• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

বিরল পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ, আকাশে দেখা যাবে রক্তিম চাঁদ, জেনে নিন অজানা তথ্য

Google Oneindia Bengali News

উত্তর আমেরিকার স্কাইগ্যাজাররা জানিয়েছে, ১৫–১৬ মে রাতে আকাশে দেখা যাবে রক্তজবা চাঁদ। প্রসঙ্গত, শেষ পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণের প্রায় এক বছর পরে, পৃথিবীর ছায়ায় চলে আসা চাঁদের দৃশ্য আবার ফিরে আসতে চলেছে এবং পুরো আকাশকে অন্য এক জাগতিক দৃশ্য দেবে।

কোথা থেকে দেখা যাবে কতক্ষণের জন্য

কোথা থেকে দেখা যাবে কতক্ষণের জন্য

বছরের প্রথম পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে উত্তর আমেরিকার অধিকাংশ এলাকা থেকে, ল্যাটিন আমেরিকা, পশ্চিম ইউরোপ, আফ্রিকার অধিকাংশ এবং পূর্ব প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে। এইসব এলাকায় ১৫ মে-এর সন্ধ্যা থেকে ১৬ মে ভোর পর্যন্ত চাঁদকে দেখা যাবে অন্ধকার এবং একটি লালচে আভা চাঁদ থেকে বেরোতে দেখবে সকলে। চাঁদ পৃথিবীর ছায়ার দক্ষিণ অর্ধেকের মাধ্যমে একটি গতিপথ অঙ্কন করবে এবং যা পঁচাশি মিনিটের জন্য চূড়ান্ত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। অর্ধেক-গ্রহণ হবে ১৬ মে (‌ভোর ৪টে ১২ মিনিটে)‌, চাঁদের পৃথিবীর কাছে থাকা কক্ষপথে পৌঁছতে এক থেকে দেড়দিন সময় লাগবে। গ্রহণের রাতে চাঁদ যখন পৃথিবী থেকে সবচেয়ে দূরে থাকবে তখন তাকে ১২ শতাংশ বড় মনে হবে। সব সম্ভাবনা নিয়েই এইদিন চাঁদকে দেখা যাবে আকাশে। ১৫-১৬ মে গ্রহনটি মোটামুটি অন্ধকার হতে পারে, তবে চাঁদের দক্ষিণ অংশ বরাবর কিছুটা উজ্জ্বল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কোন জায়গা থেকে কখন দেখা যাবে গ্রহণ

কোন জায়গা থেকে কখন দেখা যাবে গ্রহণ

দর্শকরা গ্রীষ্মকালীন ছায়াপথকে গ্রহণের সময় সুন্দরভাবে জ্বলতে দেখার সম্ভাবনা রয়েছে কারণ পূর্ণ চাঁদের অপ্রতিরোধ্য উজ্জ্বলতা পৃথিবীর ছায়া দ্বারা ম্লান হয়ে যায়। গ্রহণের পর্যায় সকলের জন্য একই সঙ্গে ঘটলেও সকলে পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ দেখার সুযোগ পাবেন না। জ্যোর্তিবিজ্ঞানীদের মতে, উত্তর আমেরিকার পূর্বদিকের অর্ধেক অঞ্চলে ১৫ মে সন্ধ্যায় শুরু হওয়া গ্রহণ প্রত্যক্ষ করতে পারবে, আংশিক গ্রহণ পর্বটি পূর্ব উপকূলে সূর্যাস্তের প্রায় দুই ঘন্টা পরে এবং মধ্য-পশ্চিমে সূর্যাস্তের প্রায় এক ঘন্টা পরে শুরু হবে। পশ্চিম উপকূলে, সূর্যাস্তের চারপাশে উদিত হওয়ার সাথে সাথে চাঁদ সম্পূর্ণরূপে দেখা দেবে এবং উত্তর-পশ্চিমে, চাঁদ উঠবে কারণ গ্রহনের পরবর্তী ধাপগুলি ইতিমধ্যেই চলছে। যদিও আলাস্কার অধিকাংশ জায়গায় এটা দেখা দেবে।

 ১৫ ও ১৬ মে কোথা থেকে দেখা যাবে

১৫ ও ১৬ মে কোথা থেকে দেখা যাবে

পুরো গ্রহণ দেখার সুযোগ পাবে দক্ষিণ আমেরিকা, যা ১৫ মে থেকে শুরু হবে, অন্যদিকে পশ্চিম ইউরোপ ও আফ্রিকাকে ১৬ মে গ্রহণ দেখার জন্য অ্যালার্ম লাগিয়ে রাখতে হবে। ব্রিটিশ দ্বীপপুঞ্জের পর্যবেক্ষকদের জন্য, চাঁদ পৃথিবীর অন্ধকার, অভ্যন্তরীণ ছায়ায় সম্পূর্ণ নিমজ্জিত হওয়ার সাথে সাথে অস্ত যাবে, যেখানে নিউজিল্যান্ডের দর্শকরা ১৬ মে সন্ধ্যায় গ্রহণের শেষ পর্যায়, যখন চাঁদ পৃথিবীর ছায়া থেকে বেরিয়ে আসছে, সেটা দেখতে পারবে।

