Oneindia থেকে ব্রেকিং নিউজের আপডেট পেতে

সারাদিন ধরে চটজলটি নিউজ আপডেট পান

You can manage them any time in browser settings

জয়ললিতার 'জয়া' থেকে 'আম্মা' হয়ে ওঠার কাহিনি

  • Written By:
Subscribe to Oneindia News

জয়ললিতা জয়রাম ১৯৪৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। মাত্র ৬৮ বছর বয়সে আড়াই মাসের রোগভোগের পরে চেন্নাইয়ের অ্যাপোলো হাসপাতালে সোমবার মধ্যরাতের কিছু আগে প্রয়াণ ঘটেছে এআইএডিএমকে নেত্রীর।

জে জয়ললিতার জীবনী একনজরে

জয়ললিতা সম্পর্কে এই তথ্যগুলি সিংহভাগ মানুষ জানেন না

তিনি ছিলেন মানুষের মুখ্যমন্ত্রী গরিবদের পাশে সবসময় দাঁড়িয়েছেন তিনি। আর তাই তিন দশকের বেশি সময়ের রাজনৈতিক কেরিয়ারে উত্থান-পতন অব্যাহত থাকলেও কখনও মানুষের ভালোবাসা খোয়াননি তিনি। আর তাই জয়ার প্রয়াণের পর গোটা দক্ষিণ ভারত যেন থমকে গিয়েছে। এহেন জয়ললিতার জয়া থেকে আম্মা হয়ে ওঠার কাহিনি কেমন ছিল তা জেনে নিন একনজরে।

জয়ার জন্ম

জয়ার জন্ম

১৯৪৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি মহীশূরের (বর্তমানে কর্ণাটক) মাণ্ড্য জেলার পাণ্ডবপুরা তালুকের মেলুকোটেতে এক তামিল আইয়েঙ্গার ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। প্রথমে জন্মের সময়ে ঠাকুমার নাম অনুযায়ী জয়ার নাম কোমলাবল্লী রাখা হয়। বাহ্মণ প্রথা মেনে ২টি মোট নাম দেওয়া হয়। একটি পারিবারিক প্রথা মেনে ঠাকুমার নাম ও সঙ্গে আর একটি নিজের নাম। ১ বছর বয়সে জয়ললিতা বলে নামকরণ হয় জয়ার।

মহীশূরে বেড়ে ওঠা

মহীশূরে বেড়ে ওঠা

জয়ার জন্মের ২ বছর পরই বাবা জয়রাম মারা যান। এরপরই সংসার চালাতে কাজে নামতে হয় জয়ার মা বেদবল্লীকে। বিধবা বেদবল্লী বোন অম্বুজাবল্লীর সঙ্গে চলে আসেন মাদ্রাজে। এদিকে জয়া থেকে যান মহীশূরে। ১৯৫৮ সাল পর্যন্ত তিনি কর্ণাটকেই দাদু-দিদার কাছেই ছিলেন। এরপরে জয়া পাকাপাকিভাবে চেন্নাইয়ে গিয়ে মায়ের সঙ্গে থাকতে শুরু করেন। সেখানেই স্কুলের পড়াশোনা শেষ করেন তিনি। তারপর যোগ দেন সিনেমায়।

চেন্নাই যাত্রা ও সিনেমায় অভিনয়

চেন্নাই যাত্রা ও সিনেমায় অভিনয়

১৯৬১ থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত সময়ে মোট ১৪০টি সিনেমায় অভিনয় করেছেন জয়ললিতা। তামিল সিনেমার অন্যতম কিংবদন্তি অভিনেত্রী ছিলেন তিনি। তামিল ছাড়াও তেলুগু কন্নড় সিনেমায় তিনি সমান দক্ষতায় কাজ করেছেন। এছাড়াও তিনি নৃত্যশিল্পী হিসাবেও অসম্ভব দক্ষ ছিলেন। জয়াকে তামিল সিনেমার 'কুইন' বলেও ডাকা হয়। অভিনেতা তথা রাজনীতিক এমজিআরের সঙ্গে জুটিতে বহু হিট সিনেমায় অভিনয় করেছেন জয়া।

রাজনীতিতে হাতেখড়ি

রাজনীতিতে হাতেখড়ি

এই এমজিআরের হাত ধরেই ১৯৮২ সালে রাজনীতিতে প্রবেশ জয়ললিতার। অসম্ভব ভালো ইংরেজি বলতেন জয়া। তাঁর এই গুণ দেখে জয়াকে দলের হয়ে রাজ্যসভায় পাঠান এমজিআর। ১৯৮৪ সাল থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত রাজ্যসভায় সাংসদ হিসাবে কাজ করেন জয়া। মাঝে ১৯৮৭ সালে এমজিআর প্রয়াত হলে দলের ভার নিতে চেয়েছিলেন জয়া। এর ফলে বিভাজন তৈরি হয়। পরে ১৯৯১ সালে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেন জয়া।

তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী

তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী

তামিলনাড়ুর সবচেয়ে কনিষ্ঠ তথা মহিলা মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে জয়ললিতা ১৯৯১-৯৬ তাঁর মেয়াদ পূর্ণ করেন। তবে রঙিন টিভি দুর্নীতির অভিযোগে ১৯৯৬ সালের বিধানসভা ভোটে হেরে যান। পরে গ্রেফতার হন ও জেল হয়। যদিও এই মামলায় পরে তিনি বেকসুর খালাস পান।

বিতর্কিত রাজনৈতিক জীবন

বিতর্কিত রাজনৈতিক জীবন

এরপরেও ২০০১ সালে ২০০৩ সালে ও ২০১১ সালে মুখ্যমন্ত্রী পদে জিতেছেন জয়া। মাঝে হিসাব বহির্ভূত সম্পত্তি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে পদ খোয়ান। পরে সেই মামলাতেও বেকসুর খালাস পান জয়া। এরপরে মে মাসে ২০১৬ বিধানসভা ভোটে জিতে ফের তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী হন জয়ললিতা জয়রাম।

জয়া থেকে আম্মা

জয়া থেকে আম্মা

নিজে সারাজীবন অবিবাহিত থাকলেও এই দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে গরিব মানুষের জন্য উদার মনে কাজ করছেন জয়া। তামিলনাড়ুতে উন্নয়নমূলক নানা প্রকল্প তাঁর আমলে চালু হয়েছে। আর এভাবেই তামিল সিনেমার ম্যাটিনি কুইন থেকে সকলের আম্মা হয়ে উঠেছেন জয়ললিতা।

English summary
How AIADMK chief J Jayalalitha became Amma to Tamil Nadu people
Please Wait while comments are loading...