Oneindia থেকে ব্রেকিং নিউজের আপডেট পেতে

সারাদিন ধরে চটজলটি নিউজ আপডেট পান

You can manage them any time in browser settings

নাসায় কোটি টাকা বেতনের জাল দাবি করে পুলিশের থেকেই সংবর্ধনা আদায়, জালে প্রতারক যুবক

  • By: OneIndia Bengali Digital Desk
Subscribe to Oneindia News

ভোপাল, ২৫ সেপ্টেম্বর : মধ্যপ্রদেশ পুলিশ গ্রেফতার করেছে আনসার খান (২০) নামে এক যুবককে। সে দাবি করেছিল, মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসায় সে বার্ষিক ১ কোটি ৮৫ লক্ষ টাকা বেতনের কাজ পেয়েছে। এই বলে সে একটি নকল পরিচয়পত্রও বানিয়েছিল। [নয়া 'কাউন্ট ডাউন' শুরু, পৃথিবীর ধ্বংস ২৮ সেপ্টেম্বর?]

সেই পরিচয়পত্রে মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামার সই ছিল। এমনকী সই ছিল নাসার প্রধান হিসাবে ফিলিপ ডি গর্ডনেরও। তবে গোটা দাবিটাই জাল সেটা পুলিশ জানতে পেরে যাওয়ায় শ্রীঘরে ঠাঁই হয়েছে যুবকের। [মহাকাশে বসবাস যোগ্য ঘর বানিয়ে ফেলল নাসা]

নাসায় কোটি টাকা বেতনের জাল দাবি, পুলিশের জালে প্রতারক যুবক

জানা গিয়েছে, প্রতারক যুবক দ্বাদশ শ্রেণি পাশ। সে দাবি করেছিল নাসার মহাকাশ ও খাদ্য প্রকল্পে সে বার্ষিক ১ কোটি ৮৫ লক্ষ টাকা বেতনের চাকরি পেয়েছে। সেজন্য সে মধ্যপ্রদেশের কামালপুরের স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশকেও ডেকে নিজে সংবর্ধনা আদায় করেছিল। এমনকী নিজের স্কুল থেকেও সে সংবর্ধনা পেয়েছিল। [কলকাতায় জাল মার্কশিট চক্র ! মেডিক্যালে ভর্তি হতে এসে ধৃত রাজস্থানের দুই ছাত্রী]

তবে শশীকান্ত শুক্লা নামে এক সিনিয়র পুলিশ আধিকারিককে গলায় নাসার কার্ড ঝুলিয়ে আনসার নিমন্ত্রণ করতে গেলে তাঁর সন্দেহ হয়। তিনি তখন নিজের দফতরকে খোঁজ নিতে বলেন। তখনই উঠে আসে একেরপর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। [ফেসবুকে ইঞ্জিনিয়ারের 'মধু ফাঁদে' পা দিয়ে যৌন শোষণের শিকার মুম্বইয়ের কিশোর]

পুলিশি জেরায় জানা যায়, আনসার খান শুধু জাল পরিচয়পত্রই বানায়নি, নাসার চাকরির নামে অনেক লোকের কাছ থেকে টাকা ধার করেছে। পুলিশ আরও জেনেছে যে, স্থানীয় ফটো স্টুডিওতে গিয়ে গত ১৪ অগাস্ট সে নাসার কার্ড প্রিন্ট করিয়েছে।

আনসারের কীর্তি জানতেন না কেউ। সেজন্য নিজের স্কুলে তো বটেই, স্থানীয় প্রশাসনও বিধায়কে ডেকে সংবর্ধনা দিয়েছে এই প্রতারক যুবককে। পুলিশ আরও জানতে পেরেছে, নাসায় চাকরি তো দূরস্ত, পাসপোর্টই নেই এই যুবকের।

English summary
Madhya Pradesh 20-Year-Old Who Faked Rs. 1.8 Crore Job At NASA Arrested
Please Wait while comments are loading...