• search
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts
Oneindia App Download

জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুযায়ী, কোন বয়সে আপনার ভাগ্য উজ্জ্বল হবে জেনে নিন এখনই

Google Oneindia Bengali News

মানুষ সফলতার জন্য দিনরাত পরিশ্রম করে। প্রত্যেকেই চায় তার কঠোর পরিশ্রমের প্রতিফল হোক, সে সম্মান, সম্পদ ও সমৃদ্ধি লাভ করুক, তার ইচ্ছা পূরণ হোক এবং জীবনে কোনো কিছুর অভাব না থাকুক। এছাড়াও, লোকেরা চায় যে জীবনে কোনও দুঃখ-কষ্ট না থাকুক এবং প্রতিটি পদক্ষেপে ভাগ্য রয়েছে। প্রায়শই চারপাশে এমন ব্যক্তিদের দেখা যায় যাঁরা সারা জীবন কঠোর পরিশ্রম করেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও তাঁদের সংগ্রামের মুখে পড়তে হয়। ছোট ছোট ইচ্ছাও পূরণ করা যায় না। বিপরীতে, কিছু মানুষ আছে যারা কম পরিশ্রমের পরেও তাদের স্বপ্ন এবং ইচ্ছাগুলি সহজেই পূরণ করে। মনে হয় ঈশ্বর নিজেই তাদের জন্য আছেন। উভয় পরিস্থিতিতেই একটি জিনিস রয়েছে যা জীবনে সাফল্য বা ব্যর্থতার দিকে নিয়ে যায়, আর তা হল কোনও ব্যক্তির ভাগ্যফল।

জন্মছকের নবম ঘর

জন্মছকের নবম ঘর

জ্যোতিষশাস্ত্র অনুসারে, জন্মছকের ১২টি ঘরই যে কোনও ব্যক্তির জীবনে বিভিন্ন ফল প্রদানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তবে রাশিফলের নবম ঘর ব্যক্তির ভাগ্য সম্পর্কে অনেক কিছু বলতে পারে, কারণ নবম ঘরটি ভাগ্যের ঘর। সুতরাং, নবম ঘরে উপস্থিত গ্রহগুলি একজন ব্যক্তির ভাগ্যের সময়কাল সম্পর্কে বলতে পারে। এই বাড়িতে কিছু গ্রহের প্রভাব ছোটবেলা থেকেই কিছু লোকের জন্য অনুকূল ভাগ্য দিতে কাজ করে, আবার কিছু গ্রহের প্রভাবে ৩৫ বছর বয়সের পরেও অনেক মানুষের ভাগ্য উজ্জ্বল করে।

 নবম ঘরে ভাগ্য উজ্জ্বল

নবম ঘরে ভাগ্য উজ্জ্বল

জ্যোতিষশাস্ত্র অনুসারে, জন্মছকে নবম ঘরের অধিপতি কোন গ্রহ, ব্যাস এইটুকে দেখলেই সেই ব্যক্তির ভাগ্য সম্পর্কে এক প্রচ্ছন্ন ধারণা লাভ করা সম্ভব হয়। আসলে নবম ঘরে স্থাপিত গ্রহগুলি দেখে ব্যক্তির জন্য সম্পদ, সুখ এবং সমৃদ্ধির সময়কাল গণনা করা হয়ে থাকে। এই গণনা থেকেই স্পষ্ট বলা যেতে পারে যে কবে একজন মানুষের ভাগ্য উজ্জ্বল হবে। জেনে নেওয়া যাক জন্মছকের গতিবিধি অনুযায়ী, কীকরে বোঝা যায় যে কবে বা কতবছর বয়সে কোনও মানুষের ভাগ্য উজ্জ্বল হয়ে উঠতে পারে।

 কত বছরে ভাগ্য উজ্জ্বল?

কত বছরে ভাগ্য উজ্জ্বল?

