Oneindia থেকে ব্রেকিং নিউজের আপডেট পেতে

সারাদিন ধরে চটজলটি নিউজ আপডেট পান

You can manage them any time in browser settings

(ছবি) জন্মদিন স্পেশাল : সেলুলয়েডে আমিরের 'সেরা লুক' একনজরে

  • Posted By:
Subscribe to Oneindia News

আমির খান মানেই বলিউডে ভিন্নতার হাতছানি। গত প্রায় দুই দশকের বেশি সময় ধরে তিন খান সহ অনেকে বলিউড শাসন করে চলেছেন। তবে তার মধ্যে আমির যেভাবে সব অভিনেতাকে ছাপিয়ে নিজের লুক নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছেন তা এককথায় অনবদ্য। আর প্রায় সবকটি লুকই একে অপরের থেকে আলাদা।[(ছবি) বার্থ ডে স্পেশাল : আমিরের এই সিনেমাগুলিতে রয়েছে গভীর সামাজিক বার্তা]

এদিন আমিরের ৫২তম জন্মদিন। সেই উপলক্ষ্যে দেখে নেওয়া যাক বলিউড সিনেমার মিস্টার পারফেকশনিস্টের কয়েকটি সেরা 'সেলুলয়েড লুক' একনজরে।

কয়ামত সে কয়ামত তক (১৯৮৮)

কয়ামত সে কয়ামত তক (১৯৮৮)

এই সিনেমা দিয়ে নায়ক হিসাবে বলিউডে অভিনয় জীবন শুরু করেন আমির। এই সিনেমায় আমিরের চকোলেট বয় লুক সকলের মনে জায়গা করে দিয়েছিল মিস্টার পারফেকশনিস্টকে। রাতারাতি তিনি হয়ে উঠেছিলেন সিনেমাপ্রেমীদের মনের মানুষ।

রঙ্গীলা (১৯৯৫)

রঙ্গীলা (১৯৯৫)

রাম গোপাল বর্মার পরিচালনায় উর্মিলা মাতোন্ডকরের সঙ্গে অভিনয় করা এই সিনেমায় কম লেখাপড়া জানা একটি যুবকের চরিত্রে অভিনয় করেন আমির। সেজন্য সেইরকমের লুক বেছে নিতে হয়েছিল। সেই সময়ের প্রেক্ষিতে এই ধরনের লুকে ভিন্নধর্মী স্বাদ ছিল।

লগান (২০০১)

লগান (২০০১)

এই সিনেমায় একেবারে অন্য লুকে পর্দায় ধরা দেন আমির। পুরো সিনেমায় আমিরের পোশাক বিশেষ বদল হয়নি। ধুতি পরে নামমাত্র পোশাকে তিনি অভিনয় করেছেন। কারণ গল্পের প্রয়োজনে সেটাই করা প্রয়োজন ছিল। এই সিনেমা ভারতীয় সিনেমার প্রেক্ষিতে একটি মাইলস্টোন হিসাবে বিবেচিত হয়েছে।

দিল চাহতা হ্যায় (২০০২)

দিল চাহতা হ্যায় (২০০২)

লগানের পরে মুক্তি পেয়েছিল লগানের কিছুদিন পরেই। তবে এই সিনেমায় আমিরের লুক ছিল একেবারে ভিন্ন। এক নতুন কর্পোরেট লুকে ধরা দিয়েছিলেন আমির। আর সিনেমা রিলিজ করার পরে অগইত মানুষ সেই লুককে কপি করেন। চুলের স্টাইল থেকে শুরু করে ঠোঁটের নিচে চুলের ছোট্ট গোছা, সেটাই তখন ট্রেন্ড হয়ে ওঠে।

মঙ্গল পাণ্ডে - দ্য রাইজিং (২০০৫)

মঙ্গল পাণ্ডে - দ্য রাইজিং (২০০৫)

দেশপ্রেমী মঙ্গল পাণ্ডের চরিত্রে আমিরের লুক সেইসময়ে আলোড়ন ফেলে দিয়েছিল। আগে সিনেমার লুক নিয়ে বেশি পরীক্ষা-নিরীক্ষা হতো না। বলা যায় আমির এই ধরনের ভাবনা বলিউডে আমদানির অন্যতম প্রণেতা।

রং দে বসন্তী (২০০৬)

রং দে বসন্তী (২০০৬)

এই সিনেমায় হুল্লোড়বাজ এক কলেজ ছাত্রের চরিত্রে অভিনয় করেন আমির। এমন ছাত্র যে বেশিবয়স হয়ে গেলেও নিজের হুল্লোড়বাজির কারণে কলেজ পাশ করতে পারেনি। জীবনকে সিরিয়াসভাবে নিতে শেখেনি। লম্বা চুলের আমিরের ক্যাজুয়াল লুক সেসময়ে যুবসমাজ দারুণভাবে কপি করেছিল।

গজনী (২০০৮)

গজনী (২০০৮)

ন্যাড়া মাথায় অসংখ্য কাটা দাগ, গজনী সিনেমায় এই ছিল আমিরের লুক। আর এই সিনেমায় এইচ-প্যাক অ্যাবস আমির তৈরি করে সকলকে তাক লাগিয়ে দেন। তাঁর এমন লুক টিনসেলটাউনে চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছিল।

থ্রি ইডিয়টস (২০০৯)

থ্রি ইডিয়টস (২০০৯)

এই সিনেমায় আবার ছোট চুলে একেবারে কলেজ ছাত্রের লুকে হাজির হন আমির। তাঁকে দেখে বোঝার উপায় ছিল না তিনি পঞ্চাশের কোঠায় পৌঁছে যাওয়া কোনও অভিনেতা নাকি বছর কুড়ির কোনও কলেজ ছাত্র? রাজু হিরানি পরিচালিত এই সিনেমা ভারতীয় সিনেমার ইতিহাসে আর এক অসাধারণ চলচ্চিত্র।

পিকে (২০১৪)

পিকে (২০১৪)

পৃথিবীতে গবেষণা করতে এসে হারিয়ে যাওয়া এক ভিনগ্রহের বাসিন্দার ভূমিকায় অভিনয় করেন আমির। রঙীন এই চরিত্রের পরতে পরতে ছিল সামাজিক শিক্ষার অফুরন্ত প্যাকেজ। আর এই ভূমিকাতেও সুপারহিট আমির খান।

দঙ্গল (২০১৬)

দঙ্গল (২০১৬)

দঙ্গলে মহাবীর সিং ফোগতের চরিত্রে আমির সকলকে মন্ত্রমুগ্ধ করেছেন। এই সিনেমার জন্য একেবারে দেশি হরিয়ানভী লুকে তিনি হাজির হয়েছেন। ত্রিশ কিলো ওজন বাড়িয়েছেন। পরে আবার অ্যাবস অবস্থার চেহারায় ফিরে গিয়েছেন। সিনেমা প্রতি এই ভালোবাসাই দঙ্গলকে বছরের সবচেয়ে বড় হিট সিনেমা বানিয়েছে। সঙ্গে আমিরকে ফের একবার দিয়েছে সেরার শিরোপা।

English summary
Aamir Khan's jaw-dropping looks in Bollywood movies over the years
Please Wait while comments are loading...