Oneindia থেকে ব্রেকিং নিউজের আপডেট পেতে

সারাদিন ধরে চটজলটি নিউজ আপডেট পান

You can manage them any time in browser settings

(ছবি) বাংলা চলচ্চিত্রের ৯ নারীকেন্দ্রিক ছায়াছবি

Subscribe to Oneindia News

আজ ৮ মার্চ দেশজুড়ে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক নারী দিবস। ভারতীয় চলচ্চিত্র দুনিয়ায় নারীকে সম্মান জানাতে তৈরি হয়েছে একাধিক ছবি। আবার মহিলাদের জীবনের সমস্যা নিয়েও তৈরি হয়েছে নানাবিধ ছবি।[(ছবি) নারী দিবস স্পেশাল : বলিউড সিনেমায় শক্তিশালী নারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন এই অভিনেত্রীরা ]

আজকে আমাদের আলোচনার বিষয় বাংলা ছায়াছবি। টলিউডে এমন বহু ছবি তৈরি হয়েছে যার কেন্দ্রীয় চরিত্রে রয়েছে নারী। এমনই সেরা ১০টি ছবির তালিকা আমরা নিয়ে এসেছি আপনাদের জন্য।

পরমা

পরমা

১৯৮৪ সালে তৈরি হয়েছিল এই ছবিটি। ছবির গল্প এক গৃহবধূ পরমাকে নিয়ে। নামভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন রাখী। ৪০ বছরের এক গৃহবধূ যার অস্তিত্ব শুধুমাত্র, 'বউমা', 'কাকিমা', 'বৌদি' এমন নানবিধ সম্পর্কের ডাকেই আটকে ছিল। এরপর রাহুল নামের এক পুরুষ তার জীবনে আসে। যে বয়সে অনেক ছোট হয়েও পরমাকে নিজেকে নতুন করে আবিস্কার করতে শিখিয়েছিল।

অপর্ণা সেনের এই ছবি জাতীয় পুরস্কারও পেয়েছিল।

পারমিতার একদিন

পারমিতার একদিন

এই ছবি দুই মহিলার বন্দুত্ব ও একাকীত্বের গল্প। শনকা ও পারমিতা সম্পর্কে শাশুড়ি ও বউমা। বয়স, ব্যাকগ্রাউন্ড, চিন্তাশক্তিতে পার্থক্য থাকা সত্ত্বেও দুজনের মধ্যে এক অনন্য সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। সেই সম্পর্ক নিয়েই এই ছবি।

অপর্ণা সেনের এই ছবি জাতীয় পুরস্কারও পেয়েছিল।

দহন

দহন

ঋতুপর্ণ ঘোষের জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত এই ছবি পুরোটাই নারীকেন্দ্রিক। এক গৃহবধূ যাঁকে স্বামীর চোখের সামনেই স্থানীয় গুণ্ডারা শ্লীলতাহানি করে। কেউ সাহায্য করছে না দেখে এক শিক্ষিকা এগিয়ে আসে গৃহবধূর সাহায্যে। এই একটা ঘটনা কীভাবে পাল্টে দেয় ওই গৃহবধূর জীবন তাই নিয়েই এই ছবি।

ইতি মৃণালিনীর

ইতি মৃণালিনীর

অভিনেত্রী মৃণালিনীর জীবন নিয়ে এই কাহিনী। ভালবাসার বিবিধ দিক এই ছবিতে তুলে ধরা হয়েছে। তারুণ্যে ঙরা প্রেম। ভালবাসা ও বন্ধুত্বের মধ্যে আটকে হাবুডাবু খাওয়া এক স্তর, সবশেষে একাকীত্ব। এই ছবিতে মৃণালিণীর অল্প বয়সের চরিত্রে অভিনয় করেছেন কঙ্কনা সেন শর্মা এবং প্রবীন মৃণালিনীর ভূমিকায় দেখা গিয়েছে অপর্ণা সেনকে।

উনিশে এপ্রিল

উনিশে এপ্রিল

মা-মেয়ের সম্পর্কের গল্প উনিশে এপ্রিল। কীভাবে বাবার মৃত্যু মায়ের নাচ শেখানো মা-মেয়ের মধ্যে দুরত্ব তৈরি হয় এবং সেই ভুল বোঝাবুঝির আধার কেটে ফের কীভাবে তারা একে অপরের কাছাকাছি আসে তাই নিয়ে এই গল্প।

১৯৯৫ সালে ঋতুপর্ণ ঘোষের এই ছবি জাতীয় পুরস্কার পায়।

টেক ওয়ান

টেক ওয়ান

জনপ্রিয় অভিনেত্রী দোয়েল মিত্র (স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়)-র অন্তরঙ্গ মুহূর্ত ফাঁস হয়ে যায় ইন্টারনেটে। সংস্কৃতিবান সমাজের সমালোচনায় পড়তে হয় অভিনেত্রীকে। সেখান থেকে তাঁর সংগ্রাম, তাঁর জীবন কোন পথে যায় তা নিয়েই এই গল্প।

মন্দ মেয়ের উপাখ্যান

মন্দ মেয়ের উপাখ্যান

এই ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্র লতি ও রজনী। রজনী বেশ্যা। তার মেয়ে লতি, যে এই অন্ধকার জগৎ ছেড়ে বেরিয়ে স্কুলে পড়তে চায়। কিন্তু দুর্ভাগ্য তার পিছু ছাড়ে না। তাঁকেও তার মায়ের মতো বেশ্যাবৃত্তির দিকে ঠেলে দেওয়া হলে সে বিদ্রোহ করে। মায়ের বিরুদ্ধেই তার সেই বিদ্রোহ।

ছবির পরিচালনা করেছিলেন প্রখ্যাত পরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত।

চোখের বালি

চোখের বালি

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের গল্প অবলম্বনে ঋতুপর্ণ ঘোষের পরিচালনায় তৈরি হয়েছিল এই ছবি। একদিকে অল্পবয়সে বিধবা হওয়া বিনোদিনীর আকাঙ্খা, কামনা, বাসনা, মহেন্দ্রর সঙ্গে সম্পর্ক, অন্যদিকে আশালতার একাকীত্ব, স্বামী হারানোর লাঞ্ছনা। দুই নারীর সম্পর্ক, দুরত্ব সবই এই গল্পে প্রাধান্য পেয়েছে।

রাজকাহিনী

রাজকাহিনী

১৯৪৭ সালে দেশভাগের আঁচ পড়ে এক পতিতাপল্লিতে। কীভাবে তার বিরুদ্ধে কর্তৃী বেগম জানের (ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত) নেতৃত্বে তারা এই অবিচারের বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে তা নিয়েই এই গল্প।

English summary
9 Women Centric Bengali Films
Please Wait while comments are loading...