জ্যোতিষীদের মতে, বৃহস্পতি যখন নবম ঘরে অর্থাৎ কোনও রাশির ভাগ্য ঘরে অবস্থান করে, তখন মাত্র ১৬ বছর বয়সের পর থেকেই সেই ব্যক্তির ভাগ্যকে উজ্জ্বল করে। যদি জন্মছকের নবম স্থানে গ্রহের অধিপতি সূর্য অবস্থান করেন, তবে সেই মানুষের ২২ বছর বয়সের পর থেকেই ভাগ্য উজ্জ্বল হয়। চন্দ্র যখন ছকের নবম ঘরে থাকে, তখন ২৪ বছর বয়সের পর থেকে সেই ব্যক্তির ভাগ্য উজ্জ্বল হয়। জন্ম তালিকার নবম ঘরে শুক্রের উপস্থিতি মানে ২৫ বছর বয়সের পর থেকে সেই ব্যক্তির ভাগ্য উজ্জ্বল হয়। নবম ঘরে মঙ্গল থাকলে ২৮ বছর বয়সের পর থেকে সেই জাতকের জন্য সৌভাগ্যের সম্ভাবনা বাড়বে। নবম ঘরে বুধ অবস্থিত হলে ৩২ বছর বয়সের পর থেকে সেই জাতক জাতিকার অনুকূল ভাগ্য নির্দেশ করে। যদি শনি নবম ঘরে অবস্থিত, তবে ৩৬ বছর বয়সের পর থেকে ভাগ্য পরিবর্তন হয়। নবম ঘরে রাহু বা কেতুর উপস্থিতি ৪২ বছর বয়সের পর থেকে সেই ব্যক্তির জন্য সৌভাগ্যের সম্ভাবনা নিয়ে আসে।

গ্রহের অবস্থানে ভাগ্য উজ্জ্বল

গ্রহের অবস্থানে ভাগ্য উজ্জ্বল

শনি বা বৃহস্পতি যখন নিজের ঘর থেকে পিছিয়ে জন্মছকের নবম ঘরে অবস্থান করে, তখন ভাগ্য উজ্জ্বল করে এবং শুভ ফল দেয়। রাশিফলের অধিকাংশ গ্রহ যখন তৃতীয় বা দশম ঘরে থাকে, তখন এমন ব্যক্তিকে ভাগ্যবানও মনে করা হয়। কারণ এই ধরনের মানুষ জীবনে দ্রুত সফলতা পান। যদি বৃহস্পতি একটি রাশিতে শনির পরবর্তী ঘরে উপস্থিত থাকে, তবে এই অবস্থা একজন ব্যক্তিকে ২২ বছর বয়সের পর থেকেই আত্মনির্ভরশীল করে তোলে এবং অর্থনৈতিক সুযোগের দরজা খুলে দেয়। যদি একটি রাশিতে, বৃহস্পতি মেষ রাশিতে থাকে, মঙ্গল তার উচ্চ রাশিতে থাকে মকর রাশিতে এবং শুক্র ধনু রাশিতে নবম ঘরে থাকে তবে এই জাতীয় ব্যক্তি তার কর্মজীবনে দুর্দান্ত উচ্চতা অর্জন করেন। এই ধরনের মানুষদের জীবনে কখনো সুখের অভাব হয় না। যদি সূর্য ও চন্দ্র কর্কট রাশিতে থাকে অর্থাৎ রাশির চতুর্থ ঘরে, শুক্র বৃশ্চিক রাশিতে অর্থাৎ অষ্টম ঘরে এবং মঙ্গল কুম্ভ রাশিতে অর্থাৎ একাদশ রাশিতে থাকে, তাহলে এই ধরনের ব্যক্তি অনেক পার্থিব সুখ লাভ করে। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে সাফল্য পান।

(এই সকল তথ্য সম্পূর্ণ জ্যোতিষ শাস্ত্রের উপর নির্ভরশীল)

এইসব সামান্য উপায় নিয়মিত পালন করলেই সন্তুষ্ট হন শনিদেব, দূর হয় সব বিপত্তি এইসব সামান্য উপায় নিয়মিত পালন করলেই সন্তুষ্ট হন শনিদেব, দূর হয় সব বিপত্তি

English summary
find out at what age your luck will be bright
চটজলদি খবরের আপডেট পান
Enable
x
Notification Settings X
Time Settings
Done
Clear Notification X
Do you want to clear all the notifications from your inbox?
Settings X