Oneindia থেকে ব্রেকিং নিউজের আপডেট পেতে

সারাদিন ধরে চটজলটি নিউজ আপডেট পান

You can manage them any time in browser settings

ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করে, প্রতিবাদী বাবাকে পিটিয়ে গ্রেফতার গৃহশিক্ষক

  • Posted By:
Subscribe to Oneindia News

কলকাতা, ৩ অগাস্ট : প্রথমে নিজের কাছে পড়তে আসা ছাত্রীর শ্লীলতাহানি ও পরে ছাত্রীর বাবা তার প্রতিবাদ করায় তাঁকে বাঁশ দিয়ে পেটানোর অভিযোগে গ্রেফতার এক গৃহশিক্ষক। ঘটনায় শিক্ষক সহ দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ['হাতি'-র ইংরেজি বানান লিখতে ব্যর্থ মন্ত্রীমশাই!]

জানা গিয়েছে, ঘটনাটি ঘটেছে নদিয়ার গাংনাপুর থানার অন্তর্গত মাঝেরগ্রামে। দশম শ্রেণির ছাত্রীটি গৃহশিক্ষকতা করা অমিত দেবনাথ (৬৫) নামে অভিযুক্তের কাছে পড়তে যেত। সেখানেই ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করা হয় বলে অভিযোগ। [শিক্ষকের চেয়ে ড্রাইভারের মাস মাইনে বেশি স্কুলে!]

কলকাতা, ৩ অগাস্ট : প্রথমে নিজের কাছে পড়তে আসা ছাত্রীর শ্লীলতাহানি ও পরে ছাত্রীর বাবা তার প্রতিবাদ করায় তাঁকে বাঁশ দিয়ে পেটানোর অভিযোগে গ্রেফতার এক গৃহশিক্ষক। ঘটনায় শিক্ষক সহ দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জানা গিয়েছে, ঘটনাটি ঘটেছে নদিয়ার গাংনাপুর থানার অন্তর্গত মাঝেরগ্রামে। দশম শ্রেণির ছাত্রীটি গৃহশিক্ষকতা করা অমিত দেবনাথ (৬৫) নামে অভিযুক্তের কাছে পড়তে যেত। সেখানেই ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করা হয় বলে অভিযোগ। ছাত্রীর পরিবারের দাবি, নিগৃহীতা ছাত্রীর সঙ্গে নিজের ছবি ফেসবুকে আপলোড করে ওই শিক্ষক। তা নিয়ে প্রতিবাদ করতে গেলে ছাত্রীর বাবাকে বাঁশ দিয়ে ফেলে পেটানো হয়। অভিযুক্ত শিক্ষককে সঙ্গ দেয় তার ভাই প্রভাত দেবনাথ। পুলিশে অভিযোগ জানানো হলে দুই অভিযুক্তকেই গ্রেফতার করা হয়েছে। গোটা ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ছাত্রীর পরিবারের দাবি, নিগৃহীতা ছাত্রীর সঙ্গে নিজের ছবি ফেসবুকে আপলোড করে ওই শিক্ষক। তা নিয়ে প্রতিবাদ করতে গেলে ছাত্রীর বাবাকে বাঁশ দিয়ে ফেলে পেটানো হয়। অভিযুক্ত শিক্ষককে সঙ্গ দেয় তার ভাই প্রভাত দেবনাথ। ['গরু' রচনা লিখতে ব্যর্থ শিক্ষক]

পুলিশে অভিযোগ জানানো হলে দুই অভিযুক্তকেই গ্রেফতার করা হয়েছে। গোটা ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। [স্কুলের মাইনে না দেওয়ায় ৭ বছরের বালককে পিটিয়ে খুন করল শিক্ষক]

English summary
Private tuitot molested teen girl, fathar protested and get thrashed in Nadia, West Bengal
Please Wait while comments are loading...