Oneindia থেকে ব্রেকিং নিউজের আপডেট পেতে

সারাদিন ধরে চটজলটি নিউজ আপডেট পান

You can manage them any time in browser settings

পেট্রোল পাম্পগুলিতে কীভাবে আপনার সঙ্গে প্রতারণা হয় জানেন?

Subscribe to Oneindia News

প্রত্যেক বছর রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা বেড়েই চলেছে। তাল মিলিয়ে বেড়ে চলেছে পেট্রোল ডিজেলের দামও। বহু পেট্রোল পাম্পগুলিক মালিকরাই কিন্তু পকেটে টাকা ভরতে গ্রাহকদের সঙ্গে জালিয়াতি করেন। আপনি কি জানেন কিভাবে পেট্রোল পাম্পের মালিকরা আপনার অজান্তেই আপনাকে লুঠ করছে?[আগামিদিনে পেট্রোল পাম্পে গেলে এই সমস্যায় পড়বেন গ্রাহকেরা]

আপনি যখন পেট্রোল পাম্পে যান তখন মূলত আপনার মনোযোগ থাকে পেট্রোল পাম্পের কর্মীদের উপর। যারা পেট্রোল বা ডিজেলের পাইল ধরে আপনার গাড়িতে তা ভরে দেয়। জ্বালানি গাড়িতে ভরার পর এই পাইপে ও তার অগ্রভাগে কিছুটা জ্বালানি রয়ে যায়। যা আপনার গাড়িতে ঢোকে না, অথচ তার জন্যও কিন্তু আপনাকে টাকা দিতে হয়।[১৯০ টাকা প্রতি লিটার ছুঁয়েছে পেট্রোলের দাম!]

পেট্রোল পাম্পগুলিতে কীভাবে আপনি প্রতারিত হন জানেন?

নজর দেবেন আরও একটি উপায়ে পেট্রোল পাম্পের কর্মীরা আপনার সঙ্গে প্রতারণা করেন। গ্রাহকের মনোযোগ নষ্ট করতে তেল ভরতে ভরতেই তাদের সঙ্গে কথা বলতে শুরু করেন কর্মীরা। যাতে গ্রাহক নজর রাখতে না পারে।[বিশ্ব বাজারে হুড়মুড়িয়ে পড়ছে দাম, দেশে পেট্রোল-ডিজেল হবে আরও সস্তা]

গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করতে অঙ্কের মারপ্যাঁচও ব্যবহার করা হয়। ধরুন কোনও গ্রাহক ১০০০ টাকার জ্বালানি চাইলেন। পেট্রোল পাম্প কর্মী প্রথমে ইচ্ছাকৃতভাবে ২০০ টাকার জ্বালানি করে রাখেন। তারপর গ্রাহককে জিজ্ঞাসা করেন কত টাকার জ্বালানি তিনি চান। তখন গ্রাহক আবার একই কথা বললে জ্বালানি মেশিনের কাঁটা ০ তে না এনেই আরও ৮০০ টাকার জ্বালানি ভরে দেন। গ্রাহক বুঝতেই পারন না যে জ্বালানি মাত্র ৮০০ টাকার গিয়েছে অথচ তিনি দিয়েছেন ১০০০ টাকাই। ফলে ২০০ টাকার জ্বালানির ক্ষতি হল গ্রাহকের।[আচ্ছে দিন! এক ধাক্কায় রান্নার গ্যাসের দাম কমল ১১৩ টাকা]

অন্য একটি উপায় হল, পেট্রোল পাম্পগুলি মিটারে গড়মিল করে। যদি গ্রাহক চান ৫০০ টাকার জ্বালানি তেল, তাহলে কর্মীরা মেশিনের কাঁটা ৫০০-তে সেট করেন। এবং পেট্রোল বা ডিজেল ভরতে শুরু করেন। এবার গ্রাহকরা বুঝতেই পারেন না যে মেশিনের হিসাবে ইচ্ছাকৃত গড়মিল করা হয়েছে। মিটারের দিকে তাকিয়ে ৫০০ টাকা পাম্পে দিয়ে বেরিয়ে যান গ্রাহক। কিন্তু তিনি বুঝতেই পারেন না তিনি প্রতারণার স্বীকার হয়েছেন। কিন্তু এই প্রতারণা আপনি সহজেই ধরতে পারবেন। গড়মিল করা থাকলেন মেশিনের স্ক্রিনের ৫০০ সংখ্যাটা স্থির থাকবে। আর গড়মিল করা না হয় তাহলে তা দপদপ করতে থাকে।

English summary
Many petrol bunk owners are cheating customers and pocketing the money. customers spending money without realising that they have been cheated, Here's how customers are being hoodwinked at petrol bunks.
Please Wait while comments are loading...