চন্দ্রগ্রহণের কারণ

চন্দ্রগ্রহণের কারণ

চন্দ্রগ্রহণ তখনই হয় যখন সূর্য, পৃথিবী ও পূর্ণ চাঁদ একই সরলরেখায় চলে আসে। চাঁদ পৃথিবীর ছায়ায় চলে যায়, ধীরে ধীরে অন্ধকার হয়ে যায়, যতক্ষণ না পুরো চন্দ্র বৃত্তাকার রূপোলি ধূসর থেকে একটি ভয়ঙ্কর আবছা কমলা বা লালে পরিণত হয়। তারপরে ঘটনাগুলি বিপরীত ক্রমে উন্মোচিত হয়, যতক্ষণ না চাঁদ পূর্ণ উজ্জ্বলতায় ফিরে আসে। ১৬ মে গ্রহনের পুরো প্রক্রিয়াটি প্রায় পাঁচ ঘন্টা ২০ মিনিট সময় নেবে।

পাঁচটি পর্যায় চলবে এই গ্রহণ, প্রত্যেক পর্যায়ে হবে আলাদা জিনিস

পাঁচটি পর্যায় চলবে এই গ্রহণ, প্রত্যেক পর্যায়ে হবে আলাদা জিনিস

১) চাঁদের অগ্রবর্তী প্রান্তটি পৃথিবীর ছায়ার ফ্যাকাশে বাইরের প্রান্তে প্রবেশ করে‌।

চাঁদ পেনুম্ব্রা জুড়ে প্রায় অর্ধেক না হওয়া পর্যন্ত আপনি সম্ভবত কিছুই লক্ষ্য করবেন না। পেনুম্ব্রা হল সেই অঞ্চল যেখানে চাঁদে দাঁড়িয়ে থাকা একজন নভোচারী পৃথিবীকে সূর্যের একটি অংশ দ্বারা ঢাকা দেখতে পারে।

২)‌ চাঁদের শীর্ষপ্রান্তটি পৃথিবীর ছায়ার ত্রিকোণে প্রবেশ করে, যেখানে সূর্য একেবারে লুকিয়ে থাকে। চাঁদের বৃত্তাকারের শীর্ষ প্রান্তের নাটকীয় অন্ধকার জায়গাটি আপনি দেখতে পারবেন।

৩) পূর্ণগ্রহণের সূচনার জন্য চাঁদের পিছন দিকের প্রান্তটি পৃথিবীর ত্রিকোণে চলে যাবে। কিন্তু চাঁদ পুরোপুরি কালো হয়ে যাবে না। এটা নিশ্চিত যে তীব্র কমলা বা লালের কিছু ছায়া উজ্জ্বল হবে।‌ এটা কেন হয়?‌ চাঁদের নিজস্ব আলো নেই। ফলে চাঁদ যখন পৃথিবীর ছায়ায় ঢেকে যায় তখন সূর্যে আলো পড়ে না। অন্ধকারে চলে যাবে উপগ্রহটি। চাঁদ কখনওই সম্পূর্ণ কালো হয় না। তাই কখনও কখনও পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণকে লাল বা রক্তাক্ত চাঁদও বলা হয়।

এখন প্রশ্ন, সব রং থাকতে লালই কেন? সূর্যের আলোয় তো সব ধরনের রংই আছে। পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে উপস্থিত গ্যাসের কারণে আকাশ নীলচে দেখায়। অন্যদিকে, লাল রঙের তরঙ্গদৈর্ঘ্য তা অতিক্রম করতে সক্ষম। একে বলা হয় রেলিশ স্ক্যাটারিং। সেই জন্য নীল আকাশে সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত লাল রঙের হয়ে থাকে। চন্দ্রগ্রহণের সময় একটি লাল তরঙ্গদৈর্ঘ্য পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের মধ্য দিয়ে যায়। কিন্তু তা ধাক্কায় আবার ফিরে যায়। এর ফলে নীল ফিল্টার হয়ে লাল দেখায়।

৪)‌ চাঁদ যখন তার কক্ষপথে চলতে থাকে, ঘটনাগুলি বিপরীত ক্রমে পুনরায় হয়। চাঁদের প্রান্তটি সূর্যের আলোতে পুনরায় আবির্ভূত হয়, সম্পূর্ণ গ্রহণ শেষ করে এবং আবার একটি আংশিক গ্রহণ শুরু করে।

৫) যখন পুরো চাঁদ উম্ব্রা (‌পৃথিবীর ত্রিকোণার জায়গা)‌ থেকে চলে যায়, শুধুমাত্র শেষ পেনুম্ব্রাল ছায়ানবাকি তাকে। কিছু সময় পর, কোনও অস্বাভাবিকতা থাকে না। ‌

বুদ্ধ পূর্ণিমায় চন্দ্রগ্রহণ, খুলবে এই তিন রাশির ভাগ্যের তালা বুদ্ধ পূর্ণিমায় চন্দ্রগ্রহণ, খুলবে এই তিন রাশির ভাগ্যের তালা

English summary
rare full lunar eclipse blood moon can be seen in the sky find out unknown information
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X
Desktop Bottom Promotion