• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

‌২১ দিন গৃহবন্দী, আতঙ্কিত হবেন না, মেনে চলুন মনোবিদদের পরামর্শ

করোনা ভাইরাস বা কোভিড–১৯–এর বাড়বাড়ন্ত দেখে মঙ্গলবারই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছেন। বর্তমানে ভারতে কমপক্ষে ৬৫৯ জন করোনাতে আক্রান্ত হয়েছেন এবং মৃতের সংখ্যা ১৬। সংক্রমণের এই চেন ভাঙতে ও এই রোগকে নিয়ন্ত্রণ করতে লকডাউনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। অনেকেই আছেন যাঁরা তাঁদের পরিবার–প্রিয়জন থেকে অনেকটা দূরে রয়েছেন এবং এই মুহূর্তে ফিরতে পারছেন না। স্বাভাবিকভাবে এই মহামারির জেরে তাঁদের মনে অনিশ্চয়তা ও আতঙ্ক কাজ করছে।

অনেকেই আছেন যাঁরা কর্মসূত্রে বাইরে থাকেন এবং পরিবার থেকে আলাদা। একাই হয়ত থাকেন তাঁরা এবং এখন একেবারেই ঘরের মধ্যে আটকা পড়ে রয়েছেন। অফিস যাওয়া, আড্ডা মারা বন্ধু ও সহকর্মীদের সঙ্গে এবং জনবহুল এলাকায় সকলের সঙ্গে দেখা করা রোজের এই জীবনযাত্রা এখন একেবারেই বন্ধ। যদিও এটা সাময়িককালের জন্যই। কিন্তু তাও এই পরিস্থিতি অনেকের মধ্যেই দুশ্চিন্তা এনে দিয়েছে। তাই এই ২১ দিনে ভয় বা াথঙ্কিত না হয়ে চিকিৎসক ও মনোবিদদের পরামর্শমতো চলুন।

কথা বলুন চিকিৎসক বা মনোবিদের সঙ্গে

কথা বলুন চিকিৎসক বা মনোবিদের সঙ্গে

অনেকেই রয়েছেন যাঁরা এখন বাড়িতে বসে অনলাইনে কাজ করছেন। কিন্তু এই সময় অনেক দুশ্চিন্তাও মাথায় ঘোরাঘুরি করছে। মনোবিদরা এই সময় সাধারণ কিছু জিনিস করার উপদেশ দিয়েছেন। অফিসের কাজ করার সময়ও অনেকটা ব্রেক নিয়ে নিন। কাজের চাপের পাশাপাশি আর কোনও বাড়তি চাপ নেবেন না। যেটা করতে ভালোবাসেন সেটাই করুন। আমরা প্রায়শই এই বিষয়টি আঁকড়ে থাকি যে আমাদের কাছে অন্য কাজ করার সময় নেই। তাই এখন সময় পেয়েছেন নিজের শখগুলি পূরণ করুন। নিজের বিনোদনের জন্য কিছুটা সময় বের করুন। বিশ্রাম নেওয়ার উপায় হিসাবে আপনি প্রাণায়াম করতে পারেন। যদি কিছু আপনার মনে খটকা দেয় বা কোনও কিছুতে ভয় পান তবে কথা বলুন আপনার কাছের কারোর সঙ্গে অথবা অনলাইনেও মনোবিদদের পরামর্শ নিতে পারেন। ভালো উপায় হল সোশ্যাল মিডিয়ামে কথা বলা।

আতঙ্কিত হবেন না, প্রতিরোধ ক্ষমতায় প্রভাব ফেলে

আতঙ্কিত হবেন না, প্রতিরোধ ক্ষমতায় প্রভাব ফেলে

অন্য এক মনোবিদের মতে, পরিবার থেকে যাঁরা দূরে একা রয়েছেন তাঁরা সত্যিই চাপে আছেন। আর এই চাপের কারণেই হাল্কা জ্বরের উপসর্গ, যা কোভিড-১৯-এরও উপসর্গ, তা দেখা দিতে পারে। তাই আতঙ্কিত হবেন না আর এখন চিন্তা করবেন না। কারণ এটা আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতায় প্রভাব ফেলবে। একটা ভালো ঘুমের দরকার রয়েছে এই সময় আপনার, নয়ত আপনার জীবনচক্র ব্যাহত হবে, যা আপনাকে ক্লান্তি এনে দেবে। এরপর আধঘণ্টা শরীরচর্চা করা খুব জরুরি। তাই স্কিপিং করুন, জাম্পিং জ্যাকস করুন বাড়িতে ঘুরে ঘুরে। মানুষের সঙ্গে কথা বলুন এবং কোভিড-১৯-এর গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি শুধু পড়ুন। নিজের যে কোনও একটি শখ পূরণ করুন। গার্ডেনিং বা নতুন কোনও রান্নাও করতে পারেন। এগুলি আপনার চাপ কমাতে সাহায্য করবে। এছাড়াও প্রাণায়াম, গভীরভাবে শ্বাস নেওয়ার ব্যায়াম বা পেশির বিশ্রাম সংক্রান্ত ব্যায়ামও আপনাকে ভালো রাখবে।

