Oneindia থেকে ব্রেকিং নিউজের আপডেট পেতে

সারাদিন ধরে চটজলটি নিউজ আপডেট পান

You can manage them any time in browser settings

রাতভর বৃষ্টিতে জলমগ্ন কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলি, বিপর্যস্ত জনজীবন

  • By: Oneindia Bengali Digital Desk
Subscribe to Oneindia News

কলকাতা, ৬ সেপ্টেম্বর : নিম্নচাপের প্রভাবে সোমবার রাতভর বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত মহানগর। উত্তর এবং দক্ষিন কলকাতায় বহু এলাকায় জল জমে যাওয়ার ফলে অসুবিধায় পড়তে হয় সাধারণ মানুষকে। পার্ক সার্কাস, বালিগঞ্জ, লালবাজার, ধর্মতলা, ঢাকুরিয়া, উল্টোডাঙ্গা, বালিগঞ্জ, চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউ,তিলজলা, ঠনঠনিয়া, প্রভৃতি এলাকায় জল জমে যাওয়ায় কারণে যানজটের সৃষ্টি হয়। হাওড়া এবং শিয়ালদা স্টেশনে  আপ লাইনে জল জমে যাওয়ার ফলে ট্রেন চলাচল ব্যহত হয়েছে। বেশ কিছু ট্রেন বাতিলও করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

দক্ষিণ কলকাতয় বেশ কয়েকটি কয়েকটি গাছ ভেঙে পড়ায় দুর্ভোগের মধ্যে পড়েন সাধারণ মানুষ। রাস্তাতেও প্রবল যানজট সৃষ্টি হয়। এর ফলে অফিস ফেতর নিত্যযাত্রীরাও অসুবিধায় পড়েন।

রাতভর বৃষ্টিতে জলমগ্ন কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলি, বিপর্যস্ত জনজীবন

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মিউনিখ থেকে ফোন করে পরিস্থিতির খবর নেন। ফোনে মুখ্যমন্ত্রী কতকাতার মেয়র পারিষদ এবং পুর কমিশনারকে পরিস্থিতির গুরুত্ব বুঝে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেন। এই নির্দেশ পাওয়ার পর যে ১৬টি বরো এলাকায় জল জমে গিয়েছিল সেখানে পুরসর্মীরা জল নিকাশির জন্য কাজ শুরু করেন।

হাওড়া পৌরসভার ৮টি ওয়ার্ডে জল জমে যায়। ৯ নম্বর ওয়ার্ডের নোনাপাড়া, টিকিয়াপাড়াতে বহু বাড়ির ভিতরে জল ঢুকে যায়। এছাড়া বালি এবং বেলুড়ের বেশ কিছু এলাকাতে একই ছবি ধরা পড়েছে। রবিবারের প্রবল বৃষ্টিতে কলকাতার পাশাপাশি দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতেও প্রবল বর্ষণের প্রভাব দেখা গিয়েছে। দুর্গাপুর, আসানসোল, বীরভূম, বাঁকুড়া, রানীগঞ্জ, জামুড়িয়ার বিস্তীর্ণ এলাকা এখনও পর্যন্ত জলমগ্ন হয়ে রয়েছে। এর মধ্যে দুর্গাপুর জলাধার থেকে ৩২ হাজার ৫০০ কিউসেক জল ছাড়া হয়েছে। এর ফলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার নিতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। কংসাবতী এবং শালী নদীর জলস্তর অলেকটাই বেড়ে গিয়েছে যার ফলে স্থানীয় এলাকাগুলি প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর মঙ্গলবার দুপুর থেকে কলকাতার আবহাওয়ার পরিস্থিতি উন্নতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

English summary
waterlogged in koklata after heavy rain
Please Wait while comments are loading...