Oneindia থেকে ব্রেকিং নিউজের আপডেট পেতে

সারাদিন ধরে চটজলটি নিউজ আপডেট পান

You can manage them any time in browser settings

পাহাড়ে নিষিদ্ধ ইন্টারনেট, নেপাল-ভূটান-এর লিঙ্কই হাতিয়ার মোর্চার

  • Written By: Dibyendu
Subscribe to Oneindia News

গোর্খাল্যান্ড আন্দোলনের মোকাবিলায় জুনের ১৯ তারিখ থেকে পাহাড়ে ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে রাজ্য় সরকার। এই নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে সরব ছাত্র, শিক্ষক, ব্যবসায়ী থেকে সব পেশার মানুষ। মত প্রকাশের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ বলে মনে করছেন তারা। সঙ্গে সঙ্গে দার্জিলিং-এর অবস্থানগত কারণে এই সিদ্ধান্ত কতটা কার্যকরী তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে সব মহলেই।[আরও পড়ুন:রেডিওর গোপন সংকেত ভেঙে গুরুংদের অভিসন্ধি জানার চেষ্টায় পুলিশ]

দার্জিলিং-এর তিন দিকে তিন প্রতিবেশী রাষ্ট্র, নেপাল, ভূটান এবং বাংলাদেশ। বিশেষ করে নেপাল এবং ভূটান থেকে আন্দোলনের সমর্থনে সাহায্য পাচ্ছে গোর্খাল্যান্ড সমর্থনকারীরা। বিশেষ করে ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য নেপাল কিংবা ভূটানের সিমেও ব্যবহার চলছে। কয়েক কিলোমিটারের মধ্যে সীমান্ত হওয়ায় স্থানীয় মানুষ প্রতিবেশী দেশের পরিষেবার ওপরই নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন। প্রত্যেক দিনই প্রায় সব পেশার মানুষ পায়ে হেঁটেই পৌঁছে যাচ্ছেন সীমান্তে।[আরও পড়ুন:সোশ্যাল মিডিয়ায় পাহাড় আন্দোলনের সমর্থনে জোর প্রচার, কী পদক্ষেপ নিচ্ছে রাজ্য]

নিষিদ্ধ ইন্টারনেট, নেপাল-ভূটান লিঙ্কই হাতিয়ার মোর্চার

দার্জিলিং-নেপাল সীমান্তে ২টি চেকপোস্ট রয়েছে। পশুপতি এবং কাঁকরভিটা। যে দুটি পথ দিয়ে সহজেই নেপালে যাওয়া যায়। কোনও কোনও সময় চেকপোস্টের এসএসবির জওয়ানরা পরিচয়পত্র দেখতে চান। এছাড়াও বহু পাহাড়ি পথে একটু কষ্ট করে নেপাল পৌঁছনোর বন্দোবস্তও রয়েছে। মিরিকের কাছে থুরবু এবং ওকটি চাবাগান পেরিয়েও নেপাল পৌঁছে যাচ্ছেন অনেকেই। 
নিষিদ্ধ ইন্টারনেট, নেপাল-ভূটান লিঙ্কই হাতিয়ার মোর্চার

অন্যদিকে, ভূটান যাওয়ার সহজ রাস্তা বিন্দু এবং কালিম্পং-এর টোডে সাংটা গ্রাম। স্থানীয় বাসিন্দারা সহজেই ভূটানের টেন্ডু, শিপসু এবং জেমপং-এ সহজেই যাতায়াত করেন।

মিরিকের এক বাসিন্দা বলছেন, প্রথমে মনে হয়েছিল ২ থেকে ৩ দিনের ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হচ্ছে। কিন্ত যখন তা আরও বাড়ানো হয় তখন মানুষ অধৈর্য্য হয়ে পড়েন। ইন্টারনেট ব্য়বহার করতে ৩ থেকে ৪ কিমি পথ হেঁটে নেপালের ইন্টারনেট পরিষেবা ব্যবহারের দিকেই ঝুঁকে পড়ছেন তারা। 

নিষিদ্ধ ইন্টারনেট, নেপাল-ভূটান লিঙ্কই হাতিয়ার মোর্চার

অন্যদিকে, কালিম্পং-এর পারেনের বাসিন্দারা জলঢাকা নদীর ব্রিজ পেরিয়ে সহজেই ভূটানের ইন্টারনেট পরিষেবা ব্যবহার করতে পারছেন। সীমান্তের এসএসবি জওয়ানরা সব জানেন বলেই জানাচ্ছেন তারা।

ইন্টারনেট থেকে টেলিভিশন চ্যানেল, সবই নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকায় বিপাকে সাধারণ মানুষ। যারা এখনও আন্দোলনে অংশ নেননি তারাও আন্দোলনের আপডেট পেতে পৌঁছে যাচ্ছেন নেপাল কিংবা ভূটান সীমান্তে।

English summary
Local people of Darleeling goes to border to crack the ban on internet
Please Wait while comments are loading...