কাট অফ হয়ে যাওয়ায় চিন্তা নেই

কাট অফ হয়ে যাওয়ায় চিন্তা নেই

অনেক বিশেষজ্ঞরাই মনে করছেন, বিশ্বজুড়ে এখন অচল অবস্থা চলছে। তাই এখন বন্ধু ও পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা অত্যন্ত জরুরি। সবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে এখন অনেকের মনেই দুশ্চিন্তা দানা বাধতে পারে। তাই এখন যেটা করতে হবে তা হল হোয়াটস অ্যাপ ও ফোনের মাধ্যমে আপনার প্রিয়জনদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখুন। এটা যেহেতু বেশ অনেক দিনের দীর্ঘ আইসোলেশন তাই নিজের কোনও শখ বেছে নিয়ে তাকে নিয়েই থাকুন কয়েকটা দিন। কোভিড-১৯-এর যে কোনও খবর দেখেই অযথা আতঙ্কিত হয়ে পড়বেন না। এখন জমিয়ে শরীর চর্চা করুন এবং খুশিতে থাকুন।

নিজের রুটিন মেনে চলুন

নিজের রুটিন মেনে চলুন

অনেকেই জানিয়েছেন যে মানুষ আগে কখনও এ ধরনের পরিস্থিতির মুখোমুখি হননি, যেখানে সামাজিকভাবে সব যোগাযোগ বিচ্চিন্ন। তাই এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল নিজের রোজকার রুটিনকে বজায় রাখা। আপনি যখন অফিসে যেতেন তখন একটা রুটিন আপনি অনুসরণ করতেন, সেটা এখনও অনুসরণ করুন। নয়তো আপনার ঘুমের চক্রের ক্ষতি হবে যা আপনার মানসিক স্বাস্থকে বিরক্ত করবে। আপনি যেহেতু এখন ঘরবন্দী রয়েছেন তাই শরীরচর্চাও সীমিত রয়েছে। কিন্তু শরীরচর্চা বন্ধ রাখবেন না। তা যদি করেন তবে আপনি আরও অবসাদগ্রস্ত হয়ে যাবেন। স্ট্রেচিং বা যোগব্যায়াম করতেই পারেন। ভিডিও কলস, চ্যাট ও ফোনের মাধ্যমে সমাজিকভাবে যুক্ত থাকুন। এটা সবসময়ই মনে রাখতে হবে যে এই পর্যায়টা সাময়িককালের, সারা জীবনের নয়। আবার সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

করোনা সতর্কতায় মুখ্যমন্ত্রীর লেখা গান, গাইলেন ইন্দ্রনীল সেন
ইতিবাচক ও শান্ত থাকুন

ইতিবাচক ও শান্ত থাকুন

আর এক মনোবিদ জানিয়েছেন যে প্রথমেই যেটা করতে হবে তা হল আপনাকে ইতিবাচক হতে হবে ও শান্ত থাকতে হবে। পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে সবাইকে পদক্ষেপ করতে হবে। যেমন একটা কয়েনের দুটো দিক রয়েছে, এই পরিস্থিতিও খানিকটা সেরকম। মনোবিদরা যখনই কারোর সঙ্গে কথা বলেন তো তাঁরা জানান যে তাঁদের কাছে সময় নেই। তাই এখন নিজেদের জন্য অনেকটা সময় পাওয়া গিয়েছে। যেটা করতে ভালোবাসেন এখন সেটাই করুন। ইউটিউব দেখে নানা ধরনের শরীরচর্চা, নতুন নতুন রান্না বা রোজ প্রাণায়াম করুন। প্রচুর বই পড়ুন বা লিখতে ভালোবাসলে তাও করতে পারেন। এমন এক বন্ধু বা পরিবারের সদস্যের সঙ্গে কথা বলুন যাঁর সঙ্গে হয়ত দীর্ঘদিন কথা হয়নি। পুরনো দিনের স্মৃতিগুলিকে ফের একবার দেখুন। গান শুনুন, নাচ করুন, মোদ্দা কথা ভালো থাকুন এই সময়।

English summary
However, along with the lockdown, a feeling of uncertainty and panic has also taken over the country. Especially for those who live away from their families.
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X