক

প্রাক্তন ও বর্তমান তদন্তকারী অফিসারের তর্ক

মামলার শুনানির সময়, প্রাক্তন তদন্তকারী অফিসার একে বাস্সি দাবি তোলেন মামলার বর্তমান তদন্তকারী অফিসার সতীশ ডাগর এই মামলায় বড় নামদের আড়াল করার চেষ্টায় রয়েছেন। ঘুষকাণ্ডে যে নামগুলি ২০১৮ সালের তদন্তে উঠে আসে, তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদই করেননি বর্তমান তদন্তকারী অফিসার।

পাল্টা দাবিতে, অনুপস্থিতির প্রসঙ্গ

পাল্টা দাবিতে, অনুপস্থিতির প্রসঙ্গ

এরপরই পাল্টা দাবিতে বর্তমান তদন্তকারী অফিসার ডাগর বলেন, তিনি ৬ বার এই মামলায় প্রাক্তন তদন্তকারী অফিসার বস্সি কে ডেকেছিলেন। তবে তিনি অনুপস্থিত ছিলেন। আর এই অনুপস্থিতি কেন ? তা নিয়ে তিনি প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন, গোটা বিষয়টিকে ব্যক্তিগত স্তরে নিয়ে যাচ্ছেন বস্সি।

 গোটা ঘটনার সূত্রপাত কোথা থেকে?

গোটা ঘটনার সূত্রপাত কোথা থেকে?

ঘটনার সূত্রপাত ২০১৭ সালে হায়দরাবাদের এক মাসং রপ্তানীকারী মইন কুরেশিকে ঘিরে। যার ঘনিষ্ঠ বন্ধু সতীশ সানা গ্রেফতার হয় ইডির হাতে। আর সতীশ তৎকালীন সিবিআই স্পেশ্যাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেন। রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে ঘুষের মামলায় তদবন্ত শুরু হয়। সেই সময় ক্লিনচিট পেয়ে যান রাকেশ।

কেন রাকেশ আস্থানা মামলায় লাই ডিটেক্টর ব্যবহার হয়নি?

কেন রাকেশ আস্থানা মামলায় লাই ডিটেক্টর ব্যবহার হয়নি?

এমন হাইপ্রোফাইল ঘুষ মামলায় রাকেশ আস্থানা ক্লিনচিট পেলেও মামলা চলছে ঘুষ কাণ্ডের অন্তরালে থাকা বহু নাম ঘিরে। আর সেই মর্মেই বিশেষ আদালত দুই তদন্তকারী অফিসারকে প্রশ্ন করে যে, রাকেশের বিরুদ্ধে কেন লাই ডিটেক্টর বা মানসিকভাবে চাপে ফেলে জেরা হয়নি? মামলায় দুই সিবিআই অফিসারকে ফের আলাদা আলাদা ডেকে শুনানির কথা জানিয়েছে আদালত।

সিবিআইয়ের তরফে কী জানানো হয়েছে আদালতকে?

সিবিআইয়ের তরফে কী জানানো হয়েছে আদালতকে?

সিবিআইয়ের আইনজীবীকে রাকেশ আস্থানা সম্পর্কে আদালত প্রশ্ন করে যে , রাকেশ আস্থানার নেটওয়ার্ক কলের রেকর্ড থাকলেও, হোয়াটসঅ্যাপ কলের রেকর্ড কি রয়েছে? রাকেশের থেকে কি কোনও ইলেকট্রনিক জিনিস সংগ্রহ করা হয়েছে? এমনকি আদালতের প্রশ্ন জেরায় রাকেশের সামনে কি মনোজ প্রসাদ , সোমেশ্বর প্রসাদকে বসানো হয়েছে? যার উত্তরে সিবিআই জানিয়েছে 'আমরা জেরা করেছি, তবে মুখোমুখি বসাইনি।' গোটা পর্বের একটি অন্যদিক হল, সিবিআইয়ের স্পেশ্যাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা বনাম সিবিআই ডিরেক্টর অলোক বর্মার বিবাদ। যার জেরে মামলায় হস্তক্ষেপ করে সরকার।

কাজ শুরু হতেই ফের ফাটল দেখা দিল বউবাজার এলাকায়, আতঙ্কে এলাকাবাসী

English summary
CBI vs CBI in Delhi court, Judges rebukes Officers , know the details .
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X